বিজ্ঞাপন

অফিসিয়াল গ্রুপে যোগ দিন

বাংলাদেশের স্পোর্টসভিত্তিক শীর্ষ অনলাইন ম্যাগাজিন

টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি

মাঠে সাফল্য না পেলেও আয় বেশি বার্সেলোনার!

প্রকাশ: বুধবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২১ | ১৩:১৫:৪৭

ডেইলি স্পোর্টসবিডি ডেস্ক

ছবিঃ বার্সা ইউনিভার্স
ছবিঃ বার্সা ইউনিভার্স

শিরোপাশূন্য মৌসুম। পতন হয় বার্তামেউর সাম্রাজ্যের ! মাঠে এবং মাঠের বাহিরে নানারকম বিতর্ক। গত এক দশকে বার্সেলোনার এত খারাপ সময় আর কখনও পার করেনি। করোনায় এমনিতেই বিপর্যস্ত অর্থনীতি। তার উপর অন্য ক্লাব থেকে কিনে আনা ১৯ ফুটবলারের দেনা পাওনা! টানা ব্যর্থতার পরও স্প্যানিশ জায়ান্টদের আয়-রোজগারে ভাটার টানা লাগার কোনো লক্ষণ নেই। উল্টো আয় বেড়েছে।

১৯৯৬-৯৭ মৌসুম থেকে প্রতি বছর ইউরোপের ফুটবল ক্লাবগুলোর সার্বিক আয়ের তালিকা প্রকাশ করে আসছে আর্থিক সমীক্ষা প্রতিষ্ঠান ডেলোইট। যাকে বলা হয় ‘ডেলোইট ফুটবল মানি লীগ’। এবারের আয়ের তালিকাটা করা হয়েছে ২০১৯-২০ মৌসুমের ভিত্তিতে। সেখানে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদকে টেক্কা দিয়ে টানা দুবার তালিকায় শীর্ষে আছে মেসিরা। গেলবারই প্রথম ক্লাব হিসেবে মৌসুমে ৮০০ মিলিয়ন ইউরোর মাইলফলক স্পর্শ করেছিল স্পেনের শীর্ষস্থানীয় ক্লাবটি।

করোনাকালে দর্শকবিহীন মাঠে এমনি ইউরোপের সব ক্লাবের আয় কমেছে। গতকাল প্রকাশিত ‘দ্য ডেলোইট ফুটবল মানি লিগ’-এর জরিপ বলছে, ২০২০-২১ মৌসুম শেষে বিশ্বের সেরা ২০ ধনী ক্লাবের সম্মিলিত আয় কমে যাবে প্রায় ২ বিলিয়ন ইউরো বা ১.৭ বিলিয়ন পাউন্ড। গেল মৌসুমেও যা যথেষ্ট কমেছে। ২০১৮-১৯ মৌসুমে সব মিলিয়ে অঙ্কটা গিয়ে দাড়িয়েছে ৯৭৬ মিলিয়ন পাউন্ড বা হাজার মিলিয়ন ইউরোর বেশি। মুদ্রাস্ফীতির হিসাব করলে ইউরোপীয়ান ফুটবলে গেল পঞ্চাশ বছরে ক্লাবগুলোর এতবড় আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়নি কখনওই।

জরিপে প্রথম স্থানে থাকা বার্সেলোনা গেল মৌসুমে সবমিলিয়ে আয় করেছে ৬২৭.১ মিলিয়ন পাউন্ড বা ৭১৫.১ মিলিয়ন ইউরো। তারা পিছনে ফেলেছে তালিকার সর্বোচ্চ ১১ বারের শীর্ষে থাকা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদকে। গেল মৌসুমে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নদের আয় ছিল ৬২৭ মিলিয়ন পাউন্ড বা ৭১৪.৯ মিলিয়ন ইউরো। ৫৮১.৮ মিলিয়ন পাউন্ড থেকে কমে গত মৌসুমে ট্রেবল জয়ী জার্মান জায়ান্ট ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখের ছিল ৫৫৬ মিলিয়ন পাউন্ড বা ৬৩৪.১ মিলিয়ন ইউরো।

আয় কমেছে ব্রিটিশ ক্লাবগুলোরও। ২০১৮-১৯ মৌসুমে তালিকায় তৃতীয় থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড গত মৌসুমে আয় করেছে ৫৮০ মিলিয়ন ইউরো। যা ২০১৮-১৯ মৌসুমে ছিল ৭১১.৫ মিলিয়ন ইউরো। শীর্ষ পাঁচের অন্য ক্লাবটি হল ইংলিশ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল। গেল মৌসুমে মার্সেসাইডের ক্লাবটির আয় ছিল ৫৫৮ মিলিয়ন ইউরো।

আয়ের দিক থেকে শীর্ষ দুই স্থান স্প্যানিশ ফুটবলের দখলে থাকলেও সেরা দশে ইংলিশ ক্লাবগুলোর দাপট। তালিকার শীর্ষ দশের ৫টিই তাদের! এই জরিপে শীর্ষ দশের বাকী ৫টি ক্লাব হল যথাক্রমে ম্যানচেস্টার সিটি, পিএসজি, চেলসি, টটেনহ্যাম হটস্পার্স ও জুভেন্টাস।
শীর্ষ বিশেও ইংলিশ ফুটবলের জয়জয়কার। তালিকার সেরা বিশের ৭টি ব্রিটিশ ক্লাব। যা ইংলিশ ফুটবলের বৈশ্বিক বাণিজ্যিক দাপট বুঝায়।

আরও খেলার খবরঃ   আজ টিভিতে দেখবেন যত খেলা

সাম্প্রতিক খবর

বাংলাদেশ ফুটবল / ফিফা র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি বাংলাদেশের
বাংলাদেশ ফুটবল / ঢাকায় এসে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেই ফাইনালের কথা স্মরণ করলেন গ্রান্ট
ক্লাব ফুটবল / ২০২১-এর ক্লাব বিশ্বকাপ হবে আরব আমিরাতে
বাংলাদেশ ক্রিকেট / সুপার টুয়েলভে ওঠার মিশনে পিএনজির বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / পাকিস্তান নয়, ইনজামামের চোখে বিশ্বকাপে ফেভারিট ভারত
বাংলাদেশ ফুটবল / লঙ্কা সফরে বাংলাদেশের কোচ পর্তুগালের মারিও লেমোস
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / বাংলাদেশকে হারিয়ে ইতিহাস গড়ার স্বপ্ন পিএনজির
টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি