ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

ফিলিস্তিনের জন্য অগাধ ভালোবাসা ছিল ম্যারাডোনার

নিউজ ডেস্ক

১৩ জানুয়ারী ২০২১, সকাল ৮:৪৬ সময়

[ raw_maradona-kalben-filistinliyim_122674203 ]
কিংবদন্তির কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনা মরার আগে দীর্ঘদিন যাবত ভুগছিলেন হৃদরোগে। ২ সপ্তাহ আগে ছিলেন হাসপাতালে। সেখানে তার মস্তিকে চালানো হয়েছিল অস্ত্রোপচার। সুস্থ হয়ে বাসায় ফেরার ২ সপ্তাহ পর মারা যান ঘুমের মধ্যে। অন্যান্য দেশের ফুটবল ভক্তদের ন্যায় ফিলিস্তিনিদের পক্ষেও তার সরব সমর্থনের জন্যও বহু লোক তাকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছে। জীবদ্দশায় ম্যারাডোনা সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী, বামপন্থী সমাজতান্ত্রিক হিসাবে প্রশংসিত হন। তিনি ছিলেন প্রগতিশীল আন্দোলনের সমর্থক। ফুটবল ছেড়ে আসার পর তিনি ভেনেজুয়েলার প্রয়াত নেতা হুগো শ্যাভেজ, কিউবার প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ফিদেল কাস্ত্রো ও বলিভিয়ার ইভো মোরেলেসদের সাথে বন্ধুত্ব পোষণ করেছিলেন। তার হাতে ছিল নিপিড়ীত মানুষের অধিকার আদায়ের নেতা আর্নেস্তো চে গেভেরার ট্যাটু। ফুটবলে জাদু দেখানো তার বা পায়ে ছিল ফিদেল কাস্ত্রোর ট্যাটু। আর শ্যাভেজের সঙ্গে একাধিক অনুষ্ঠানে আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশ-বিরোধী জামা পরিহিত অবস্থায় দেখা গেছে ম্যারাডোনাকে। ২০১২ সালে ম্যারাডোনা নিজেকে ফিলিস্তিনের এক নাম্বার সমর্থক হিসেবে দাবি করে বলেন, "আমি তাদেরকে সম্মান করি এবং তাদের প্রতি সমবেদনা জানাই। ফিলিস্তিনিদের সমর্থন করতে আমার অন্তরে কোন ভয় নাই।" ২০১৪ সালে ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরাইল কতৃক বোমা হামলায় ৩ হাজার নিরিহ মানুষ মৃত্যু বরন করে। ইসরায়েলের এই সামলার তীব্র নিন্দা আর ক্ষোভ জানিয়ে এই বা পায়ের জাদুকর বলেন, "ইসরায়েল ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে যা করেছে, তা অত্যান্ত লজ্জাজনক।" ২০১৮ সালের জুলাইতে রাশিয়ার মস্কোর একটি বৈঠকে ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রপতি মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে তিনি সাক্ষাৎ করে ফিলিস্তিনিদের পক্ষে তার দীর্ঘদিনের সমর্থনের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানের এক ভিডিও ক্লিপে আব্বাসকে আলিঙ্গন করার সময় সদ্য প্রয়াত দিয়াগো ম্যারাডোনাকে বলতে শোনা যায়, "মনে হয় আমি একজন ফিলিস্তিনি।