ফুটবল > ক্লাব ফুটবল

স্টেগান বীরত্বে ফাইনালে বার্সেলোনা

নিউজ ডেস্ক

১৪ জানুয়ারী ২০২১, সকাল ৬:৪ সময়

[ 137225616_3147328298701653_7703356625885736634_n ]
ছবিঃ ইন্টারনেট।
শুরুতেই জানা গিয়েছিল খেলবেন না দলের সেরা তারকা লিওনেল মেসি। ‘অস্বস্তিবোধ’ করায় বুধবার সকালের অনুশীলন সেশনে ছিলেন না মেসি। তখন থেকেই তাকে নিয়ে শঙ্কা তৈরি। অবশেষে মেসিকে ছাড়াই স্প্যানিশ সুপার কাপের সেমিফাইনালে রিয়াল সোসিয়াদাদের মুখোমুখি হয় রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা। অতিরিক্ত সময়ে ১-১ সমতায় শেষের পর টাইব্রেকারে ৩-২ ব্যবধানে জিতে শিরোপা লড়াইয়ে এক ধাপ এগিয়ে গেল কাতালান ক্লাবটি। বার্সেলোনার এই জয়ে নায়ক একজনই; গোলরক্ষক মার্ক আন্ড্রে টের স্টেগান। ট্রাইবেকারে প্রতিপক্ষের প্রথম দুটি শট দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দিয়ে বার্সেলোনার জয় সহজ করে দেন জার্মান এই গোলরক্ষক। পুরো ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে বার্সেলোনার আধিপত্য ছিল স্পষ্টত। রিয়াল সোসিয়াদাদের ৩৭ শতাংশ বল দখলের বিপরীতে কোম্যানের দলের ৬৩ শতাংশ বল দখলে সবচেয়ে বেশি ফুটে উঠে মেসিবিহীন দলের ফ্যাকাশে আক্রমণভাগ। একের পর এক আক্রমণ করেও আক্রমণভাগের ব্যর্থতায় রিয়াল সোসিয়াদাদের ডুফেন্সে চিড় ধরাতে ব্যর্থ হয় কাতালান ক্লাবটি। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণের ম্যাচে গোল করার প্রথম সুযোগ পায় সোসিয়াদাদ। তিন মিনিটেই প্রায় ছয় গজ বাইরে থেকে অরক্ষিত আলেকসান্দার ইসাকের হেড ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। মিনিট সাতেক পর ইসাকের আরও একটি ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক স্টেগান। রিয়াল সোসিয়াদাদের সব আক্রমণ ভেস্তে দিয়ে বার্সেলোনা গোল করার প্রথম সুযোগই কাজে লাগিয়ে নেয়৷ ম্যাচের ৩৯তম মিনিটে সোসিয়াদাদের একজনকে কাটিয়ে ডি-বক্সে পাস দেন মার্টিন ব্রাথওয়েট আর বাঁ দিক থেকে ছয় গজ বক্সের মুখে ক্রস বাড়ান গ্রিজমান। সেখান থেকে শূন্য লাফ মেরে দারুণ হেডে গোল করে বলকে এগিয়ে দেন ডাচ মিডফিল্ডার ডি ইয়ং। প্রথমার্ধের বাকী সময় আর কোন গোল না হলে ১-০ তে এগিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা। বিরতির পর মাঠে ফেরে রিয়াল সোসিয়াদাদকে সমতায় ফেরায় ওইয়ারসাবাল। দ্বিতীয়ার্ধের পঞ্চম মিনিটে নিজেদের ডি বক্সে বল ডি ইয়ংয়ের কনুইতে লাগলে পেনাল্টির বাজি বাজান রেফারী। সেখান থেকে স্প্যানিশ উইংগারের সফল স্পটকিকে সমতায় ফেরে গেলবারের ফাইনালিস্ট রিয়াল সোসিয়াদাদ। গোল করে বার্সেলোনার ডিফেন্সে আক্রমণের ধার বাড়ায় অ্যালগুয়াচিলের শিষ্যরা। বার্সেলোনাও নিজেদের ডিফেন্স ঠিক রেখে পাল্টা আক্রমণে যায়। কিক্তু, দুদলের ফরোয়ার্ড লাইনের ব্যর্থতায় ১-১ সমতায় নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা শেষ হয়। খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। অতিরিক্ত সময়ে সোসিয়াদাদের বেশ৷ কিছু গোছানো আক্রমণ নষ্ট করে দেন স্টেগান। চতুর্থ মিকিটেই ইয়োসেবা জালদুয়ার ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া বুলেট গতির শট ঝাঁপিয়ে কোনমতে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান জার্মান গোলরক্ষক। পাল্টা আক্রমণে ছয় মিনিট পর গোল করার সুযোগ পায় বার্সেলোনা। সেখান থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয় ওসমান ডেম্বলে। সোসিয়াদাদের ডি বক্সে একজনকে কাটিয়ে বোকা বানালেও ফরাসি বিস্ময় বালকের দুর্বল শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক। বাকি সময়ে দুদলই আরও সুযোগ পায় গোল করার। কিন্তু, কেউই কাজে লাগাতে পারেনি। ফলে ট্রাইবেকারে খেলা গড়ায়। টান টান উত্তেজনাপূর্ণ ট্রাইবেকারে সোসিয়াদাদের প্রথম দুটি শট ঠেকিয়ে দিয়ে জয়ের নায়ক বনে যান স্টেগান। বার্সেলোনার জালে বল পাঠাতে ব্যর্থ হন উইলিয়ান হোর্হেও। যদিও ডি ইয়ং ও গ্রীজম্যানের ব্যর্থতায় টিকে ছিল সোসিয়াদাদ। কিন্তু শেষ মুহুর্তে রিকি পুইজের গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে প্রতিযোগিতার অন্যতম সফল ক্লাবটি। বার্সেলোনার এই জয়ে আরও একটি স্বপ্নের ফাইনালের আভাস দিচ্ছে। আজ রাতে দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে অ্যাতলেতিক বিলবাওয়ের মুখোমুখি হবে রিয়াল মাদ্রিদ। জিনেদিন জিদানের শিষ্যদের জয়ে হতে পারে আরও একটি এল ক্লাসিকো ফাইনাল।