ফুটবল > বাংলাদেশ ফুটবল

বাংলাদেশ ফুটবলেও যুক্ত হবে ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি

নিউজ ডেস্ক

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, দুপুর ১১:৪৩ সময়

[ images-2021-02-11t174029-064 ]
ধরে নেওয়া যাক, টান টান উত্তেজনার ফুটবল ম্যাচ চলছে, ম্যাচের একদম শেষ মুহূর্তের দিকে চলে এসেছি, স্কোর শিটে এখনও কোন দল নাম তুলতে পারেনি। গোল করতে পারলেই ম্যাচ জিতে নেওয়া সম্ভব। কিন্তু এমন সময় প্রতিপক্ষের ডি-বক্সের মধ্যে ডিফেন্ডারের হাতে বল লাগলো কিন্তু মাঠে থাকা রেফারির চোখে তা সুক্ষ ভাবে ধরা পড়েনি তাই রেফারিও পেনাল্টির বাঁশি বাজাননি কিন্তু আদতে তা হ্যান্ডবলই ছিল। ঠিক এই সময় যদি ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি প্রযুক্তির ব্যবহার থাকতো তাহলে রিপ্লে দেখে অন্য কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যেত। উপরের এই উদাহরণের মত ফুটবল দুনিয়ায় এরকম কত ঘটনা ঘটেছে তার কোনো ইয়াত্তা নাই। তাই এই সমস্যা থেকে বের হয়ে আসার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হল যে মাঠে থাকা রেফারিকে সাহায্য করার জন্য ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি পদ্ধতি চালু করা হবে। ফিফাও এতে সম্মতি দিলো এবং পরবর্তীতে ইউরোপিয়ান বিভিন্ন লীগে ও ২০১৮ বিশ্বকাপ ফুটবলে এই ভিএআর ব্যবহার করা হয়ে থাকে যা এখনো শীর্ষ লীগ গুলোতে নিয়মিত ব্যবহার করা হচ্ছে। ফুটবলের উন্নত দেশ গুলোতে ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি নিয়মিত ব্যবহার করা হলেও বাংলাদেশে এখনও এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়নি। অবশেষে সেই অপেক্ষার অবসান ঘটতে যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও লীগ কমিটির চেয়ারম্যান জনাব সালাম মুর্শেদির প্রত্যাশা আগামী সিজন থেকেই বাংলাদেশের ফুটবলেও ভিএআর ব্যবহার করা হবে। তিনি আরও জানান,
"দীর্ঘ ১২ বছর ধরে লীগ পরিচালনা করছি। করোনার পর আবারও ফুটবল মাঠে ফিরেছে। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো আগামী সিজন থেকেই ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি প্রযুক্তি চালু করতে। এ বছর আর্থিক সীমাবদ্ধতার কারণে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না।"
চলতি লীগে রেফারিদের সিদ্ধান্ত নিয়ে বেশ কয়েকটা ম্যাচে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। এতে রেফারিকে দোষ প্রদান করে কয়েকটা ক্লাবতো সরাসরি অভিযোগও করেছে। তাই বাফুফের সহ-সভাপতির প্রত্যাশা ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি প্রযুক্তি চালু করা সম্ভব হলেই এসব বিতর্কের সৃষ্টি আর হবে না।