‘বিল্ডাপ ফুটবলে’ মনোযোগী ফুটবলাররা

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ, ২০২১ | ১৯:১৬:২৯

ডেস্ক রিপোর্ট

ছবিঃ বাফুফে

ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচে জয় পেলেও জয় সূচক গোলটি আসে প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডারের ভুলে। ফলে টুর্নামেন্টে এখনও ফুটবলাররা গোলের খাতা খুলতে পারেননি। গোলের খাতা খুলতে না পারার ব্যর্থতা নতুন কিছু নয় এ দেশের ফুটবলারদের। প্রতিপক্ষের ডি-বক্সের মধ্যে বাংলাদেশের ফুটবলাররা বরাবরই অসহায় রুপ দেখা গিয়েছে। তবে এই অসহায় রুপ থেকে বের হয়ে নিয়মিত প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে চান বর্তমান জাতীয় দলের ফুটবলাররা। সে লক্ষ্যেই পাসিং ফুটবলের পাশাপাশি ইদানিং কাউন্টার এ্যাটাকেও মনোযোগী হচ্ছে জেমি ডের শিষ্যরা। কিরগিজস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের এক মাত্র গোলটিও এসেছিল কাউন্টার এ্যাটাকের মাধ্যমে।

নেপালের বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে আজ (বৃহস্পতিবার) দশরথ স্টেডিয়ামে অনুশীল করেছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। কিভাবে ম্যাচ বিল্ডাপ করে আক্রমণে যেতে হয় সেদিকেই বেশি নজর দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন প্রথম ম্যাচের গোলের জোগান দাতা সাদ উদ্দিন। তিনি আরও বলেন,

“শুধু ম্যাচ বিল্ডাপ’ই না, ডিফেন্স, মিডফিল্ড থেকে শুরু করে ফিনিশিংয়েও উন্নতির জন্য কাজ করছি আমরা। আগে আমরা কাউন্টার আক্রমণ ধাচে খেলতাম তবে এখন চাচ্ছি বিল্ডাপ ফুটবল খেলতে। যাতে ভাল একটা অ্যাটাকে গোল হয় সেই চেষ্টা করছি।”

দলে অভিষিক্ত তিন ফুটবলারের খেলা ভাল লেগেছে সাদ উদ্দিনের কাছে। তিনি মনে করেন যদি আরো ভাল করে তবে জাতীয় দলের পরবর্তী ক্যাম্পেও তারা ডাক পাবেন।

অনুশীলনে ফুটবলাররা। ছবিঃ বাফুফে

ম্যাচ বিল্ডাপের অন্যতম মাধ্যম হলো, বল পজিশন ধরে রেখে ছোট ছোট পাসে আক্রমণে যাওয়া। একজন খেলোয়াড় খুব বেশি সময় পায়ে বল রাখার বদলে তার আশে পাশে থাকা থার্ড ম্যানকে বল পাস করা , ফলে যার কাছে বল থাকে তাকে প্রেস করার জন্যে প্রতিপক্ষ নিজের জায়গা ছেড়ে এগিয়ে আসে এতে তৈরী হয় স্পেস, ফলে আক্রমণে যাওয়া সহজ হয় এবং গোল আদায় করে নেওয়া যায়।