ব্যাখ্যা দিয়েছেন জেমি ডে কিন্তু পুরোপুরি সন্তুষ্ট নন কাজী সালাউদ্দিন

প্রকাশ: শনিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২১ | ১৮:৩৭:১৭

ডেস্ক রিপোর্ট

ব্যাখ্যা দিয়েছেন জেমি ডে কিন্তু পুরোপুরি সন্তুষ্ট নন কাজী সালাউদ্দিন

নেপালের ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচে জয় এবং দ্বিতীয় ম্যাচে ড্র করে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই ছিল বাংলাদেশ। ফটবলার, কোচ, সাধারণ দর্শক থেকে শুরু করে খোদ কাজী সালাউদ্দিনও ট্রফি জয়ের স্বপ্ন বুনেছিলেন। কিন্তু সে স্বপ্ন আর বাস্তবে দেখা মেলেনি। ফাইনালে আনকোরা এক একাদশ নামিয়ে প্রথমার্ধেই দুই গোল হজম করে বাংলাদেশ। দ্বিতীয়ার্ধে খেলোয়াড় পরিবর্তন করে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করে এক গোল পরিশোধ করলেও ম্যাচ জেতা হয়নি বাংলাদেশের।

তবে সেই ম্যাচের একাদশ দেখে খোদ কাজী সালাউদ্দীনও কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। যে কারণে দল ঢাকায় ফেরার দু’দিন পরই শনিবার কোচ জেমি ডে এবং তার সহকারী স্টুয়ার্ট ওয়াটকিসকে জরুরি তলব করে ফাইনাল ম্যাচের নানা বিষয়ে কৈফিয়ত চেয়েছেন বাফুফে সভাপতি।

ফাইনাল ম্যাচের এমন আনকোরা একাদশ কেন। সেটার ব্যাখা প্রদান করেছেন কোচ জেমি ডে। তবে জেমির ব্যাখ্যায় পুরোপুরি সন্তুষ্ট হতে পারেননি কাজী মোঃ সালাউদ্দিন। যদিও এটা একান্তই জেমি ডে’র ব্যক্তিগত মতামত প্রদান করেছেন।

আজ দুপুরে বাফুফে ভবনে কোচের সঙ্গে আলোচনার পর বাফুফে সভাপতি জানিয়েছেন,

“গণমাধ্যম ও কোচের মতামতের মধ্যে অবশ্যই ভিন্নতা রয়েছে। কোচ বলেছেন- সে তার সেরা একাদশই নামিয়েছিলেন ফাইনালে। আমরা কিছু বিষয়ে অবশ্য ভিন্নমত প্রকাশ করেছি। কারণ, একেক জনের ব্যাখ্যা একেক রকম হয়। সব সময় মিলবে না। মাঝে মধ্যে এক হতে পারে। কোচ তার নিজের মতো করে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তবে আমি শতভাগ সন্তুষ্ট নই। ওর কথায় যে যুক্তি নেই সেটাও বলছি না।”

যদিও মাঠের পার্ফরমেন্সে ফুটবলাররাও নিজেদের সেরাটা দিতে পারেনি। তাই এই ব্যর্থতার দায়ভার তাদেরকেও কিছুটা বহন করতে হবে। তাই কোচের মতই কয়েকজন সিনিয়র ও জুনিয়র ফুটবলারদের সাথেই আলোচনা করতে চেয়েছিলেন কাজী সালাউদ্দিন। এ বিষয়ে তিনি বলেন,

“আমি চেয়েছিলাম কোচের সঙ্গে বসে যেভাবে আলোচনা করলাম সেভাবে খেলোয়াড়দের সঙ্গে বসেই বিস্তারিত আলোচনা করবো। কিন্তু ফেডারেশনে আসার পথে শুনলাম লকডাউন হতে পারে। যদি লকডাউন না থাকে তাহলে দলের সিনিয়র ও জুনিয়র ৭-৮ জনকে নিয়ে বসে আজকের মতোই আলেচনা করবো। কারণ, এখন আমাদের একটা জায়গায় পৌঁছাতেই হবে। আমাদের সামর্থ্য যা আছে তার চেয়ে বেশি দিয়ে চেষ্টা করছি। এখন আমাদের সবাইকে মিলে কাজ করে সাফল্য আনতে হবে।”