আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগে জয়ে ফিরলো বাংলাদেশ

প্রকাশ: রবিবার, ২৩ মে, ২০২১ | ২১:০৭:৪৮

ডেস্ক রিপোর্ট

আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগে জয়ে ফিরলো বাংলাদেশ ছবিঃ ডেইলিস্পোর্টসবিডি

মিরপুরে ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কাকে ৩৩ রানে হারিয়ে ১০ ম্যাচ পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয়ের দেখা পেলো বাংলাদেশ, এই জয়ে ৩ ম্যাচ পর ওয়ানডে সুপার লিগে পয়েন্ট তুলে নিলো টাইগাররা। একপেশে হয়ে যাওয়া ম্যাচে হাসারাঙ্গার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে উত্তেজনা ছড়ালেও দারুন ফিনিশিংয়ে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমানরা।

বাংলাদেশের দেওয়া ২৫৮ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৩০ রান তোলেন দুই ওপেনার কুশাল পেরেরা ও দানুস্কা গুনাথিলাকা। ১৯ বলে ৫ চারে ২১ রান করা গুনাথিলাকাকে ফিরতি ক্যাচে ফেরান মেহেদি হাসান মিরাজ, ৮ রান করা পাথুম নিসাঙ্কাকে মুস্তাফিজুর রহমান ফেরালে ৪১ রানে ২ উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা।

দ্বিতীয় উইকেটে কুশাল মেন্ডিসকে নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে ভালোই এগিয়ে নিচ্ছিলেন অধিনায়ক কুশাল পেরেরা, দারুণ ব্যাট করতে থাকা এই দুই ব্যাটারকে ফেরাতে সাকিব আল হাসানকে আক্রমণে নিয়ে আসেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। অধিনায়কের আস্থার জবাব দিতে মোটেও সময় নেননি সাকিব, ভাঙেন ৪১ রানের জুটি।

৩৬ বলে ২ চারে ২৪ রান করা মেন্ডিসকে মিরাজের ক্যাচ বানিয়ে স্বীকৃত ক্রিকেটে ১ হাজার উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন সাকিব। জমে ওঠা জুটি ভেঙে যাওয়ার ৩০ রান করা পেরেরাকে মিরাজ আউট করলে এরপর আর দাঁড়াতেই পারেনি লঙ্কান ব্যাটিং লাইনআপ, ৮ রানের ব্যবধানে পেরেরার পর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও আসেন বান্দারাকে আউট করেন মিরাজ।

ছবিঃ ডেইলি স্পোর্টসবিডি

১০২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে অনেকটাই ছিটকে যায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল, সেখান থেকে পাল্টা আক্রমণে টাইগার বোলারদের কপালে চিন্তার ভাজ ফেলে দেন ওয়েনিন্দু হাসারাঙ্গা। ৭ম উইকেটে দাসুন শানাকাকে নিয়ে ৪০ বলে ৪৭ রান যোগ করেন হাসারাঙ্গা, ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে ওঠা জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন; ১৪ রান করে বোল্ড হন শানাকা।

সঙ্গী ফিরলেও ইসুরু উদানাকে নিয়ে শ্রীলঙ্কার জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখেন হাসারাঙ্গা, তুলে নেন ফিফটি। ৬০ বলে ৩ চার ও ৫ ছক্কায় ৭৪ রান করা হাসারাঙ্গাকে ফিরিয়ে টাইগার শিবিরে স্বস্তি ফেরান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, পরের বলে ২৩ বলে ২ চারে ২১ রান করা ইসুরু উদানাকে আউট করে লঙ্কানদের ম্যাচ থেকে পুরোপুরি ছিটকে দেন মুস্তাফিজুর রহমান।

১২ বলে ৫ রান করা দুশমন্ত চামিরাকে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের ক্যাচ বানিয়ে মুস্তাফিজুর রহমান আউট করলে ২২৪ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল, বাংলাদেশ জয় পায় ৩৩ রানের ব্যবধানে। বাংলাদেশের হয়ে ৩০ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছেন মেহেদি হাসান মিরাজ, মুস্তাফিজুর রহমান ৩৪ রান দিয়ে ৩, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ৪৯ রান দিয়ে ২ ও সাকিব আল হাসান ৪৪ রান খরচায় পেয়েছেন ১ উইকেট।

এর আগে টসে জয়ী বাংলাদেশ দল ব্যাটিংয়ে নামে, ইনিংসের শুরুতেই ০ রানে আউট হন লিটন দাস। এরপর তিনে নামেন সাকিব৷ তামিম সাকিব মাত্র যখন উইকেটে থিতু হয়েছেন তখনই ডাউন দ্য উইকেটে শট খেলে ক্যাচ তুলে আউট হন সাকিব আল হাসান। ব্যক্তিগত ৫২ রানে সিলভার বলে এলবিডব্লুর আউট হন তামিম ইকবাল।

মিথুন এসেই প্রথম বলে অহেতুক প্যাডল সুইপ খেলেন, শূন্য রানে ফিরেছেন প্যাভিলিয়নে৷ এরপর ক্রাইসিস ম্যান খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আসেন উইকেটে। মুশফিকের সাথে করেন ১০৯ রানের দারুণ জুটি। ৮৭ বলে ৮৪ করে রিভার্স সুইপে কাটা পড়েন মুশফিকুর রহিম। ৪৪ ওভার শেষে ২১০ রান করে বাংলাদেশ।

সিনিয়রদের পিঠে চড়ে ২৫৭ রানের জোগাড় বাংলাদেশের

৫ উইকেট হারানোর পর ব্যাটিংয়ে আসেন আফিফ হোসেন ধ্রুব৷ ৪৬তম ওভারে মাত্র ৫ রান নেন রিয়াদ আর আফিফ৷ ৪৬ ওভার শেষে ২২০ রান করে বাংলাদেশ। ৪৭তম ওভারে ইসুরু উদানার বলে ক্যাচ তুলেও বেঁচে যান আফিফ। এই ওভারে ১০ রান নিতে পারে টাইগাররা৷

৪৮ তম ওভারের প্রথম বলেই আউট হয়ে যান রিয়াদ। ৭৬ বলে ৫৪ করেন তিনি। ৪৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান দাড়ায় ২৩৩/৬। ৪৯ ওভার শেষে সেটি পৌছে ২৪৭ এ। শেষ ওভারে আর ১০ রান করলে ২৫৭ রান করে বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশ ২৫৭/৬, ৫০ ওভার; (মুশফিকুর রহিম ৮৪, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৫৪, তামিম ইকবাল ৫২, আফিফ হোসেন ২৭*, সাকিব আল হাসান ১৫, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৩/৪৫, দানুস্কা গুনাথিলাকা ১/৫, দুশমন্ত চামিরা ১/৩৯)।

শ্রীলঙ্কা ২২৪/১০, ৪৮.১ ওভার; (ওয়েনিন্দু হাসারাঙ্গা ৭৪, কুশাল পেরেরা ৩০, কুশাল মেন্ডিস ২৪, দানুস্কা গুনাথিলাকা ২১, ইসুরু উদানা ২১, মেহেদি হাসান মিরাজ ৪/৩০, মুস্তাফিজুর রহমান ৩/৩৪, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ২/৪৯, সাকিব আল হাসান ১/৪৪)।

ম্যাচ সেরাঃ মুশফিকুর রহিম।