বাংলাদেশকে হারিয়ে ৭০৮ দিন পর বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে জিতলো শ্রীলঙ্কা

প্রকাশ: শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১ | ২২:১৩:৫০

ডেস্ক রিপোর্ট

বাংলাদেশকে হারিয়ে ৭০৮ দিন পর বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে জিতলো শ্রীলঙ্কা ছবিঃ বিসিবি

বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে জয়ের স্বাদ অনেকটা ভুলতেই বসেছিল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল, লঙ্কানদের সেই ভুলতে বসা স্বাদটাকে ফিরিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। মিরপুরে তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে ৯৭ রানে হারিয়ে ৭০৮ দিন পর বিদেশের মাটিতে ৫০ ওভারের ক্রিকেটে জয় পেয়েছে শ্রীলঙ্কা।

সর্বশেষ তারা বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে জিতেছিল ২০১৯ সালের ২১ জুন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে, যদিও এর চেয়েও বেশি দীর্ঘ সময় বিদেশের মাটিতে জয় বঞ্চিত ছিল লঙ্কানরা। ১৯৯২ থেকে ১৯৯৪ পর্যন্ত ৭৬৬ দিন, ১৯৮৮ থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত ৭৬৭ দিন ও ১৯৮২ থেকে ১৯৮৫ পর্যন্ত ১০২৮ দিন বিদেশের মাটিতে ওয়ানডেতে জয় পায়নি শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় এই জয়ে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর পাশাপাশি ওয়ানডে সুপার লিগে পয়েন্টের খাতাও খুলেছে ষষ্ঠ ম্যাচে এসে প্রথম জয় পাওয়া শ্রীলঙ্কা, স্লো ওভার রেটের ঝামেলা থাকায় তাদের বর্তমান পয়েন্ট ৮। ৩ সিরিজ শেষে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি শীর্ষেই আছে বাংলাদেশ দল, তবে সুযোগ ছিল আরও ১০ পয়েন্ট তুলে নিয়ে জায়গাটাকে সুসংহত করার।

প্রথম দুই ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে নুন্যতম লড়াই টুকুও করতে পারেনি শ্রীলঙ্কা, তবে শেষ ম্যাচে এসে সম্পূর্ণ উল্টো চিত্র। এবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারলো না টাইগাররা, লঙ্কানদের দেওয়া ২৮৭ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে পুরনো রোগেই চুরমার হয়ে যায় জয়ের স্বপ্ন।

লিটনের জায়গায় সুযোগ পেলেও নিজেকে মেলে ধরতে ব্যর্থ নাঈম শেখ

লিটন দাসের জায়গায় সুযোগ পাওয়া আলোচিত নাঈম শেখ ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ফিরে যান, স্লিপে ক্যাচ দেওয়ার আগে ২ বল খেলে ১ রান করেন তিনি। পুরো সিরিজেই নিজের ছায়া হয়ে থাকা সাকিব আল হাসান আরও একবার ব্যাট হাতে ব্যর্থ, আগের দুই ম্যাচে ১৫ ও ৭ রান করা সাকিব এদিন ৪ রানে আউট হন। ৩.২ ওভারে ৯ রানে ২ উইকেট হারিয়ে দিকভ্রান্ত বাংলাদেশ দল।

বাংলাদেশকে বিপদ মুক্ত করতে পারেননি অধিনায়ক তামিম ইকবালও, আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে খুশি হতে না পারা টাইগার এই অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ১৭ রান। ২৮ রানে টপ অর্ডারের ৩ ব্যাটারকে হারিয়ে পরাজয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের, ৫০ রান তুলতেই টাইগারদের খেলতে হয়েছে প্রায় ১৬ ওভার।

এদিন আর ব্যাট হাতে নায়ক হতে পারেননি মুশফিকুর রহিম, বাংলাদেশও বিপর্যয় কাটিয়ে তুলে নিতে পারেনি জয়। আগের দুই ম্যাচেই সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার জেতা মুশফিকের ব্যাট থেকে আসে ২৮ রানের ইনিংস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ফিফটি তুলে নিলেও সেগুলো শুধুই পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়েছে মাত্র।

এদিন বাংলাদেশকে পরাজয় থেকে বাঁচাতে পারেননি মুশফিকুর রহিমও

শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ ৪২.৩ ওভারে ১৮৯ রানে অল আউট হয়ে গেলে ৯৭ রানের বিশাল ব্যবধানে জয় পায় শ্রীলঙ্কা, মোসাদ্দেক ৫১ ও মাহমুদউল্লাহ ৫৩ রান করেন। লঙ্কানদের হয়ে ৯ ওভারে ১ মেইডেনে মাত্র ১৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন দুশমন্ত চামিরা, বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডেতে যা শ্রীলঙ্কার কোন বোলারের দ্বিতীয় সেরা বোলিং ফিগার।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক কুশাল পেরেরা, ৩ অভিষিক্তসহ ৪ পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে তারা। ব্যাটিংয়ে নেমে দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার দানুস্কা গুনাথিলাকা ও কুশাল পেরেরা, ৮২ রানের জুটি ভাঙেন পেসার তাসকিন আহমেদ। ৩৩ বলে ৩৯ রানে থামে গুনাথিলাকার ইনিংস, একই ওভারে ০ রানে ফিরেন পাথুম নিসাঙ্কাও।

তৃতীয় উইকেটে কুশাল মেন্ডিসকে নিয়ে আরও ৬৯ রান যোগ করেন পেরেরা, এবারও জুটি ভাঙার দায়িত্ব নেন তাসকিন। সাকিবের বলে পর পর ২ বার জীবন পান পেরেরা, ৯৯ রানে আবারও ভাগ্যের ছোঁয়া পান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সহজ ক্যাচ ছাড়লে। বিপদজনক হয়ে ওঠা কুশাল পেরেরাকে ১২০ রানে থামান শরিফুল ইসলাম, ভাঙে পেরেরা-ডি সিলভার ৬৫ রানের জুটি।

শেষ দিকে পরিস্থিতির দাবি মেটানো ব্যাটিং করতে না পারলেও নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৮৬ রান তোলে শ্রীলঙ্কা, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন। বাংলাদেশের হয়ে ৪৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন তাসকিন আহমেদ, ১ উইকেট পেয়েছেন শরিফুল ইসলাম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

শ্রীলঙ্কা ২৮৬/৬, ৫০ ওভার; (কুশাল পেরেরা ১২০, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৫৫*, দানুস্কা গুনাথিলাকা ৩৯, কুশাল মেন্ডিস ২২, তাসকিন আহমেদ ৪/৪৬, শরিফুল ইসলাম ১/৫৬)।

বাংলাদেশ ১৮৯, ৪২.৩ ওভার; (মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৫৩, মোসাদ্দেক হোসেন ৫১, মুশফিকুর রহিম ২৮, তামিম ইকবাল ১৭, আফিফ হোসেন ১৬, দুশমন্ত চামিরা ৫/১৬, রমেশ মেন্ডিস ২/৪০, ওয়েনিন্দু হাসারাঙ্গা ২/৪৭)।

ফলাফলঃ শ্রীলঙ্কা ৯৭ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরাঃ
দুশমন্ত চামিরা।

সিরিজ সেরাঃ মুশফিকুর রহিম।