‘লিওনেল মেসির এই প্রত্যাবর্তনের গল্প আপনাকে বলতে হবেই’

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১ | ২১:২০:১৭

ডেস্ক রিপোর্ট

'লিওনেল মেসির এই প্রত্যাবর্তনের গল্প আপনাকে বলতে হবেই' ছবিঃ ফেসবুক

প্রত্যাবর্তন শব্দটির অর্থ কি? সহজ ভাষায় এর অর্থ হচ্ছে ‘ফিরে আসা’। কিন্তু অর্থটা যত সহজই হোক না কেন, যে বিষয়টাতে এটা ব্যবহার করা হয়, সেখানে গভীরভাবে চিন্তা করলে আরো ভিন্ন কিছু খুঁজে পাওয়া যায়। সাধারণত কোনো কিছুর সম্ভাবনা যখন প্রায় শেষ হয়ে যায়, সেখান থেকে ফিরে আসাকেই প্রত্যাবর্তন বলা হয়ে থাকে। 

ফুটবলে ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের ক্ষেত্রে ‘প্রত্যাবর্তন’ এই শব্দটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয় সম্ভবত ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে নিয়ে। একসময় ফিফা ব্যালন ডি’অর পুরস্কার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে ৪-১ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকেও পর্তুগিজ মহাতারকা তা ৫-৫ ব্যবধানে এনেছিলেন। যদিও লিএনেল মেসি বর্তমানে আরেকবার ব্যালন ডি’অর জিতে এগিয়ে আছেন। তবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর এমন প্রত্যাবর্তন ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যক্তিগত নৈপুণ্য হিসেবে ধরা হয়।

ছবিঃ ইন্টারনেট

সেক্ষেত্রে লিওনেল মেসির ফ্রিকিকে ফিরে আসার গল্পটা বড্ড আন্ডারেটেড বলা যায়। এক সময়ের আনকোরা ফ্রিকিক টেকার থেকে ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলারের ইতিহাসের অন্যতম সেরা ফ্রিকিক টেকার হওয়া কিংবা এক সময়ের যোজন যোজনে পিছিয়ে থেকে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীকে এখন ফ্রিকিকেও ছাড়িয়ে যাওয়া লিওনেল মেসির এমন প্রত্যাবর্তবের গল্প ইতিহাস থেকে ফেলার নয়৷

লিওনেল মেসি নাকি আর্জেন্টিনার জার্সিতে পেনাল্টি ছাড়া গোল করতে পারে না। পরিসংখ্যানও বলছে যে, প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে আকাশী-নীল জার্সি গায়ে ছন্দহীন বার্সা তারকা। সবশেষ দু বছর আগে পেনাল্টি ছাড়া আলবিসেলেস্তেদের হয়ে গোল করেছিলেন। ম্যাচ হিসেবে তা ১৪! যা মোটেও মেসিসুলভ না।

ছবিঃ টুইটার

অবশেষে দীর্ঘদিনের অপেক্ষার অবসান ঘটলো। পেনাল্টি ছাড়াও মেসি গোল করলেন। অনেক দিনের অপেক্ষার অবসান ঘটালেন সবচেয়ে সুন্দরভাবে, অনিন্দ্য সুন্দর এক ফ্রিকিক গোল করে!

“হয়তো দুজন গোলরক্ষক থাকলেও লিও মেসির এই ফ্রি কিকটা আটকানো যেত না। তিনি আবারও দেখাচ্ছেন, তিনি কী জিনিস। আর্জেন্টিনার সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে পরিচয় করিয়ে দিই আপনাদের সঙ্গে, তিনি আর কেউ নন, লিওনেল মেসি। তিনি কিছু জিনিস কখনোই বদলায় না”

ফ্রি কিক গোলের পর ধারাভাষ্যকারের এমন উল্লাসই প্রকাশ করে, গোলটি আসলে কতটা দৃষ্টিনন্দন ছিল! আর এই ফ্রিকিক গোলের মাধ্যমে আরও একবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীকে ছাড়িয়ে গেলেন। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে (৫৬) পেছনে ফেলে বর্তমানে সক্রিয় ফুটবলারদের বেশি ফ্রিকিক গোলের মালিক এখন ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার।

ছবিঃ ফেসবুক

মেসি ফ্রিকিকে প্রথম গোল পায় ২০০৯ সালে। ২০১১ সালে যখন রোনালদোর ফ্রিকিক গোলের সংখ্যা ছিল ৩০, তখন মেসির ছিল মাত্র ৪ গোল! মাত্র তিন বছর আগেও মেসির ফ্রিকি গোলসংখ্যা ছিল মাত্র ৩২টি। রোনালদোর তা হাফসেঞ্চুরি!

ছবিঃ ইন্টারনেট

তিন বছরে আর্জেন্টাইন জাদুকর ২৫ এর দূরত্ব ঘুচিয়েছেন। আর তাতেই ডুকে গেলেন ইতিহাসের সর্বকালের সেরা দশজন পেনাল্টি গোলদাতার ছোট্ট তালিকায়। এক সময়ের আনকোরা পেনাল্টি টেকার থেকে ইতিহাসের অন্যতম সেরা পেনাল্টি টেকার, লিওনেল মেসির এই প্রত্যাবর্তনের গল্প অবশ্যই আপনাকে বলতে হবে।