অস্বস্তি নিয়েও বারিধারার জালে এক হালি গোল মোহামেডানের

প্রকাশ: শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১ | ১৯:৩৪:০৫

ডেস্ক রিপোর্ট

চিরপ্রতিদ্বন্ধী আবাহনী লিমিটেডের সাথে ড্র করে খানিকটা ফুরফুরে মেজাজেই ছিল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। তবে নিজেদের শেষ ম্যাচে বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে লড়াই করে শেষ মুহুর্তের গোলে হারের স্বাদ পেয়েছিল মোহামেডান। যা কিছুটা ব্যাক ফুটে ঠেলে দিয়েছিল সাদা-কালোদের। তার উপর এ ম্যাচের আগে করোনা আক্রান্ত হওয়ায় দলের সাথে ছিলেন না নিয়মিত মুখ হাবিবুর রহমান সোহাগ ও হাল্কা ইঞ্জুরির কারণে ছিলেন না অধিনায়ক উরু নাগাতা।

আজ বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে উত্তর বারিধারাকে ৪-১ গোলে হারালো শন লেনের শিষ্যরা। সাদা-কালোদের হয়ে গোল করেছেন আমির হাকিম বাপ্পি, সোলেমান দিয়াবাতে, ইয়াসান ও অনিক হোসেন।

নিজেদের শেষ দুই ম্যাচেই জয়ের দেখা পাওয়া উত্তর বারিধারা এ ম্যাচে সাদা-কালোদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি। ম্যাচের প্রথমার্ধেই তিন গোলের লিড পায় মোহামেডান। তবে শুরুর ৪৫ মিনিটে গোল মিসের মহরায় নেমেছিল সুমন রেজারা। একের পর এক সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি বারিধারার ফরোয়ার্ডরা।

যার শুরুটা হয়েছিল ম্যাচের ৯ মিনিটে, সহজ সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি সুমন রেজা। বাম পাশ থেকে জুবায়ের হোসেন জিকনের কাট ব্যাক থেকে পাওয়া বল ফাকা জায়গা দাঁড়িয়ে পা বাড়িয়েও শট নিতে পারেনি বারিধারার সুমন রেজা। সুমন রেজা মিস করেও বারিধারাকে রক্ষা করেন মিতুল মারমা। ১৫ মিনিটে সোলেমান দিয়াবাতের বুদ্ধিদিপ্ত পাসে ডি-বক্সের মধ্যে থেকে ডান পায়ের শট নেন সাহেদ মিয়া কিন্তু মিতুল মারমা নিজের শরীরকে ছেড়ে দিয়ে হাওয়ায় ভেসে লাফিয়ে রক্ষা করেন।

১৯ মিনিটে আর নিজেদের রক্ষণ ভাগ সামলে রাখতে পারেনি বারিধারা। আমির হাকিম বাপ্পির দুর্দান্ত এক গোলে ম্যাচে এগিয়ে যায় মোহামেডান। ডান পাশ থেকে সোলেমান দিয়াবেতের মাটি ঘেষা ক্রস বারিধারা ডিফেন্ডার ফজিলভ হালকা টাচে ক্লিয়ার করলেও তা ডি-বক্সের সাম্নায় বাইরে পান বাপ্পি, সেখান থেকে দুজন মোহামেডান খেলোয়াড়কে বোকা বানিয়ে শরীর ঘুরিয়ে বাম পায়ের জোরালো শটে বল জালে জড়ান।

মোহামডান এগিয়ে গেলেও স্বস্তি দেয়নি বারাধিরা। মিনিট চারেক পরেই ম্যাচে সমতায় ফেরে বারিধারা। ম্যাচের ৯ মিনিটের নিজের ভুলের শাপ মোচন করেন সুমন রেজা। মোস্তফা কারাবার থ্রু থেকে পাওয়া বল মোহামেডানের ডি-বক্সের মধ্যে লাফিয়ে উঠে নিজের আয়েত্বে দেন সুমন, সেখানে থাকা সাদা-কালোদের চার ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে বাম পায়ের শটে বল জালে জড়ান সুমন রেজা। এ নিয়ে এবারের লিগে নিজের সপ্তম গোলের দেখা পেলেন জাতীয় দলের এই স্ট্রাইকার।

৩৪ মিনিটে আরো একবার বারিধারার ত্রাতা হয়ে আসেন মিতুল মারমা। সোলেমান দিয়াবাতের হাওয়ায় ভাসানো ক্রস মাথা ছোয়ান ইয়াসান কিন্তু দুর্দান্ত ভাবে তা ফিরিয়ে দেন মিতুল মারমা। তবে ৩৬ মিনিটে মোহামেডানকে আর আটকাতে পারেনি মিতুল মারমা। রাকিব খান ইভানের কর্নার থেকে লাফিয়ে উঠে জোরালো হেডে বল জালে জড়ান অধিনায়ক সোলেমান দিয়াবেতে। এতে ২-১ গোলে এগিয়ে যায় মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব।

দুই গোল করেও যেন স্বস্তি পাচ্ছিল না মোহামেডান, এগিয়ে যাওয়ার তাড়না নিয়েই প্রথমার্ধেই তিন গোলের লিড পায় সাদা-কালোরা, ডি-বক্সের বাইরে থেকে ডান পায়ের ভলিতে বল জালে জড়ান অনিক হোসেন। রাকিব খান ইভানের কর্নার থেকে আসা বল ক্লিয়ার করতে পারেনি সাদা-কালো ডিফেন্ডাররা, এরপরেই বল পান অনিক।

 

৫৯ মিনিটে সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে উত্তর বারিধারা। মোস্তফা কারাবার দ্রুত নেওয়া ফ্রিকিক থেকে আসা বল ফাকা জায়গায় থেকেও টাচ করতে পারেনি কোচনেভ,ততক্ষণে জায়গা ছেড়ে বের হয়ে এসে ক্লিয়ার করেন হাবিব বিপু। তার ফেরানো বল থেকে শট নিলেও জালের দেখা পাননি সুমন রেজা। ৭৪ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিল বারিধারা কিন্তু ক্রস বারের অনেক উপর দিয়ে মেরে সেই সুযোগ হাত ছাড়া করেন উজবেকিস্তানের সাইদোস্তন ফজিলভ।

উত্তর বারিধারা ভুল করলেও ভুল করেনি মোহামেডান, ৮১মিনিটে ক্যামেরুনের ইয়াসান দারুণ এক গোল করে চতুর্থ গোল এনে দেন সাদা-কালোদের। এই গোলে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় উত্তর বারিধারা। তবে ম্যাচের শেষের কয়েক মিনিট মোহামেডানের উপর চড়াও হয়ে উঠে বারিধারা। বেশ কয়েকটি আক্রমণ করলেও গোলের দেখা পায়নি।

প্রথম লেগে দুই দলের লড়াই শেষ হয়েছিল ১-১ গোলের সমতায়। এই জয়ে ১৮ ম্যাচে ৩২ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার চার নাম্বার স্থান আরো পক্ত করল মোহামেডান। অন্যদিকে ১৭ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে নয় নাম্বারে উত্তর বারিধারা।