বিজ্ঞাপন

অফিসিয়াল গ্রুপে যোগ দিন

বাংলাদেশের স্পোর্টসভিত্তিক শীর্ষ অনলাইন ম্যাগাজিন

টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি

যে কারণে ‘ম্যানকাডিং’ আউট করা বন্ধ করেছেন অশ্বিন

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৬ জুলাই, ২০২১ | ১৯:৫৭:৫৮

ডেইলি স্পোর্টসবিডি ডেস্ক

যে কারণে ‘ম্যানকাডিং’ আউট করা বন্ধ করেছেন অশ্বিন
ছবিঃ ইন্টারনেট
যে কারণে ‘ম্যানকাডিং’ আউট করা বন্ধ করেছেন অশ্বিন ছবিঃ ইন্টারনেট

ম্যানকাডিং আউটের প্রবর্তক ভানু মানকড় হলেও এইতো বছর খানেক আগে এই আউটের সাথে নাম জড়িয়ে পড়ে ভারতের কিংবদন্তি স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনের। ২০১৯ সালের ২৫শে মার্চ আইপিএলে ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে কিং ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে রাজস্থানের ব্যাটসম্যান জস বাটলারকে ক্রিকেটের স্প্রিট বিরোধি ম্যানকাডিং আউট করেন অশ্বিন। যা নিয়ে পরবর্তীতে কম জল ঘোলা হয়নি।

ব্যাপারটি ক্রিকেটের আদর্শের পরিপন্থী হলেও ম্যানকাডিং আউটের করার বিষয়ে নিজের সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন অশ্বিন। জানিয়েছিলেন, ভবিষ্যতে ম্যানকাডিংয়ের সুযোগ আসলে তিনি পুনরায় ব্যাটসম্যানকে এই আউট করতে দ্বিতীয়বার ভাববেন না।

এ পর্যন্ত ঠিকই ছিল। বিপত্তি বাধে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ছেড়ে অশ্বিন দিল্লী ক্যাপিটালসে পাড়ি জমানোর পর। দিল্লি কোচ রিকি পন্টিং তাকে তাঁকে সতর্ক করে জানিয়েছিলেন, তার দলে এসব চলবে না।

পন্টিং বলেছিলেন,

“অশ্বিনের সঙ্গে এই বিষয়ে (মানকাডিং) কথা বলব। এই কাজটাই আমি প্রথম করবো। সন্দেহ নেই কঠোর আলোচনা হবে। হয়ত ও এখনও ভাবতে পারে যে, নিয়ম মেনেই ও এটা করেছিল এবং ওর এটা করার অধিকার আছে। তবে এটা ক্রিকেটের স্পিরিটকে ক্ষুন্ন করে। অন্তত দিল্লি ক্যাপিটালসে আমি এমনটা চাই না কখনই।”

এর পর থেকে আর কখনও অশ্বিনকে এই আউটের আশ্রয় নিতে দেখা যায়নি৷ এভাবে আর আউট না করার আসল কারণ সামনে এসেছে এবার। পন্টিং এবং দিল্লি ক্যাপিটলসের অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার। দুজনে মিলেই মানকাডিং নিয়ে নিজেদের দলের অবস্থান সম্পর্কে অশ্বিনকে জানিয়েছিল। তাদের দল এই ধরনের আউটকে সমর্থন করে না। যার ফলেই এই এর পরে আর এধরনের আউট করতে দেখা যায়নি অশ্বিনকে।

বিষয়টি নিয়ে সাম্প্রতি আইয়ার বলেন,

“এই সিদ্ধান্ত নেওয়াটা সত্যিই কঠিন ছিল। রিকি (পন্টিং) এবং আমি সত্যিই এটা বলার জন্য একটু কঠোর ছিলাম, যে আমরা এটা করতে চাই না। আমরা যা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম সেই সিদ্ধান্তই নিয়েছিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তিনি এর পক্ষে ছিলেন, এবং জানিয়েছিলেন, ‘ঠিক আছে, আপনারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমি তার সঙ্গেই থাকব এবং ব্যাটসম্যান অদ্ভুত কিছু না করা পর্যন্ত আমি তার সঙ্গে সঠিক ভাবেই থাকব।” মূলত এরপর থেকে আর অশ্বিনকে মানকাডিং করতে দেখা যায়নি।

বোলার বল ডেলিভারির আগে ব্যাটসম্যান পপিং ক্রিজ অতিক্রম করে গেলে বোলার বোলিং করা থামিয়ে স্ট্রাইক প্রান্তের স্ট্যাম্প ভেঙে ব্যাটসম্যান যে আউট হয় ক্রিকেটের পরিভাষায় সেটি ম্যানকাডিং আউট হিসেবে পরিচিত।

আরও খেলার খবরঃ   আইপিএলের বাকি অংশে খেলবেন না মরগান-বাটলাররা!

ভারতীয় বোলার ভানু মানকড় ১৯৪৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিডনিতে বিল ব্রাউনকে প্রথম এভাবে রান আউট করেন। তার পর থেকেই মানকড়ের নামেই ‘ম্যানকাডিং’ নামকরণ করা হয়। আউটটি ক্রিকেটের ব্যাকরণগতভাবে বৈধ হলেও অনেকে বলে থাকেন, এটি ঠিক ক্রিকেটের স্পিরিটের সাথে যায় না। এই ধরনের আউট ভদ্র লোকের খেলা ক্রিকেটকে কুলুষিত করে।

সাম্প্রতিক খবর

বাংলাদেশ ফুটবল / একাডেমী কাপের শিরোপা জিতল ভৈরব ফুটবল একাডেমী
ব্যাডমিন্টন / বঙ্গবন্ধু ব্যাডমিন্টনে লড়াই করে হারলেন সালমান-উর্মি
টুকিটাকি / ওমিক্রন আতঙ্কে দেশে ফিরে গেলেন জাতীয় দলের নেপালি কোচ
টেনিস / বঙ্গবন্ধু কাপ টিটিতে বিকেএসপি সেরা
বাংলাদেশ ফুটবল / পুলিশকে হারিয়ে কাজ সেরে রাখতে চায় বসুন্ধরা কিংস
বাংলাদেশ ফুটবল / দুই ইউরোপিয়ান ফুটবলারের ম্যাজিকে নবাগত স্বাধীনতার প্রথম জয়
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / গায়ে জোর থাকলে মন্থর উইকেটেও ভালো করা যায়: শাহিন আফ্রিদি
টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি