বিজ্ঞাপন

অফিসিয়াল গ্রুপে যোগ দিন

বাংলাদেশের স্পোর্টসভিত্তিক শীর্ষ অনলাইন ম্যাগাজিন

টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি

৭ গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে আরামবাগকে হারালো সাইফ

প্রকাশ: সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১ | ১৮:৫৩:৩২

ডেইলি স্পোর্টসবিডি ডেস্ক

৭ গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে আরামবাগকে হারাল সাইফ
ছবিঃ ফেসবুক
৭ গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে আরামবাগকে হারাল সাইফ ছবিঃ ফেসবুক

আজ সোমবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে রোমাঞ্চকর এক ম্যাচ উপহার দিল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিংয়ের এগিয়ে যাওয়া মানেই সমতায় ফেরা আরামবাগের। এভাবেই চলতে থাকা ম্যাচ শেষ পর্যন্ত ৪-৩ গোলে জিতে নেয় সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব।

প্রথমার্ধে সাইফ কিছুটা ধীরগতির ফুটবল খেললেও আরামবাগ নিজেদের সব টুকু উজাড় করে খেলতে থাকে। যার ফলে ম্যাচের ২১ মিনিটের দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিল কিন্তু গোল করতে ব্যর্থ হন ইসলাম জন। আরামবাগের ডিফেন্স লাইন থেকে বাড়ানো লম্বা থ্রু পাস থেকে পাওয়া বল বাম পায়ের শট নেন দিলশোভ কিন্ত তা সাইড বারে লেগে ফিরে আসে। গোলকিপারকে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হওয়াটা দিলশোভকে হয়তো বেশ পোড়াবে।

আরামবাগ ভুল করলেও ভুল করেনি সাইফ। ২৯ মিনিটে ম্যাচে প্রথম বারের মত এগিয়ে যায় সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। জামাল ভুইয়ার সেট পিচ থেকে দারুণ ভাবে মাথা ছুইয়ে বল জালে জড়ান ইমানুয়েল ইকেচুকু। ইঞ্জুরি থেকে ফিরেই গোলের দেখা পেলেন এই নাইজেরিয়ান।

ম্যাচে এগিয়ে গেলেও নিজেদের ভুলেই আরামবাগ কে পেনাল্টি উপহার দেয় সাইফের ডিফেন্ডার সবুজ। ৩৭ মিনিটে স্পট কিক থেকে গোল করে আরামবাগকে সমতায় ফেরান ইসমাল জন।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই কিছুটা আক্রমণাত্বক ভাবে খেলতে থাকে জামাল ভুঁইয়ারা। বেশ কয়েকবা আক্রমণে গিয়েও কাঙ্খিত গোলের দেখা পাচ্ছিল না। ফাকা জায়গা দাঁড়িয়ে থাকা ইয়াসিন আরাফাত দারুণ সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। ৫০ মিনিটে সিরাজুদ্দিনের কর্ণার থেকে আসা বল আরামবাগের ডিফেন্ডাররা ক্লিয়ার করলেও ফিরতি বল হেড করে আরাফাতের দিকে বাড়িয়ে দেন সবুজ কিন্তু আরাফাত হেড করলেও তা ক্রস বারের উপর দিয়ে চলে যায়।

৭৩ মিনিটে সাইফকে লিড এনে দেন মারাজ। ইয়াসির আরাফাতের ক্রস থেকে আসা বল আরামবাগের ডিফেন্ডার বাবু ক্লিয়ার করতে না পারায় সাইড ভলি করে বল জালে জড়ান মারাজ হোসেন।

আরও খেলার খবরঃ   শেষের দুই গোলে ম্যাচ জমিয়েও সাইফের কাছে হারল মুক্তিযোদ্ধা

ম্যাচে এগিয়ে যেতে না যেতেই সাইফ কে তিন গোলের লিড এনে দেন ফয়সাল আহমেদ ফাহিম।

৭৬ মিনিটে মারাজ-ফাহিমের জুটির ম্যাজিক দেখা যায় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে। ইমায়েনুয়েল ইকেচুকুর লম্বা করে বাড়ানো বল আরামবাগের দুই ডিফেন্ডারকে পিছনে ফেলে ফাহিমের দিকে বল বাড়িয়ে দেন মারাজ, বল বেয়ে হালকা করে মাথা ছুইয়ে বল জালে পাঠিয়ে দেন ফয়সাল আহমেদ ফাহিম।

তিন মিনিটের মধ্যে সাইফের দুই গোলের পরেই ৭৯ মিনিটে এক গোল শোধ করে খেলা জমিয়ে তুলে আরামবাগ। ইসলাম জনকে আটকাতে গিয়ে ফাউল করে বসে কিপার শান্ত, ফলে পেনাল্টির বাশি বাজান রেফারি। স্পট কিক থেকে গোল করতে ভুল করেননি ইসলাম জন।

৮৪ মিনিটে সাইফকে অবাক করে ম্যাচে সমতায় ফিরে আরামবাগ। রবিনের বাড়ানো পাস থেকে আরাফার তার পায়ের কারু কাজ দিয়ে সাইফের ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে ডি-বক্সের মধ্যে ঢুকে বল জালে জড়ান।

ম্যাচ যখন ৩-৩ গোলের সমতায় ঠিক তখনি সাইফের ত্রাতা হয়ে আসেন অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া। ৮৭ মিনিটে অধিনায়ক জামাল ভুইয়ার ফ্রিকিক থেকে দুর্দান্ত এক গোলে ম্যাচে ৪-৩ গোলে এগিয়ে যায় সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। দারুণ এই গোল করার পর উদযাপনে মেতেছিলেন জামাল ভুইয়া।

এর ঠিক পরের মিনিটেই ম্যাচে ফেরার দারুণ সুযোগ পেয়েছিল আরামবাগ, গোলকিপারকে একা পেয়েও বল জালে জড়াতে পারেননি ইসলাম জন।

দারুণ এই জয়ে ১৮ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নাম্বারে উঠে আসল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। অন্যদিকে ১৭ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার তলানীতেই থাকল আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ।

সাম্প্রতিক খবর

বাংলাদেশ ফুটবল / পুলিশকে হারিয়ে শেষ আটে বসুন্ধরা কিংস
বাংলাদেশ ক্রিকেট / সাকিবকে রেখে নিউজিল্যান্ড সফরের দল ঘোষণা
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / রাজসিক ক্লাবে এজাজ প্যাটেলকে কুম্বলের ‘ওয়েলকাম’
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / প্যাটেলের বিশ্বরেকর্ডের পর ৬২ রানের লজ্জায় ডুবলো নিউজিল্যান্ড
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / মুম্বাইয়ের ছেলে হয়ে ভারতের বিপক্ষে মুম্বাইয়েই ‘১০’ উইকেট নিলেন এজাজ
বাংলাদেশ ক্রিকেট / বাবর-আজহারের হাতে ঢাকা টেস্টের লাগাম
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / ১০ উইকেট নিয়ে লেকার-কুম্বলের বিশ্বরেকর্ড স্পর্শ প্যাটেলের
টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি