ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

'লাল তালিকাভুক্ত' দেশের খেলোয়াড়দের পেতে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীকে ফিফার চিঠি!!

নিউজ ডেস্ক

২৫ আগস্ট ২০২১, দুপুর ৪:১৭ সময়

[ _120235995_gettyimages-1302691756 ]
ছবিঃ ইন্টারনেট
আগামী মাসেই ফের মুখোমুখি হচ্ছে ফুটবলের প্রতিবেশী দুই পরাশক্তি দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের অষ্টম রাউন্ডে একে অপরের মুখোমুখি হবে ইতিহাসের অন্যতম সফল দুটি। আর গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচেই অ্যালিসন, এডারসন, থিয়াগো সিলভা, ফিরমিনো, গ্যাব্রিয়েল জেসুস, এমিলিয়ানো মার্টিনেজে, ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো ও জিওভানি লো সেলসো মত দলের তারকা ফুটবলারদের না পাওয়ার শঙ্কা জেগেছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলের। শুধু ব্রাজিল কিংবা আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রাই নয়, আন্তর্জাতিক ফুটবল বিরতিতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা যুক্তরাজ্যের লাল তালিকায় থাকা ২৬ দেশের অন্তত ৬০ ফুটবলারের কাউকেই দেশের হয়ে এবার খেলতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইংল্যান্ড। গতকাল (মঙ্গলবার) প্রিমিয়ার লিগের এক জরুরি সভায় সর্বসম্মতভাবে পাস হয় এই নিষেধাজ্ঞা। [caption id="attachment_43258" align="aligncenter" width="976"] ছবিঃ ইন্টারনেট[/caption] এমন অবস্থায়, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা এক ঝাক তারকা ফুটবলারদের ছাড়া বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ম্যাচে আমেজ কিছুটা হলেও যে কমাবে, তা বুঝতে পেরেছেন ফিফা প্রেসিডেন্টও। তাই আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচগুলোয় 'লাল তালিকাভুক্ত' দেশের খেলোয়াড়দে পেতে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে নিজেই আর্জি জানিয়েছেন জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। ফিফা প্রেসিডেন্ট জানান, “আমরা অতীতেও একসঙ্গে বৈশ্বিক সমস্যার মুখোমুখি হয়েছি এবং ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত রাখতে হবে।" “ইউরোর মতোই আমি একটি প্রস্তাব দিয়েছি, যেখানে ভিআইপিরা আইসোলেশনে না থেকেও চূড়ান্ত পর্যায়ে খেলার সুযোগ পেয়েছে। এটি অত্যন্ত জরুরি ও বেশ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।" “আমি প্রতিটি দেশের সমিতি, প্রতিটি লীগ এবং প্রতিটি ক্লাবের কাছ থেকে সংহতি প্রদর্শনে আহ্বান জানাচ্ছি, বিশ্বব্যাপী সবাই যেন নায্য সুবিধা পায়।" “কোয়ারান্টাইনের বিষয়ে লাল তালিকাভুক্ত দেশ থেকে ফিরে আসা খেলোয়াড়দের জন্য, আমি প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে চিঠি লিখেছি এবং বিশেষভাবে প্রয়োজনীয় সহায়তার জন্য আবেদন করেছি, যাতে খেলোয়াড়রা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে দেশের প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত না হয়।" [caption id="attachment_43259" align="aligncenter" width="700"] ছবিঃ টুইটার[/caption]

“ বিশ্বের অনেক সেরা সেরা খেলোয়াড় ইংল্যান্ড এবং স্পেনের লিগে খেলে। এবং আমরা বিশ্বাস করি, এই দেশগুলি বিশ্বব্যাপী প্রতিযোগিতার ক্রীড়া অখণ্ডতা সংরক্ষণ এবং সুরক্ষার দায়িত্বও ভাগ করে নেয়।"
প্রসঙ্গত, যুক্তরাজ্য সরকারের নিয়মের অধীনে বাহিরে থেকে খেলোয়াড়রা যুক্তরাজ্যে ফিরলে বাধ্যতামূলক ১০ দিনের হোম কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে। যার কারণে আন্তর্জাতিক বির‍তির পর প্রিমিয়ার লিগে খেলা দলগুলি নিজেদের কয়েকটি ম্যাচে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলারদের মিস করতে পারে। তাই, প্রিমিয়ার লিগে এক জরুরি সভায় যুক্তরাজ্যের লাল তালিকাভুক্ত দেশগুলোয় খেলোয়াড়দের না ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় সংস্থাটি। ইউরোপের আরেক দেশ স্পেনও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।