বিজ্ঞাপন

অফিসিয়াল গ্রুপে যোগ দিন

বাংলাদেশের স্পোর্টসভিত্তিক শীর্ষ অনলাইন ম্যাগাজিন

টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি

‘চলো কিছু করি, কিছু করার চেষ্টা করি’

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১ | ১৯:৫৪:১৬

ডেইলি স্পোর্টসবিডি ডেস্ক

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অস্কার ব্রুজনের অধীনে আশা জাগানিয়া ফুটবল খেললেও ফাইনালে যেতে পারেনি জামাল ভুঁইয়ারা। সাফের ব্যর্থতা ভুলে বাংলাদেশ দলের লক্ষ্য এখন চার জাতি টুর্নামেন্ট। দেশ ছাড়ার আগে পুরো স্কোয়াডকে এক সাথে না পেলেও টুর্নামেন্টে ভাল করার লক্ষ্য নিয়ে ফুটবলারদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে মারিও লেমোস বলেছেন, চলো কিছু করি।

গত এক দশকের বেশি সময় ধরে সফলতা নেই বাংলাদেশের ফুটবলে। ২০০৩ সালে সাফের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর আর কোন বড় ট্রফি জিততে পারেনি বাংলাদেশ ফুটবল দল। একের পর এক কোচ পরিবর্তন করেও মিলেনি সাফল্যের ছোঁয়া। জেমি ডে’র পর অস্কার ব্রুজন, এরপর চার জাতি টুর্নামেন্টের জন্য বাংলাদেশের দায়িত্ব নিয়েছেন পর্তুগিজ মারিও লেমোস। একের পর এক কোচ পরিবর্তনে পরেও শিরোপা জয়ের আশায় বিভোর বাঙালী ফুটবল সমর্থকেরা।

বাংলাদেশের দায়িত্ব নেওয়ার পর এখনো পর্যন্ত স্কোয়াডের সবাইকে এক সাথে পাননি পর্তুগিজ মারিও লেমোস। শ্রীলংকায় পৌছে মাত্র দুই দিনের জন্য পুরো স্কোয়াডকে এক সাথে পাবেন লেমোস। তবে এসব নিয়ে ভাবছেন না তিনি। তার ভাবনায় এখন শুধুই সেশলস। সেশলসের ম্যাচের পর তিনি ভাববেন বাকি দুই ম্যাচ নিয়ে। দেশ ছাড়ার আগে বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মারিও লেমোস বলেন,

“আমি এই মুহূর্তে শ্রীলঙ্কা এবং মালদ্বীপের কথা ভাবছি না, আমি সেশেলসের কথা ভাবছি, তারপর আমি শ্রীলঙ্কা এবং মালদ্বীপের কথা ভাবব। খেলোয়াড়দের কাছে আমার বার্তা হলো অতীতের কথা না ভাবুন, আসুন কিছু করি, কিছু করার চেষ্টা করি। জাতীয় দলের সাথে আমার অভিজ্ঞতা আমি জাতীয় দলে ইতিবাচক শক্তি হিসেবে দেখেছি। আমরা সবসময় ভিন্ন কিছু করতে চাই, বিশেষ কিছু করতে চাই।”

চার বছর আগে বাংলাদেশ দলের ফিটনেস কোচ ছিলেন লেমোস, আর এখন প্রধান কোচ। তখনকার বাংলাদেশ দল থেকে এখনকার বাংলাদেশ দলের মধ্যে কেমন উন্নতি হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে লেমোস বলেন, “অবশ্যই জাতীয় দলে অনেক উন্নতি হয়েছে। চার বছর পর জামাল, তপু সবাই বেশি অভিজ্ঞ। তারা এখন ভালো খেলোয়াড়।”

আরও খেলার খবরঃ   দেশের ফুটবল এখনো মরেনি - কাজী সালাউদ্দিন

পারিবারিক সমস্যা ও ভিন্ন কারণে এই টুর্নামেন্টে নেই নিয়মিত ছয় ফুটবলার। তবে কে নেই বা কে ক্যাম্পে আসতে চায়নি এসব নিয়ে ভাবতে চান না লেমোস।। যারা আছেন তাঁদের নিয়েই ভাবতে চান তিনি।

“আমার আত্মবিশ্বাস আমি জানি যে ২৩ জন খেলোয়াড় যাচ্ছে তারা এখানে থাকতে চায়। এখানে কে নেই, সত্যি বলতে আমি তাদের নিয়ে ভাবছি না। জামাল, রিদয়, ইয়াসিন আরাফাত, সুশান্তর কথা ভাবছি। তারা এখানে থাকবে। তারা আমার অগ্রাধিকার।”

মারিও লেমোস বিশ্বাস করেন, টুর্নামেন্টের তিনটি ম্যাচই জিততে পারে বাংলাদেশ। তবে পেশাদার ফুটবলে এটা যে সহজ নয় সেটাও জানেন তিনি। কিন্তু বাংলাদেশেরও যে সুযোগ আছে তা মনে করিয়ে দিয়েছেন এই পর্তুগিজ।

সাম্প্রতিক খবর

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / আবারো মেলবোর্ন স্টারসের হয়ে খেলবেন পাকিস্তানি হ্যারিস রউফ
বাংলাদেশ ক্রিকেট / শুরুতেই বাবর-আজহারের উইকেট নিয়েছে বাংলাদেশ
আজকের খেলা / চ্যাম্পিয়নস লিগে রিয়াল, পিএসজির ম্যাচসহ টিভিতে আজকের খেলা
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / কোহলি ভারতের সর্বকালের সেরা টেস্ট অধিনায়কঃ পাঠান
ক্লাব ফুটবল / অবসর নিতে ভয় পাওয়া ইব্রাহিমোভিচ ক্যারিয়ার শেষ করতে চান এসি মিলানে
বাংলাদেশ ফুটবল / মতিঝিলের টার্ফ মাতালেন ‘প্রতিবন্ধী’ ফুটবলাররা
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / দক্ষিণ আফ্রিকায় ভারত সফরের সূচি প্রকাশ
টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি