বিজ্ঞাপন

অফিসিয়াল গ্রুপে যোগ দিন

বাংলাদেশের স্পোর্টসভিত্তিক শীর্ষ অনলাইন ম্যাগাজিন

টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি

দুই অধিনায়কের ফিফটিতে সিরিজ নিশ্চিত ভারতের

প্রকাশ: শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১ | ২৩:৫৮:২০

ডেইলি স্পোর্টসবিডি ডেস্ক

ছবিঃ বিসিসিআই/ টুইটার
ছবিঃ বিসিসিআই/ টুইটার

জয়পুরের মতো রাঁচিতেও নিউজিল্যান্ডকে ধরাশায়ী করলো ভারত। ফলে ১ ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয় নিশ্চিত হয়েছে ভারতের। শুক্রবার টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৩ রান করেছিল নিউজিল্যান্ড। জবাবে রাহুল-রোহিতের জোড়া ফিফটিতে ১৭.২ ওভারে ৭ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে ভারত।

রাঁচিতে ম্যাচের শুরুতে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নিউজিল্যান্ডের শুরুটা হয়েছিল দূর্দান্ত। ম্যাচের প্রথম বল থেকেই ভারতীয় বোলারদের উপর চড়াও হয়ে দ্রুত গতিতে রান তুলতে শুরু করেন মার্টিন গাপটিল এবং ড্যারেল মিচেল জুটি। মাত্র ৪.২ ওভারেই স্কোরবোর্ডে ৪৮ রান যোগ করে এ জুটি। বিধ্বংসী মেজাজে ব্যাট করা গাপটিলকে সাজঘরে ফিরিয়ে এ জুটি ভাঙেন দীপক চাহার।

এদিন বিরাট কোহলিকে টপকে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি নিজের করে নেন মার্টিন গাপটিল। শেষ পর্যন্ত রেকর্ড গড়ার দিনে ১৫ বলে ৩১ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে আউট হন কিউই ওপেনার, যেখানে ৩টি চার এবং ২টি ছক্কা মেরেছেন তিনি।

মার্টিন গাপটিল (ছবিঃ আইসিসি/ টুইটার)

দ্বিতীয় উইকেটে চ্যাপম্যানকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন মিচেল। তবে নবম ওভারের পঞ্চম বলে দলীয় ৭৯ রানে অক্ষর প্যাটেলের বলে কেএল রাহুলের হাতে ক্যাচ আউট হন ২১ (১৭) রান করা চ্যাপম্যান। দুই ওভার পর ব্যাক্তিগত ৩১ (২৮) রানে অভিষিক্ত হার্শাল প্যাটেলের প্রথম শিকার হয়ে ফিরেন ড্যারেল মিচেলও।

চতুর্থ উইকেট পার্টনারশিপে ৩৫ রান যোগ করেন গ্লেন ফিলিপস এবং টিম সেইফার্ট জুটি। কিন্তু এরপরে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে সফরকারীরা। ১৬ থেকে ১৮ টানা তিন ওভারে যথাক্রমে সেইফার্ট (১৩), ফিলিপস (৩৪) এবং জিমি নিশাম (৩) রান করে আউট হন।

শেষ দুই ওভারে আর কোনো উইকেট না হারালেও খুব বেশি রান যোগ করতে পারেননি মিচেল স্ট্যানন্টার এবং অ্যাডাম মিলনে। ফলে দারুণ শুরুর পরও নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ১৫৩ রানেই থামে নিউজিল্যান্ডের উইকেট।

ছবিঃ বিসিসিআই/ টুইটার

৪ ওভারে ২৫ রান খরচ করে ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ দুটি উইকেট শিকার করেন অভিষিক্ত পেসার হার্শাল প্যাটেল। এছাড়া রবিচন্দ্রন অশ্বিন, অক্ষর প্যাটেল, ভুবেনেশ্বর কুমার এবং দীপক চাহার প্রত্যেকে একটি করে উইকেট শিকার করেন।

আরও খেলার খবরঃ   এবার লংকান অলরাউন্ডারের বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের অভিযোগ প্রমাণিত

জবাবে খেলতে নেমে স্বাগতিকদের আরও একবার দূর্দান্ত শুরু এনে দেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং সহ-অধিনায়ক কেএল রাহুল জুটি। কিউই বোলারদের শাসন করে উদ্বোধনী জুটিতেই শতরানের পার্টনারশিপ গড়েন এ দুজন। ১৪তম ওভারে দলীয় ১১৭ রানে টিম সাউদির শিকার হয়ে রাহুল সাজঘরে ফিরলে ভাঙে এ জুটি।

৪৯ বলে ৬৫ রান আসে রাহুলের ব্যাট থেকে। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ১৬তম ফিফটি হাঁকানোর দিনে ৬টি চার এবং ২টি ছক্কা হাঁকান ভারতীয় ওপেনার। ১৬তম ওভারে বোলিং এসে জোড়া আঘাত হানেন কিউই অধিনায়ক সাউদি। এবার ৫৫ (৩৬) রান করা ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং ১(২) রান করা সূর্যকুমারকে সাজঘরে ফেরান কিউই অধিনায়ক।

ফলে গত ম্যাচের মতো ফের একবার শেষ মূহুর্তে নাটকীয়তার আভাস পাওয়া গিয়েছিল রাঁচিতেও। তবে ভেঙ্কাটেশ আইয়ার এবং রিশাভ পান্ত আর কোনো বিপদ না ঘটতে দিয়ে ১৬ বল আগেই ভারতের সিরিজ জয় নিশ্চিত করেন। দুজনেই অপরাজিত থাকেন সমান ১২* রানে। দূর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্যে অভিষেক ম্যাচেই ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন হার্শাল প্যাটেল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

নিউজিল্যান্ডঃ ১৫৩/৬ (২০ ওভার); ফিলিপস ৩৪, গাপটিল ৩১, মিচেল ৩১; হার্শাল ২/২৫, অশ্বিন ১/১৯

ভারতঃ ১৫৫/৩ (১৭.২ ওভার); রাহুল ৬৫, রোহিত ৫৫, রিশাভ ১২*; সাউদি ৩/১৬

ফলাফলঃ ভারত ৭ উইকেটে জয়ী।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচঃ হার্শাল প্যাটেল।

সাম্প্রতিক খবর

আজকের খেলা / চ্যাম্পিয়নস লিগে রিয়াল, পিএসজির ম্যাচসহ টিভিতে আজকের খেলা
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / কোহলি ভারতের সর্বকালের সেরা টেস্ট অধিনায়কঃ পাঠান
ক্লাব ফুটবল / অবসর নিতে ভয় পাওয়া ইব্রাহিমোভিচ ক্যারিয়ার শেষ করতে চান এসি মিলানে
বাংলাদেশ ফুটবল / মতিঝিলের টার্ফ মাতালেন ‘প্রতিবন্ধী’ ফুটবলাররা
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট / দক্ষিণ আফ্রিকায় ভারত সফরের সূচি প্রকাশ
হকি / চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভাল খেলাই লক্ষ্য বাংলাদেশের
ক্লাব ফুটবল / প্যারিসের শীতে কষ্টে আছেন মেসি!
টপ ট্রেন্ডিং সাকিব আল হাসান/ তামিম ইকবাল/ মুশফিকুর রহিম/ বিরাট কোহলি/ বাবর আজম/ মেসি/ নেইমার/ রোনালদো/ ব্রাজিল/ আর্জেন্টিনা/ রিয়াল মাদ্রিদ/ বার্সেলোনা/ পিএসজি