ফুটবল > বাংলাদেশ ফুটবল

শেষের দুই গোলে ম্যাচ জমিয়েও সাইফের কাছে হারল মুক্তিযোদ্ধা

নিউজ ডেস্ক

২ ডিসেম্বর ২০২১, দুপুর ১২:২২ সময়

[ 262508595_4621273967957624_2439835439451828623_n ]
আর্জেন্টাইন আন্দ্রেস ক্রুসিয়ানির হাত ধরে টানা দ্বিতীয় জয়ের দেখা পেল সাইফ স্পোর্টিং। পুরো ম্যাচে আক্রমণের পসরা বসালেও পার্ফেক্ট ফিনিশিয়ের অভাবে বাড়েনি গোলের ব্যবধান। ঘুরে দাঁড়ানোর চেস্টা করেও শেষ পর্যন্ত আর পেরে উঠেনি মুক্তিযোদ্ধা। স্বস্তির এই জয়ে স্বাধীনতা কাপের শেষ আটের পথে এগিয়ে গেল গত মৌসুমের ফেডারেশন কাপের রানার্সাপরা। কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে স্বাধীনতা কাপের সি গ্রুপের ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে ৩-২ গোলে হারায় সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। সাইফের হয়ে একটি করে গোল করেছেন ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, ডিফেন্ডার নাসিরুল ইসলাম ও সাজ্জাদ হোসেন। মুক্তিযোদ্ধার হয়ে শেষ মুহুর্তে দুটি গোল শোধ দেন জাপানিজ তেতসুয়াকি মিসাওয়া। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিপক্ষে ২-১ গোলের কষ্টার্জিত জয় পেয়েছিল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। দ্বিতীয় ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধার বিপক্ষে শুরুটা ঢিলে ঢালা হলেও সময়ের ব্যবধানে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় আন্দ্রে ক্রসিয়ানির দল। আক্রমণভাগের দায়িত্বে থাকা দুই নাইজেরিয়ান এমফন সানডে ও এমেকা ওগবাহর সাথে উজ্জল ছিলেন দেশি ফয়সাল আহমেদ ফাহিম। প্রথমার্ধে গোল মিসের মহরার পরেও দুই গোল করে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় সাইফ। দ্বিতীয়ার্ধে আরো ধারালো সাইফ, একের পর এক আক্রমণ করে মুক্তিযোদ্ধাকে দিশেহারা করে রাখে ফাহিম, সানডেরা। তবে শেষ দিকে দশ জনের দলে পরিণত হলেও হাল ছাড়েনি মুক্তিযোদ্ধা। পর পর দুই গোল করে ম্যাচে ফেরার চেস্টা করলেও তা আর হয়ে উঠেনি। টানা দুই হারে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায়ের পথে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। ষষ্ঠ মিনিটে জামালের ভুল পাস থেকে বল পেয়ে ডান দিকে আক্রমণে ওঠেন জাপানিজ তেতসুয়াকি মিসাওয়া, সেখান থেকে তাঁর ডান পায়ের ক্রস বক্সের মধ্যে থেকে হেড করেন মিশরীয় আহমেদ আইমান কিন্তু তা লক্ষ্যে ছিল না। ১৬তম মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেনি নাইজেরিয়ান এমেকা ওগবাহ। বক্সের সামনে থেকে আরেক নাইজেরিয়ান এমফন সানডের থ্রু বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে শট নিলে আটকে দেয়ার পর ফিরতি বলে আবারো শট নিলে ঝাপিয়ে রক্ষা করেন গোলরক্ষক রাজিব। দুই মিনিট বাদেই ম্যাচে এগিয়ে যায় সাইফ স্পোর্টিং। এমফনের পাস ধরে বক্সের বাইরে থেকে প্লেসিং শটে লক্ষ্যভেদ করেন ফয়সাল আহমেদ ফাহিম। ২৪তম মিনিটে সাইফের ডিফেন্ডারদের ভুলে বল পেয়ে যায় তেতসুয়াকি মিসাওয়া, তিনি ঠেলে দেন মিশরীয় আহমেদ আইমানের দিকে। বক্সের খানিকটা বাইরে থেকে দেখে শুনে সময় নিয়ে শট নিলেও গোলরক্ষক মিতুলকে পরাস্ত করতে পারেনি। ৩২তম মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে ওগাবাহর দূরপাল্লার কোনাকুনি শট রুখে দেন গোলরক্ষক রাজিব। ৩৭তম মিনিটে এমফন সানডের পাস বক্সের বাইরে থেকে ফাহিমের শট ক্রস বার ঘেষে বাইরে চলে যায়। ৪১তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে সাইফ স্পোর্টিং। এমেকা ওগবাহর সাথে দেওয়া নেওয়া করে কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন ডিফেন্ডার নাসিরুল ইসলাম। প্রথমার্ধের বিরতিতে যাওয়ার আগে জামালের ব্যাকপাস গোলরক্ষক মিতুল হাত দিয়ে ধরায় ইনডিরেক্ট ফ্রিকিক পায় মুক্তিযোদ্ধা। ছোট ডি'র সামনে থেকে আইমেদ আইমানের শট আটকে দেয় সাইফের রক্ষণভাগ। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ব্যবধান বাড়াতে পারতো সাইফ কিন্তু বক্সের খানিকটা সামনে থেকে এমফন সানডের বুলেট গতির শট ক্রস বারে লেগে ফিরে আসে। ৬৬ তম মিনিটে সতীর্থের থ্রু বলের পেছনে ছুটছিলেন এমেকা ওগবাহ, সঙ্গে ছিলেন মুক্তিযোদ্ধার কামারা। গোলরক্ষক রাজিব জায়গা ছেড়ে বের হয়ে এলেও বল ধরতে পারেনি, আচমকা কামারার পায়ে লেগে বলের লক্ষ্য ছিল জালের দিকে তখন দৌড়ে গিয়ে গোল লাইন থেকে ক্লিয়ার করেন এই গিনিয়ান ডিফেন্ডার। ৭৬তম মিনিটে দশ জনের দলে পরিণত হয় মুক্তিযোদ্ধা, ফয়সাল আহমেদ ফাহিমকে ফাউল করায় লাল কার্ড দেখেন ডিফেন্ডার সাজন মিয়া। ৮১তম মিনিটে আসরোর গফুরভের কাট ব্যাকে সাজ্জাদ হোসেনের প্লেসিং শটে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেয় সাইফ স্পোর্টিং।   নির্ধারিত সময়ের চার মিনিট আগে দিদারুল আলমের ফ্রি কিকের পর বক্সের ভেতরের জটলা থেকে জাপানি মিডফিল্ডার তেতসুয়াকি মিসুয়া লক্ষ্যভেদ করেন। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে নাসিরুল ইসলাম ফাউলে পেনাল্টি পায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। মিসুয়ার সফল স্পট জমে ওঠে ম্যাচ, কিন্তু তা ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না। দুই ম্যাচে ছয় পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের পথে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। একই গ্রুপের অন্য ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে মোহামেডান ও বাংলাদেশ সেনাবাইনী। এই ম্যাচ জিতলে শেষ আট নিশ্চিত হবে সাদা-কালোদের। সেই সাথে এই গ্রুপ থেকে শেষ আটে পা দিবে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। সেক্ষত্রে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিবে মুক্তিযোদ্ধা ও সেনাবাহিনী।