ফুটবল > বাংলাদেশ ফুটবল

ভারতে কাজ করার অভিজ্ঞতা বাংলাদেশে কাজে লাগাতে চান ক্যাবরেরা

নিউজ ডেস্ক

১৯ জানুয়ারী ২০২২, দুপুর ১:৫৫ সময়

[ img-20220119-wa0010 ]
বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের দায়িত্ব নেওয়ার আগে অন্য কোনো দেশের জাতীয় দলে কাজ করার অভিজ্ঞতা ছিল না হ্যাভিয়ের ক্যাবরেরা। তবে আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত তথা উপমহাদেশে কাজ করার বিস্তর অভিজ্ঞতা রয়েছে এই স্প্যানিয়ার্ডের। আর সেই অভিজ্ঞতাই বাংলাদেশ দলে কাজে লাগাতে চান তিনি। মাত্র ১১ মাসের দায়িত্ব নিয়েছেন স্প্যানিশ হ্যাভিয়ের ক্যাবরেরা। দলের দায়িত্ব নিতে বর্তমানে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। বাংলাদেশের গণমাধ্যমের সঙ্গে বুধবার প্রথমবারের মত মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। যেখানে জানিয়েছেন নিজের পরিকল্পনা ও লক্ষ্যের কথা। জাতীয় দল পর্যায়ে ক্যাবরেরা কোনও কাজ না করলেও ক্লাব ও একাডেমি পর্যায়ে তার বিস্তর অভিজ্ঞতা রয়েছে। স্পেন, আমেরিকা ও ভারতের বেশ কয়েকটি ক্লাব ও একাডেমিতে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে ক্যাবরেরার। বাংলাদেশ দলে হাল ধরার মধ্য দিয়ে এবারই প্রথম কোনো জাতীয় দলের দায়িত্ব নিলেন তিনি। বাংলাদেশ দলকে দেওয়ার মতো ‘অনেক কিছু’ আছে বলে জানালেন এই স্প্যানিয়ার্ড। "২০০৪ সাল থেকে পেশাদার ফুটবলে কাজ করছি। শুরুটা করেছিলাম ফুটবল এনালিস্ট হিসাবে। এরপর বিভিন্ন হাই পারফরম্যান্স একাডেমি ও ভারতের পেশাদার ফুটবলে সিনিয়র দলগুলোর সঙ্গে কাজ করছি। স্পেনেও কাজ করেছি। লা লিগার ভারতের প্রকল্পের সঙ্গেও যুক্ত ছিলাম। আমি মনে করি, বাংলাদেশ দলকে দেওয়ার মতো অনেক কিছু আমার আছে। এই দলটায় তরুণ এবং অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের মিশেল এবং তাদের সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে আছি আমি।” ভারতে প্রায় আট বছরের মত কাজ করেছেন ক্যাবরেরা। সেখানে কাজ করার সময় আবাহনী,বসুন্ধরা কিংস সম্পর্কে জেনেছেন তিনি। তাই ভারতে কাজ করার অভিজ্ঞতা বাংলাদেশ দলে কাজে লাগাতে চান বলে জানান ক্যাবরেরা। "এই চ্যালেঞ্জ নিয়ে আমি সত্যিই ভীষণ অনুপ্রাণিত বোধ করছি এবং এটা নিয়ে আমি আশাবাদী। যেহেতু ভারত, যুক্তরাষ্ট্রে লম্বা সময় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাজ করেছি, বিশেষ করে ভারতে কাজ করেছি প্রায় আট বছর এবং এর সুবাদে আমি সাফ ফুটবল দেখার সুযোগ পেয়েছি। বাংলাদেশের ক্লাবগুলোর মধ্যে বিশেষ করে যারা এএফসি কাপে খেলে, আবাহনী লিমিটেড ও বসুন্ধরা কিংস সম্পর্কেও জানি। তাই আমি মনে করি, এখানে আমি এই অঞ্চলে পুরোপুরি নতুন নই। ভারতে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি, সেটা আশা করি বাংলাদেশে কাজে লাগবে।" ২০০৩ সালে সর্বশেষ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ের পর দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে আর কোনো সাফল্য পায়নি বাংলাদেশ। গত বছর সাফ ও শ্রীলঙ্কার ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টেও আশা জাগিয়েও ফাইনাল খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে সাফের মত আসরে চ্যালেঞ্জ নিতে চান তিনি। "আমি মনে করি এটা আমার জন্য চমৎকার এবং বড় চ্যালেঞ্জ। আমার লক্ষ্য শুরু থেকে একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ দল গড়া এবং জাতীয় দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবার সঙ্গে আলোচনা করে তাদের খেলার মানের উন্নতি করা।" আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি মাঠে গড়াবে প্রিমিয়ার লিগ ফুটবল। এর আগে ক্লাব গুলাতে গিয়ে ফুটবলারদের সঙ্গে দেখা করবেন হ্যাভিয়ের ক্যাবরেরা।