ফুটবল > বাংলাদেশ ফুটবল

স্প্যানিশ কোচের চোখে জামাল ‘গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ’, তারিক ‘দারুণ সম্ভাবনাময়’

নিউজ ডেস্ক

২১ জানুয়ারী ২০২২, বিকাল ৫:৩৪ সময়

[ img-20220121-wa0008 ]
ছবিঃ বাফুফে
সাবেক ইংলিশ কোচ জেমি ডে'কে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়ার পর তিন মাস কোনো স্থায়ী কোচ ছিল না বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের। ফলে এতদিন নতুন স্থায়ী কোচের সন্ধান করছিল বাফুফে। এই সময় ইংল্যান্ড, জার্মানি, ফ্রান্স ও স্পেন থেকে জামাল ভূইয়াদের দায়িত্ব নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে অনেকেই। তবে, সবাইকে ছাপিয়ে বাফুফে আস্থা রেখেছেন স্প্যানিশ কোচের উপর। কাতালান ক্লাব বার্সেলোনায় কাজ করা হ্যাভিয়ের কাবরেরার উপর জাতীয় দলের দায়িত্ব অর্পণ করে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। ইতোমধ্যে, দেশে এসে পৌছেছেনও নতুন নিয়োগ পাওয়া ৩৭ বছর বয়সী এই স্প্যানিয়ার্ড। [caption id="attachment_63338" align="aligncenter" width="1072"] ছবিঃ ইন্টারনেট[/caption] চলতি মাসের শেষের দিকই ইন্দোনেশিয়ায় দুটি ম্যাচ খেলার কথা ছিল বাংলাদেশের। জাতীয় দলের সবাই কোভিড টিকা না নেওয়ায় সফরটি ভেস্তে গেছে। আগামী ২৬ মার্চের আগে জাতীয় দলের খেলা নেই। তাই নিয়োগ পাওয়ার পর বাংলাদেশে এসে আপাতত ঢাকার শীর্ষ ক্লাবগুলো পরিদর্শনে নেমেছেন হ্যাভিয়ের কাবরেরা। প্রথম দিনেই গেলেন আবাহনী লিমিটেডে। ঘরোয়া ফুটবলের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটির ব্যবস্থাপনা দেখে রীতিমতো মুগ্ধ স্প্যানিশ কোচ। আজ (শুক্রবার) দুপুরের পর ঢাকা আবাহনীতে যান হ্যাভিয়ের। দেশের শীর্ষস্থানীয় দলটির কোচ মারিও লেমোসসহ আরও অনেকের সঙ্গে কথা বলেছেন। পরে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানালেন মুগ্ধতার কথা। কথা বলেছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূইয়া ও নির্ভরযোগ্য ডিফেন্ডার তারিক কাজীকে নিয়েও। স্প্যানিশ এই কোচের চোখে জামাল ভূইয়া ‘গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ’, আর তারিক ‘দারুণ সম্ভাবনাময়’। “আমি জামাল ও তারিককে চিনি। ডেনমার্ক ও ফিনল্যান্ডে ওরা বড় হয়েছে। জামাল বাংলাদেশ দলের ‘গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ’। তরুণ খেলোয়াড়দের জন্য অন্যতম উদাহরণ সে। তারিকও ভালো ফুটবলার। বেশ সম্ভাবনা রয়েছে তার। সত্যি বলতে তাদের সঙ্গে অনুশীলন করার জন্য মুখিয়ে আছি।” [caption id="attachment_63337" align="aligncenter" width="1072"] ছবিঃ বাফুফে[/caption] হ্যাভিয়ের কাবরেরা সাত দিন ধরে বাংলাদেশে অবস্থান করলেও ভারতে কোচিং করার সময় থেকেই দেশের জাতীয় দল, খেলোয়াড় ও ক্লাবগুলোকে খুব নিবিড়ভাবে অনুসরণ করছেন। কিন্তু,তারপরও জাতীয় দলের ক্যাম্পিং শুরু করার আগেই বিভিন্ন ক্লাবে ঘুরে দেশের ফুটবল মডেল এবং সংস্কৃতি সম্পর্কে নিজেকে আরও ঝালিয়ে নিতে চান তিনি। “আমি মনে করি, আমার জন্য প্রথম অগ্রাধিকার হচ্ছে, দেশের ফুটবল প্রেক্ষাপট ভালোভাবে বোঝা। এবং এর জন্য সেরা বিকল্প হল সব পেশাদার ক্লাবের সাথে দেখা করা। ক্লাব পরিদর্শন আমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ খুব কারণ এটি আমাকে বুঝতে সাহায্য করবে তারা (ক্লাবের কর্মকর্তারা) কী ধরনের কাজ করছে। অবশ্য, খেলোয়াড়দের দেখতে আমার আরও কিছু সময় দরকার।”