ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

জয়ে বড় অবদান রেখেছেন গ্যালারির দর্শকরাও

মিরপুর থেকে লিখেছেন ওয়াহেদ মুরাদ।

নিউজ ডেস্ক

৩ মার্চ ২০২২, বিকাল ৭:৯ সময়

[ 763aa824-76ce-468e-b9d3-8826734e5cca.jpg ]
সংগৃহীত

ছবিটির দিকে তাকান, যেন আলো জ্বলজ্বলে এক রাজ্যের রাজা সাকিবকে বরণ করতে প্রদীপ নিয়ে গ্যালারী থেকেই প্রার্থনা করছে হাজারো বাঙালী। সুঃখে-দুঃখে, খারাপ সময়ে এই দর্শকরা কখনো মুখ ফিরিয়ে নেননি। বারংবার আশাহত হয়েও ফিরে এসেছেন সাকিবের এমন এক হাত তোলা উদ্‌যাপন দেখতে। 

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি পবিত্র অনুষ্ঠানের রীতি অনুযায়ী, ওদের যতবেশি অনুসারী তীর্থক্ষেত্রে উপস্থিত হয় ততবেশি পূন্যি সবাই মিলে ভাগ করে নেয়। আজকের মিরপুর শের ই বাংলা স্টেডিয়ামে যেন মনে হলো তেমনই এক গল্প। কোভিডের কারণে দীর্ঘ দুই বছরের বেশি সময় পরে আবারও মিরপুরে দেখা গেছে দর্শক পুর্ণ গ্যালারির। 

মাঝে দর্শক ফিরলেও সেটি ছিল সংখ্যায় অনেক কম। ৩০ শতাংশ দর্শক আর শতভাগ উপস্থিতি যে কতটা ভিন্ন তা যেন বোঝা গেল আজ ‍মিরপুরে। মিরপুর শের ই বাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরুর ত্রিশ মিনিটের মধ্যে স্টেডিয়াম সম্পুর্ণ কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায় দর্শকদের উপস্থিতিতে। 

এক ধ্বনিতে স্টেডিয়ামে বাজতে থাকে - “বাংলাদেশ - বাংলাদেশ“। আজকের ম্যাচে আফগানিস্তান যে পরিমাণে দুয়ো ধ্বনি শুনেছে তার যথেষ্ট প্রভাব পড়েছে তাদের মাঠের পারফরম্যান্সেও। বেশ কয়েকবার সহজ ফিল্ডিং মিস করেছেন আফগানরা যেখান থেকে অন্তত ১০-১৫ রান বাড়তি পেয়েছে বাংলাদেশ। 

শুরুতে বাংলাদেশও ক্যাচ ছেড়েছে একটা, তারপরেই ক্যাচিংয়ে ভালই মুনশিয়ানা দেখিয়েছে বাংলাদেশ। শুরুতেই নাসুমের অমন আগ্রাসী বোলিংয়ের সাথে দর্শকদের একসাথে গগণবিদারী চিৎকার অসহায় করে ছেড়েছে আফগানিস্তানকে। 

বাংলাদেশে এসে দর্শকদের উপস্থিতিতে খেলাটা অনেক বেশি চাপের। অনেক বড় বড় ক্রিকেটারও বাংলাদেশ সফর করে এসে সে কথা বলে গেছেন। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জেতার পর যখন সমালোচনা শুরু হয় তখন বিসিবি সভাপতি বলেছিলেন, “কন্ডিশনের আর কি সুবিধা নিয়েছি আমরা, দর্শকই আমাদের সবথেকে বড় শক্তি তারাই তো অনুপস্থিত।“ 

দর্শকদের চাপ আজ ভাল ভাবে বুঝতে পেরেছে আফগানিস্তান। বলতেই পারেন আজকের জয়ের অংশীদার তো দর্শকরাও