ফুটবল > ক্লাব ফুটবল

লেভানদোভস্কির হ্যাট্রিকে ‘সেভেন-আপ’ গোলে ব্রাজিলের কথা মনে করালো বায়ার্ন

ঘরের মাঠে সালজবার্গের জালে ৭ গোল দিল বায়ার্ন মিউনিখ। রাতের অন্য ম্যাচে হেরেও শেষ আট নিশ্চিত লিভারপুলের।

ডেস্ক রিপোর্ট

৯ মার্চ ২০২২, সকাল ৮:৪৪ সময়

[ 20220309_084322.jpg ]
টুইটার

২০১৪ সালের বিশ্বকাপে ঘরের মাঠে শেষ চারের লড়াইয়ে জার্মানির কাছে বড় লজ্জা পেয়েছিল ব্রাজিল। সেমিফাইনালে বেলো হরিজন্তে ডাই ম্যানশ্যাফটদের কাছে দুঃস্বপ্নের ৭ গোল হজম করে সেলেসাওরা। স্বাগতিকদের হয়ে শেষ দিকে অস্কার এক গোল পরিশোধ করলে ম্যাচশেষের স্কোর দাঁড়ায় ৭-১! 

আট বছর আগের সেই ৭-১ স্কোরের পুনরাবৃত্তি হয়েছে আবারও। ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের আসরে শেষ আটের লড়াইয়ে কান্ডটি ঘটালো জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখ। ঘরের মাঠে মহাদেশীয় লড়াইয়ের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় পর্বে রবার্ট লেভানদোভস্কির রেকর্ড গড়া হ্যাট্রিকে অস্ট্রিয়ান ক্লাব সালজবার্গের জালে সাত গোল দিল বায়ার্ন মিউনিখ। বড় জয়ে আসরের শেষ আটও নিশ্চিত করেছে দলটি। 

গতকাল (মঙ্গলবার) রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচটি ৭-১ গোলে জিতেছে বায়ার্ন মিউনিখ। জুলিয়ান ন্যাগলসম্যানের দলের হয়ে হ্যাট্রিক করেছেন তারকা স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানদোভস্কি, জোড়া গোল করেছেন থমাস মুলার, একটি করে গোল করেছেন লেরয় সানে ও সের্জ নাব্রি। সালজবার্গের হয়ে একটি গোল শোধ করেছেন কাইগার্ড।

ঘরের মাঠে এদিন বল দখলের লড়াইয়ে একচেটিয়া আধিপত্য দেখিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। গোটা ম্যাচে ৭৩ শতাংশ বল নিজেদের পায়ে রাখে দলটি। গোলমুখে শট নেওয়ার ক্ষেত্রেও এগিয়ে ছিল বাভারিয়ানরা। পুরো ম্যাচে ১৮ শটের ৯টিই লক্ষ্যে রাখতে পারে স্বাগতিকরা; বিপরীতে ৭ শটের ৪টি লক্ষ্যে রাখেছে সালকবার্গ। 

সালজবার্গের মাঠে সুবিধা করতে না পেরে ড্র করা বায়ার্ন মিউনিখ ম্যাচের শুরুতেই সালজবার্গকে গুড়িয়ে দেয়। মাত্র দশ মিনিটে রবার্ট লেভানদোভস্কির হ্যাট্রিকে করে ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয় দলটি। শুরুটা হয় ১২তম মিনিটে। 

স্পটকিকে বায়ার্নকে এগিয়ে দেওয়ার পর ২১তম ও ২৩তম মিনিটে আরও দুই গোল করে হ্যাট্রিক পূর্ণ করেন পোলিশ স্ট্রাইকার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ম্যাচের শুরু থেকে সবচেয়ে কম সময়ে হ্যাটট্রিক এটি। চলতি আসরে তাঁর গোলসংখ্যা হল ১২টি। চ্যাম্পিয়নস লিগে সব আসর মিলিয়ে ১০৪ ম্যাচে ৮৫টি। তার চেয়ে বেশি গোল আছে কেবল  মেসি (১২৫) ও রোনালদোর (১৪০)।

দলের সেরা তারকার হ্যাট্রিকের পরও থামেনি বায়ার্নের গোলউৎসব। ম্যাচের ঠিক ৩১তম মিনিটে সের্জ নাব্রির গোলে স্বাগতিকরা এক হালি গোল পূর্ণ করে। প্রথমার্ধে বাভারিয়ানরা এগিয়ে যায় ৪-০ গোলে। 

বিরতির পর ফিরেও গোল করতে বেশি সময় নেয়নি বায়ার্ন মিউনিখ। ৫৪তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান থমাস মুলার। ১৫ মিনিট পর ডেনিশ তারকা কাইগার্ডে গোলে এক গোল শোধ করে সালজবার্গ। তবে, তারপরও বড় ব্যবধান কমেনি। ৮৩তম মিনিটে অভিজ্ঞ মুলার নিজের দ্বিতীয় গোল করার দুই মিনিট পর লেরয় সানে গোল করলে স্বাগতিকদের সেভেন আপ পূর্ণ হয়। বাকি সময় আর কোন গোল না হলে ৭-১ গোলের বড় জয়ে দুই লেগ মিলিয়ে ৮-২ ব্যবধানে এগিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে জুলিয়ান ন্যাগলসম্যানের দল। 

রাতের অন্য ম্যাচে হেরেও কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল। ঘরের মাঠে উত্তেজনা ঠাসা ম্যাচে ইন্টার মিলানের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে অলরেডরা। নেরাজ্জুরিদের হয়ে একমাত্র গোলটি করেছেন আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার লাউতারো মার্টিনেজ। যদিও হারলেও আগের ম্যাচের ২-০ গোলের জয়ে, দুই পর্ব মিলিয়ে ২-১ গোলে এগিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল।