ফুটবল > ক্লাব ফুটবল

রিয়ালের মাঠে ‘তবলা বাজিয়ে’ হেসেখেলে জিতলো বার্সেলোনা

রিয়াল মাদ্রিদের মাঠে ‘গোলউৎসব’ করলো বার্সেলোনা।

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ মার্চ ২০২২, সকাল ৪:১০ সময়

[ FB_IMG_1647814013761.jpg ]
ফেসবুক

২০১৯ সালের পর রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে কোন ধরনের প্রতিযোগিতায় কখনও ম্যাচ জিততে পারেনি বার্সেলোনা। স্প্যানিশ লা লিগায় সর্বশেষ চার ‘এল ক্লাসিকো‘র সবকটিই জিতেছে লস ব্ল্যাংকোসরা। সবমিলিয়ে দুদলের সর্বশেষ পাঁচ সাক্ষাতে অপরাজিত ছিলো রিয়াল। 

সাম্প্রতিক সময়ে লস ব্ল্যাংকোসদের বিপক্ষে যোজন যোজনে পিছিয়ে থাকার পর বার্নাব্যুতে গিয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখাটা কাতালানদের জন্য একটু বাড়াবাড়িই ছিলো। তাছাড়া, চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটে তারকা ঠাসা পিএসজিকে হারানোর পর আত্মবিশ্বাসেও বেশ টুইটম্বুর ছিল রিয়াল কার্লো আনচেলত্তির দল।

কিন্তু, মৌসুমের মাঝামাঝি সময়ে জাভি হার্নান্দেজের অধীনে বদলে যাওয়া বার্সেলোনা পরোয়া করেনি কিছুর। চলতি মৌসুমের শুরু থেকে ছন্নছাড়া দলটি স্প্যানিশ কিংবদন্তির অধীনে বদলে গিয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে ঘরের মাঠে ছারখার করে দিয়ে আসলো। নিজেদের সর্বশেষ ১১ ম্যাচ অপরাজিত থাকা জাভি শিষ্যরা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের মাঠে গিয়ে এক প্রকার তবলা বাজিয়ে ‘এক হালি’ গোলের বড় জয় নিয়ে বাড়ি ফিরলো।

আজ (রবিবার) স্প্যানিশ লা লিগায় ম্যাচটি ৪-০ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। প্রতিপক্ষের মাঠে বার্সার হয়ে জোড়া গোল করেছেন পিয়েরি এমেরিক-অবামেয়ং, একটি করে গোল করেছেন রোনাল্ড আরোহা ও ফেরান তোরেস। সবমিলিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে পাঁচ পর জয়ে ফিরল কাতালানরা। 

স্যান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে এদিন বল দখলের লড়াইয়ে এক চেটিয়ে আধিপত্য ছিল বার্সেলোনার। গোটা ম্যাচে ৫৯ শতাংশ বল নিজেদের পায়ে রাখে দলটি। গোলমুখে শট নেওয়া ক্ষেত্রেও এগিয়ে ছিল কাতালানরা। পুরো ম্যাচে ১৭ শট নিয়ে ১০টিই লক্ষ্যে রাখে জাভি শিষ্যরা। বিপরীতে, ১৩ শটের মাত্র ৪টিই লক্ষ্যে রাখতে পারে। 

দলের সেরা তারকা করিম বেনজেমাকে ছাড়া খেলতে নামা রিয়াল মাদ্রিদ ঘরের মাঠে শুরু থেকেই নিজেদের খুব বেশি মেলে ধরতে পারেনি। উল্টো, ধীরে ধীরে নিজেদের মেলে ধরে ২৯তম মিনিটেই প্রথম গোলের দেখা পেয়ে যায় বার্সেলোনা। উসমান দেম্বেলের পাস থেকে সফরকারীদের এগিয়ে দেন এবারে গ্রীষ্মকালীন দলবদলে আর্সেনাল থেকে যোগ দেওয়া অবামেয়াং। 

সাত মিনিট পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রোনাল্ড আরোহা। উসমান দেম্বেলের নেওয়া কর্নার থেকে ভেসে আসা বল হেডে জালে পাঠান উরুগুইয়ান এই তরুণ ডিফেন্ডার। প্রথমার্ধে আর চেষ্টা করেও ম্যাচে ফিরতে পারেনি লস ব্ল্যাংকোসরা। 

বিরতির পর আরও বেশি আক্রমণাত্মক হয়ে উঠে বার্সেলোনা। রিয়ালের রক্ষণে একের পর এক আক্রমণ করে দ্রুত ব্যবধান আরও বাড়া দলটি। ম্যাচের ৫১তম মিনিটে অবামেয়াংয়ের পাস থেকে গোল করেন ফেরান তোরেস। 

তোরেস-অবামেয়ং নৈপুণ্যে ৫১তম মিনিটে রিয়ালের সব আশা শেষ হয়ে যায়। এবার ফেরান তোরেসের পাস থেকে আবারও গোল করে কাতালানদের জয় নিশ্চিত করে ফেলেন অবামেয়াং। ন্যু ক্যাম্পে আসার পর বার্সেলোনার হয়ে ১০ ম্যাচে ৯ গোল করলেন ৩২ বছর বয়সী গ্যাবনিজ এই তারকা। 

ম্যাচের বাকি সময় আর কোন গোল না হলে ৪-০ গোলের বড় জয় নিয়ে বাড়ি ফিরে কাতালানরা। এই নিয়ে জাভি হার্নান্দেজের অধীনে সর্বশেষ ১২ ম্যাচে অপরাজিত আছে দলটি। 

এই জয়ে এক ম্যাচ কম খেলে পয়েন্ট টেবিলের তিনে উঠে আসলো বার্সেলোনা।  ২৮ ম্যাচে ১৫ জয় ও ৯ ড্রয়ে কাতালানদের পয়েন্ট ৫৪।  যদিএ এক ম্যাচ বেশি খেলে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই থাকলো রিয়াল মাদ্রিদ। ২৯ ম্যাচে ৫৭ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে সেভিয়া।