ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

রক্ত আর আবেগের ফুটবল বিশ্বকাপের অপেক্ষায় কাতার

আবেগটা বাংলাদেশের ভক্তদের একটু বেশিই তবে এবার আবেগটা আর একটু বেশি বাংলাদেশীদের রক্তের কারণে।

ডেস্ক রিপোর্ট

২ এপ্রিল ২০২২, রাত ১২:৪৬ সময়

[ maxresdefault.jpg ]
ইন্টারনেট

২০২২ বিশ্বকাপটা দর্শকদের জন্য অনেক আবেগের একটা বিশ্বকাপ হতে চলেছে। একটা প্রজন্ম ফুটবলার অবসর নিতে যাচ্ছে এই বিশ্বকাপ খেলেই। আরেকটা নতুন প্রজন্মের হাতে সুযোগ নিজেদের জানান দেওয়া। আবেগে টইটুম্বর একটা বিশ্বকাপ কড়া নাড়ছে, বছরটার শেষেই বিশ্বকাপের শুরু। ফুটবল ইশ্বরও এইবার হয়ত কেঁদে ফেলবেন বিদায়ের অন্তিম সূরে। কারও বিদায় হবে করুণ আগুনে, কারও বা বিরাট মিছিলের করতালিতে।

আবেগটা বাংলাদেশের ভক্তদের একটু বেশিই তবে এবার আবেগটা আর একটু বেশি বাংলাদেশীদের রক্তের কারণে। মধ্যপ্রাচ্যের কাতারে বিশ্বকাপ আয়োজন করতে স্টেডিয়াম অবকাঠামো তৈরীতে অনেক মানুষ মারা গিয়েছেন দুর্ঘটনাতে যাদের বেশিরভাগই বাংলাদেশী শ্রমিক। 

লিওনেল মেসি, নেইমার জুনিয়র, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোরা গত পনের বছরের বেশি সময় ধরে ফুটবলকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন সেটি বলার অপেক্ষা রাখে না। এই গোটা লিজেন্ডারি প্রজন্মটাই এই বিশ্বকাপ খেলার পরই অবসর নিতে পারেন জাতীয় দল থেকে। 

বাংলাদেশের দর্শকদের কাছে সবথেকে আকর্ষণীয় এই তিন তারকা, মাঠে খেলবে এদের তিন দেশ আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, পতুর্গাল। দেশের বড় একটা অংশ সাপোর্ট করে জার্মানিকেও। এর আগে কখনো ব্রাজিল, আবার কখনো আর্জেন্টিনা তারকাদের নিয়ে মেতেছে বাংলাদেশের ভক্ত সমর্থকরা।

তবে গত দুইটি বিশ্বকাপ বিশেষ করে গোটা বাংলাদেশ বিভক্ত হয়েছে এই মহাতারকাদের কারণে। এবারের বিশ্বকাপটা তাই একটু বেশিই স্পেশাল, নেইমার-রোনালদো-মেসিদের যে শেষবারের মত দেখা যাবে গ্রেটেস্ট শো অন আর্থে। 

ফুটবল বিশ্বকাপটা বাংলাদেশের জন্য একটু বেশিই বিশেষ হয় সবসময়। ছাদে পতাকা থেকে শুরু করে, রাস্তায় মিছিল, পটকা ফুটানো কত কিছুই তো করে বাঙালী ভক্তরা। ভিনদেশীর পতাকা বানিয়ে রেকর্ডবুকে নাম তোলার কাহিনীও আছে বাংলাদেশীদের। 

ভক্তদের আগ্রহ আর আশা বাড়িয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে দলগুলোর ভাল ফর্ম। টানা অপরাজিত হওয়ার রেকর্ড গড়েছে মেসির আর্জেন্টিনা। মাঝারি মানের একটা দলকে স্কালোনি রীতিমত অপ্রতিরোধ্য বানিয়ে ছেড়েছেন। খাতা কলমে আর হিসাব নিকাশে ব্রাজিল এবার তারকা ঠাসা এক দল।

আগাম জানান দিয়ে রোনালদোর পর্তুগাল যেভাবে বিশ্বকাপে পা রেখেছে সেটা তো রুপকথাকেও হার মানাবে। দলটাও চাইবে রোনালদোর শেষটা রাঙাতে রাজার মত করেই। জার্মানরা তো সবসময়ই ধারাবাহিক বিশ্বকাপে। স্পেন ভক্তর সংখ্যাও কম না, সাম্প্রতিক সময়ে স্পেনের দল প্রশংসা কুড়িয়েছে অনেক। 

সবমিলিয়ে বিশ্বকাপের আগে কথার লড়াইয়ের সবরকম রসদও আছে ভক্তদের কাছে। আর মাত্র পাঁচ ছয় মাসের অপেক্ষা, চলুক কথার লড়ায়। চলুক অপেক্ষা.....