ফুটবল > ক্লাব ফুটবল

বায়ার্নকে নাচিয়ে ‘প্রথম’ হারের স্বাদ দিল ভিয়ারিয়াল

ঘরের মাঠে বায়ার্ন মিউনিখকে হারালো উনাই এমেরির দল।

ডেস্ক রিপোর্ট

৭ এপ্রিল ২০২২, সকাল ৪:৩৩ সময়

[ 20220407_043343.jpg ]
টুইটার

ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় আগে দুদলের দেখা হয়েছিল মোট দুবার। প্রত্যেকবারই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বায়ার্ন মিউনিখ। ২০১১-১২ মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে ঘরের মাঠে ৩-১ গোলে ও অ্যাওয়ে ম্যাচে ২-০ গোলে জিতেছিল বাভারিয়ানরা। চলতি মৌসুমে এখনও ইউরোপ সেরার আসরে এখনও হারের মুখ না দেখা দলটি ছিল এবারও ফেভারিট। 

কিন্তু, নক আউট পর্বে ইতালির ঐতিহ্যবাহী দল জুভেন্টাসকে হারিয়ে শেষ আটে উঠা ভিয়ারিয়াল তা হতে দেয়নি। নিজেদের মাঠে চেনা আঙ্গিনায় বেশ উজ্জীবিত পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছে উনাই এমেরির দল। ২০১৭ সালের পর এই প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অ্যাওয়ে ম্যাচে হারলো বায়ার্ন। 

ঘরের দর্শকদের সামনে বায়ার্ন মিউনিখকে রীতিমতো নাচিয়ে ছেড়েছে দলটি। যদিও অসংখ্য গোলের সুযোগের মধ্যে মাত্র এক গোলের জয় নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় স্প্যানিশ ক্লাবটির।  

আজ (বুধবার) রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটের প্রথম পর্বে ভিয়ারিয়ালের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে বায়ার্ন মিউনিখ। নিজেদের মাঠে ভিয়ারিয়ালের হয়ে ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন দানজুমা। 

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের চলতি আসরে ‘প্রথম’ হারের স্বাদ পেল জুলিয়ান ন্যাগলসম্যানের দল। অন্যদিকে, নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবার বায়ার্নকে হারালো ভিয়ারিয়াল। ২০০৬ সালের পর ইউরোপ সেরার মঞ্চে ঘরের মাঠে জিতল দলটি। 

নিজেদের মাঠে এদিন বায়ার্ন মিউনিখকে পাত্তাই দেয়নি ভিয়ারিয়াল। গোটা ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে ৬২ শতাংশ বল নিজেদেরকে দখলে রাখে দলটি। গোলমুখে শট নেওয়ার ক্ষেত্রেও বেশ এগিয়ে ছিলো স্বাগতিকরা। পুরো ম্যাচে ২২ শটের ৪টি লক্ষ্যে রাখে উনাই এমেরির দল। বিপরীতে, ১২ শটের ১টি লক্ষ্যে রাখে বাভারিয়ানরা। 

এল মাদ্রিগালে শুরু থেকে বায়ার্নের উপর চড়াও হয় ভিয়ারিয়াল। একের পর এক আক্রমণে ফলও দ্রুত পেয়ে যায় দলটি। ম্যাচের অষ্টম মিনিটে  ডান দিকের বাইলাইনের কাছ থেকে আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার জিওভানি লো সেলসো পাস দেন বক্সের মাঝে। দানিয়েল পারেহোর শটে ছয় গজ বক্সে পা ছুঁয়ে শুধু বলের দিক পাল্টে দেন দানজুমা। 

প্রথমার্ধে বলার মতো কোন আক্রমণই করতে পারেনি বায়ার্ন মিউনিখ। উলটো, ৪১তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলেছিল ভিয়ারিয়াল। যদিও অফসাইডের ফাঁদে গোলটি বাতিল হয়ে যায়। 

বিরতির পর ফিরে নিজেদের মেলে ধরার চেষ্টা করে বায়ার্ন মিউনিখ। ৫০তম মিনিটে সের্জ নাব্রির পাসে ছয় গজ বক্সে প্রয়োজন ছিল শুধু বলে পা ছোঁয়ানোর, সেটিই পারেননি অরক্ষিত টমাস মুলার। তিন মিনিট পর জেরার্ড মরেনোর বল গোল পোষ্টে লাগলে অল্পের জন্য বেঁচে যায় বায়ার্ন। 

৫৭তম মিনিটে দানজুমারের শট ড্রাইভে আটকে দেন আলফান্সো ডেভিস। খানিক পরই গোলরক্ষক ম্যানুয়েল নয়্যার ভুল করে বসেন। মাঝমাঠে উঠে এসে অভিজ্ঞ এই গোলরক্ষক বল তুলে দেন প্রতিপক্ষের পায়ে। 

কিন্তু, দূরপাল্লার শট ঠিকঠাক লক্ষ্যে রাখতে পারেননি মরেনো। ৬৬তম মিনিটে ডি-বক্সে ফাঁকায় বল পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি দানজুমা। ম্যাচের বাকি সময়ও আর  কোন গোল না হলে ১-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ভিয়ারিয়াল। 

আগামী বুধবার বায়ার্ন মিউনিখের ঘরের মাঠে দুদলের দ্বিতীয় লেগ অনুষ্ঠিত হবে।