ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

চুপিসারে কাজটা করে যাচ্ছেন ধারাবাহিক মিরাজ

মিরাজের সমসাময়িক সময়ে যারা দলে এসেছেন তাদের কেউই মিরাজের মত ধারাবাহিক হতে পারেননি। যথেষ্টের তুলনায় বেশি সুযোগ পেয়ে বাদ পড়েছেন অনেকেই।

ডেস্ক রিপোর্ট

১ মে ২০২২, রাত ১২:৪২ সময়

[ CT_346027.jpg ]
সংগৃহীত

দলে নেই মেহেদী হাসান মিরাজ। এই সুযোগে দলে ফিরেছেন দুই ক্রিকেটার নাইম ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। একটা ব্যাপারে কি খেয়াল করেছেন? একটা প্লেয়ারকে রিপ্লেস করতে টিম ম্যানেজমেন্টকে দুইজনকে দলে নিতে হয়েছে। সাকিব আল হাসান ছাড়া আর কোন ক্রিকেটারকে নিয়ে এমন পদক্ষেপ সহজে নিতে দেখা যায় না বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টকে। সবার অগোচরে মিরাজ হয়ে উঠেছেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ একজন ক্রিকেটার। অনূর্ধ্ব উনিশ দলের নেতৃত্ব দেওয়ার পর অনেকেই মিরাজকে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ কাপ্তানও মনে করেন। 

মিরাজের সমসাময়িক সময়ে যারা দলে এসেছেন তাদের কেউই মিরাজের মত ধারাবাহিক হতে পারেননি। যথেষ্টের তুলনায় বেশি সুযোগ পেয়ে বাদ পড়েছেন সৌম্য সরকার, উথান পতন গেছে লিটনের, শান্তকেও রঙিন পোষাকে স্থফা দেওয়া হয়েছে একপ্রকার। মিরাজের নেতৃত্বে থাকা যুব দলটার মধ্যে আফিফই একমাত্র কিছুটা পরে জাতীয় দলে এসে পারফর্ম করে যাচ্ছেন। কিন্তু প্রথম থেকেই মিরাজ নিজের পারফর্ম্যান্স ধরে রেখেছেন। একটা সময় মিরাজের বিদেশের মাটিতে পারফর্ম্যান্সকে প্রশ্নের মুখে ফেলা হলেও নিউজিল্যান্ড সফরে এবং ২০১৯ বিশ্বকাপে মিরাজের পারফরম্যান্স দলের অন্যতম সেরা ছিল। 

টিটোয়েন্টি ক্রিকেটে মিরাজের ব্যাটিং ততটা আক্রমণাত্মক না হওয়ার কারণে বাদ দেওয়া হয়। তবে, সম্প্রতি মিরাজ বিপিএল এবং ডিপিএলে কিছু বিস্ফোরক ইনিংস খেলে প্রমাণ করেছেন তিনি ফেরার জন্য প্রস্তুত। একইসাথে এটি শেখ মাহেদীর প্রতি একটা বার্তাও। ছোট্ট করে পরিসংখ্যানে একটু চোখ দিয়ে আসা যাক, সাদা পোশাকের অভিজাত টেস্ট ক্রিকেটে ৩৩ ম্যাচ খেলে মিরাজের উইকেট ১২৮টি। ৫ উইকেট নিয়েছেন ৮ বার, ম্যাচে দশ উইকেট নিয়েছেন ২ বার। রানটা হাজার পার করেছেন মাত্রই। তবে শুরুর দিকে মিরাজকে অনেকসময় নামতে হয়েছে আট উইকেট পড়ার পর। 

ওয়ানডে ক্রিকেটে মিরাজ অবিশ্বাস্য রকমের ধারাবাহিক। ৫৮ ম্যাচ খেলে ৬৪ উইকেট নেওয়া মিরাজের ইকোনমি সাড়ে চারেরও কম। দেশে নিয়েছেন ৩১ উইকেট, দেশের বাইরে নিয়েছেন ৩৩ টি উইকেট। এশিয়া কাপের ওপেনিংয়ে নেমে মিরাজের ইনিংসের পর, সম্প্রতি আফিফের সাথে জুটি বেধে ম্যাচ জেতানোতে মিরাজের ব্যাটিং স্বত্বার দারুণ প্রমাণ হয়েছে। দেশের নামকরা কোচ নাজমুল আবেদীন ফাহিম বলেছেন, দেশের বড় এক অলরাউন্ডার হওয়ার সম্ভাবনা আছে মিরাজের। 

ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল এর আগে মিরাজের প্রশংসা করে জানিয়েছেন মিরাজের মত আন্ডাররেটেড ক্রিকেটারকে সবাই চায়। মিরাজ সবসময় দলের সবকিছুতে অংশীদার থাকেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। মিরাজের ধারাবাহিকতা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্যই দারুণ কিছু। ওয়ানডে অধিনায়কের সাফ কথা, সাকিব-মিরাজ জুটি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বড় অস্ত্র।