ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

মিরাজের অভাবে সঙ্গহীন সাকিব

বাংলাদেশের গেম প্ল্যানের বড় একটা অংশ হিসেবে কাজ করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কখনো সাকিব-মিরাজ আবার কখনো তাইজুল-মিরাজ জুটি বাংলাদেশের হয়ে সবথেকে বড় ভূমিকা রাখছেন।

ডেস্ক রিপোর্ট

২৫ মে ২০২২, দুপুর ২:১৩ সময়

[ 8f83e900-f51a-47c3-a23d-c9d5374150b7.jpg ]

বৃষ্টির কারণে আপাতত খেলা বন্ধ সেই ১২টার পর থেকেই। তৃতীয় দিনের খেলা আর হবে কিনা সেটি নিয়েও আছে শঙ্কা। তবে মিরপুরের ড্রেনেজ সিস্টেম অনেক উন্নত হওয়ার কারণে বৃষ্টি থেমে গেলে খেলা শুরু হতে ঘন্টাখানেক লাগতে পারে। বৃষ্টির আগের দুই উইকেট হারায় লংকানরা। বাংলাদেশের বোলিং লাইন আপে সাকিবকে একা মনে হয়েছে কি? বেশ কিছূ ব্যাপার যদি খেয়াল করা যায় তবে সেটিই মনে হবে। 

টেস্ট ক্রিকেটে সাধারণত বোলিং করার বিশেষ কিছূ পরিকল্পনা থাকে। ব্যাটসম্যানদের নির্দিষ্ট এরিয়াতে বল করার পাশাপাশি কিছূ মানসিক খেলা উপস্থিত থাকে সেই খেলায় একজন বোলার বল করেন কিছুটা আক্রমণাত্মক। উইকেটের আরেক পাশ দিয়ে কিছূটা ডিফেন্সিভ বোলিং করা হয়। নতুন বল পুরোনো হওয়ার পর সেভাবে রান আটকানো কঠিন হয়ে পড়ে। যে কারণে রিভার্স সুইংকে মনে করা হয় সবথেকে বড় অস্ত্র। কিন্তু বাংলাদেশের কন্ডিশনে রিভার্স সুইং আদায় করাটা অনেক কঠিন হয়ে থাকে। 

এ কারণে বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশের গেম প্ল্যানের বড় একটা অংশ হিসেবে কাজ করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কখনো সাকিব-মিরাজ আবার কখনো তাইজুল-মিরাজ জুটি বাংলাদেশের হয়ে সবথেকে বড় ভূমিকা রেখেছেন। মিরাজ সচরাচর খুব টাইট লাইনে বোলিং করেন যে কারণে উইকেটের আরেক প্রান্তে বোলাররা আক্রমণাত্মক হওয়ার সুযোগটা পান। ব্যাটসম্যানরা চাপের মুখে ভুল করার প্রবণতা বাড়িয়ে ফেলেন। সেজন্য উইকেটও চলে আসে, অন্যদিকে মিরাজ যখন অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন তখন তাকে সমর্থন দেওয়ার কাজটা করে যান সাকিব আর তাইজুল। 

বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণের ধরন অনুযায়ী এই ব্যাপারটা অনেক গুরুত্বপুর্ণ। সংবাদ সম্মেলনে কিন্তু সেটি টেস্টের দ্বিতীয় দিনে স্পষ্ট করেছেন উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান লিটন কুমার দাস। তিনি বলেন, “আমাদের পেস বোলারদের আমি বলবো ইকনোমিক্যাল আর টাইট লাইনে বল করতে তাহলে আরেকপাশে চাপ তৈরী হবে।“ লিটনের কথাতেই স্পষ্ট যে এই ঘরানার পরিকল্পনায় বেশি বাস্তবায়ন করে টিম বাংলাদেশ। 

মিরাজ না থাকাতে তাতে বড় ধরনের একটা সমস্যা তো তৈরী হচ্ছেই। তবে, এর মধ্যে আছে আশার গল্প, মিরাজের পরিবর্তে সুযোগ পাওয়া নাইম হাসানও হয়ে উঠছেন পার্ফরমার। বিসিবির চিকিৎসক জানালেন পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার পথে মিরাজ। ঢাকা টেস্ট শুরু হবার আগে জাতীয় দলের সাথে বোলিংও করেছেন মিরাজ। কনিষ্ঠা আঙ্গুলে ব্যথা পাওয়ার কারণে মূলত ব্যাটিংটা নিয়ে বেশি সমস্যা হওয়ার কথা। আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে মিরাজ আছেন দুই ফরম্যাটের দলেই। ওয়ানডে এবং টেস্ট দলে মিরাজ এখন অনেক গুরুত্বপূর্ণ একজন ক্রিকেটার।