ক্রিকেট > আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

আবেগঘন বিদায়ে স্টোকস বললেন, ‘ক্রিকেটাররা গাড়ি নয় যে পেট্রোল দিলেই চলবে’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত শিডিউলে বিরক্ত বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা।

ডেস্ক রিপোর্ট

২০ জুলাই ২০২২, দুপুর ১২:২ সময়

[ 20220720_115634.jpg ]

হুট করেই বেন স্টোকসের ওয়ানডে ক্রিকেটকে বিদায় বলা রীতিমতো চমকে দেওয়ার মতোই। ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই ফর্মে আছেন বেশ, বয়স মাত্র ৩১, বড় কোন চোটও নেই।

এমন অবস্থায়ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে সিরিজের ম্যাচের মধ্যে দিয়েই ইংল্যান্ডের হয়ে দশ বছরের এক বর্নাট্য ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ইতি টানার ঘোষণা দেন বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা।

কোন কিছুর আভাস না মিলেই স্টোকসের এমন বিদায় কেউই যেন মেনে নিতে পারছে না। অনেকেই তারকা এই ক্রিকেটারের ওয়ানডে ক্রিকেটকে বিদায় বলার পিছনের রহস্য খোঁজ করছেন। 

তবে, সেটা আর যাই হোক না কেন; আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যস্ত শিডিউলই স্টোকসের ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে সরে যাওয়ার অন্যতম বড় কারণ তা নিজেই জানিয়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। 

মাত্র কদিন আগেই ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শেষ হওয়ার পরই টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজও খেলল ইংল্যান্ড। দুটো সিরিজই হেরেছে ইংলিশরা।

কিন্তু, তার পরও সামান্য বিশ্রাম নেওয়া সুযোগ হয়নি তাদের। এক দিনই পরই আবারও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শুরু হয়ে গেল ইংল্যান্ডের।

সবমিলিয়ে আগামী ১২ মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিন সংস্করণ মিলিয়ে ১০০ দিনের বেশি মাঠে থাকতে হবে ইংলিশ ক্রিকেটারদের। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের এমন ব্যস্ত শিডিউলে বেশ বিরক্ত বেন স্টোকস। তাই, নিজের বিদায়ী ওয়ানডে ম্যাচেই ক্রিকেটারদের গাড়ীর মতো ব্যবহার না করতে অনুরোধ করলেন তিনি। 

চলতি বছরের ১ জুলাই ভারতের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের শেষ টেস্ট ম্যাচ খেলে ইংল্যান্ড। ঠিক ওই সময়ে ইংল্যান্ডের আরেকটি দল নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলছিল। বেন স্টোকসের কাছে পুরো এই ব্যাপারটাও হাস্যকর মনে হয়েছে। ৩১ বছর বয়সী এই তারকার মতে, এভাবে তিন ফরম্যাটে খেলাটাও কঠিন।

“আমরা গাড়ি নই। যে মাঠে যাব এবং পেট্রোল নিয়ে আবার চলার জন্য প্রস্তুত হব। আমাদের একটি টেস্ট সিরিজ ছিল এবং একই সময়ে ওয়ানডে দলের একটি সিরিজ চলছিল। এটা খুবই হাস্যকর।”

“আমার মনে হয়, এখন তিন ফরম্যাটেই অনেক বেশি ক্রিকেট হচ্ছে। আগের চেয়ে এটা অনেক কঠিন। অবশ্যই একজন খেলোয়াড় যতটা সম্ভব ক্রিকেট খেলতে চাই। কিন্তু যখন বিষয়টা ক্লান্তিকর হয়ে যায় এবং পাঁচ-ছয় মাস পরে কী হবে সেটা ভাবতেই হয়। সেটা সম্ভবত ভালো কিছু নয়।”

ইংল্যান্ডের ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে বেন স্টোকসের নাম। ২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে তাঁর অপরাজিত ৮৪ রানের ম্যাচ সেরা ইনিংসের কল্যাণেই প্রথমবারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পায় ইংলিশরা।

সবমিলিয়ে ইংল্যান্ডের হয়ে ওয়ানডে ক্রিকেটে ১০৪ ম্যাচ খেলে ব্যাট হাতে ৩৯.৪৫ গড়ে বেন স্টোকস রান করেছেন ২৯১৯। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৩ শতকে পাশাপাশি ২১টি অর্ধশতকও করেছেন তিনি। বল হাতেও সমানভাবে উজ্জল ছিলেন তিনি। ওয়ানডে ক্রিকেটে ৪১.৮ গড়ে স্টোকসের শিকার ৭৫টি উইকেট।