ক্রিকেট > আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

শ্বাসরুদ্ধকর লড়াইয়ে শফিকের বীরত্বে ইতিহাস গড়ে জিতলো পাকিস্তান

গলে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড গড়লো বাবর আজমের দল।

ডেস্ক রিপোর্ট

২০ জুলাই ২০২২, দুপুর ৩:৫৪ সময়

[ 20220720_155238.jpg ]

অসাধারণ, দুর্দান্ত, অবিশ্বাস্য এক জয়ের দেখা পেল পাকিস্তান। গল টেস্টে স্বাগতিকদের পাহাড়সম রানের চাপে পড়ে ঘনঘন রঙ বদলানো ম্যাচটি ইতিহাস গড়েই জিতল সফরকারীরা। পাকিস্তানের ঐতিহাসিক জয়ের পিছনের কারিগর তরুণ আব্দুল্লাহ শফিকের বুক চিতিয়ে লড়াই। 

আজ (বুধবার) দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে পঞ্চম দিনে শ্রীলঙ্কাকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে পাকিস্তান। দ্বিতীয় ইনিংসে স্বাগতিকদের দেওয়া ৩৪২ রানের বিশাল লক্ষ্যে চার উইকেট হাতে রেখেই ছুয়ে ফেলে বাবর আজমের দল। 

প্রথম ইনিংসে অবিশ্বাস্য এক সেঞ্চুরি করে ধ্বংসস্তুপ থেকে দলকে বাঁচান পাক অধিনায়ক, দ্বিতীয় ইনিংসেও খেলেন অর্ধশত রানের ইনিংস। কিন্তু, গল টেস্টে পঞ্চম দিনের পুরোটা সময় লাইমলাইট নিজের কাছেই ধরে রাখেন আব্দুল্লাহ শফিক। ২২ বছর বয়সী এ ব্যাটারের চোখধাঁধানো অপরাজিত ১৬০ রানের ইনিংসেই পাকিস্তান পায় কাঙ্খিত জয়ের দেখা। 

গল দুর্গে চতুর্থ ইনিংসে এটাই সর্বোচ্চ রান করার রেকর্ড। তাছাড়া, ঐতিহাসিক এই মাঠে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডও গড়লো বাবর আজমের দল।

গলে সর্বোচ্চ ২৬৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করে শ্রীলঙ্কা ২০১৯ সালে জিতেছিল নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে। আর সফরকারী দল হিসেবে সর্বোচ্চ ১৬৪ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ইংল্যান্ডের, ২০২১ সালে। একশর বেশি রান তাড়ায় জয় নেই আর কারও। পাকিস্তান জিতল ৩৪২ রান তাড়া করে। নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জিতল বাবর-শফিকরা।

গলে স্বাগতিকদের দেওয়া ৩৪২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে ৩ উইকেটে ২২২ রান তুলে ফেলেছিল পাকিস্তান। শেষদিন বাকি ১২০ রান তুলতে মাঠে নামেন শফিক ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। ৪০ রান করে প্রভাত জয়সুরিয়ার বলে ফেরেন রিজওয়ান। এরপর ১২ রান করে জয়সুরিয়ার বলে মাঠ ছাড়েন আঘা সালমানও।

এরপরই দ্রুত রান তোলার লক্ষ্যে হাসান আলীকে নামিয়ে দেয় পাকিস্তান। তবে হাসান মাত্র ৫ রান করে আউট হয়ে যান। জমে উঠে খেলা। এবার মোহাম্মদ নওয়াজকে নিয়ে জয়ের পথে ছুটেন শফিক। এরই মাঝে বৃষ্টির হানায় বন্ধ হয়ে ম্যাচ। পাকিস্তান তখন জয় থেকে মাত্র ১১ রান দূরে। চিন্তার ভাজ পড়ে পাকিস্তান শিবিরে। 

বৃষ্টি বন্ধ হলে ৪০ মিনিট পর ফের খেলা আরম্ভ হয়। এবার আর দেরি করেনি পাকিস্তান। নওয়াজকে নিয়ে দ্রুতই জয় নিশ্চিত করে ফেলেন তরুণ আব্দুল্লাহ শফিক। মোহাম্মদ নওয়াজ ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন। আব্দুল্লাহ শফিক ক্যারিয়ার সেরা ১৬০ রানে অপরাজিত থাকেন। ম্যাচসেরাও হয়েছেন তিনি। 

প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কার হয়ে ৫ উইকেট নেওয়া প্রভাত জয়সুরিয়া এবারও নিয়েছেন ৪ উইকেট। আর এক উইকেটের জন্য অভিষেকের পর টানা চার ইনিংসে পাঁচ উইকেট পাওয়া প্রথম বোলার হলেন না ৩০ বছর বয়সী প্রভাত জয়সুরিয়া।