ক্রিকেট > আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

‘ক্লান্তিকর ও একঘেয়ে’ ওয়ানডে ক্রিকেটকে বাদ দেওয়ার পরামর্শ ওয়াসিম আকরামের

কিংবদন্তি এই পেসারের মতে, ওয়ানডে ক্রিকেট মরে গেছে।

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ জুলাই ২০২২, বিকাল ৬:৩৯ সময়

[ 20220721_183431.jpg ]

বিশ্বব্যাপী হুরহুর করেই বাড়ছে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের চাহিদা। ভারতের আইপিএল-এর অনুকরণ করে এখন আইসিসির টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়া অধিকাংশ দেশই ফ্রঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করা শুরু করছে। সর্বশেষ এই তালিকায় নাম লেখিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাও। 

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের এমন উম্মাদনায় একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ভবিষ্যত অনিশ্চিয়তার মুখে পড়েছে। ক্রিকেটের অনেক সাবেক কিংবদন্তিই এখন ওয়ানডে ক্রিকেটের এই সংস্করণটি বাতিলের পরামর্শ দিচ্ছেন। 

সম্প্রতি ওয়ানডেতে ক্রিকেটের এমন হালচাল নিয়ে কথা বলেছেন পাকিস্তানের ওয়াসিম আকরাম। ১৯৯২ ক্রিকেট বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম এই সদস্য ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে অন্যতম সেরা বোলারও। 

ক্রিকেটের এই সংস্করণে ৫০০ উইকেট নেওয়া মাত্র দুই বোলারের একজন তিনি। কিংবদন্তি বাঁহাতি পেসারের উইকেট সংখ্যা মোট ৫০২টি। তার চেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেছেন শুধু মুত্তিয়া মুরালিধরনের, ৫৩৪টি।

একদিনের ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা এই বোলারও এবার সংস্করণটি বাতিলের পক্ষে নিজের মত দিয়েছেন। ওয়াসিম আকরামের দাবি, বর্তমান যুগে ওয়ানডে ক্রিকেট নিয়ে মানুষের আগ্রহ কমছে। এমনকি ক্রিকেটাররাও সংস্করণটি আর আগের মতোই নিবেদন দিয়ে খেলছে না। গতকাল (বুধবার) ভনি অ্যান্ড টাফার্স ক্রিকেট ক্লাব পডকাস্টে নিজের কথা বলেন তিনি।

“ওয়ানডে ক্রিকেটটা ক্রিকেটারদের জন্য খুব ক্লান্তিকর হয়ে পড়েছে। টি–টোয়েন্টি ক্রিকেটের এই যুগে মনে হচ্ছে ওয়ানডে ক্রিকেট এখন অতীত যুগের ব্যাপার। ক্রিকেটাররা এখন টেস্ট আর টি–টোয়েন্টি সংস্করণেই বেশি মনোযোগ দিচ্ছে। ওয়ানডে ক্রিকেট আমার মতে বিলুপ্তির পথেই।’

“আমার মনে হয় (ওয়ানডে ক্রিকেট বাদ দেওয়া উচিত)। ইংল্যান্ডে (ওয়ানডে ম্যাচের সময়) স্টেডিয়াম দর্শকে পূর্ণ থাকে। ভারত, পাকিস্তান, বিশেষ করে শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকায় ওয়ানডে ম্যাচে স্টেডিয়াম দর্শকে ঠাসা দেখা যায় না।”

“খেলতে হবে, স্রেফ একারণেই খেলছে ক্রিকেটাররা। প্রথম ১০ ওভার পর অবস্থা হয়, ‘ঠিক আছে, এখন কেবল বল প্রতি রান করি, একটি বাউন্ডারি মারি, চারজন ফিল্ডার ৩০ গজ বৃত্তের মধ্যে আছে, ৪০ ওভারে ২০০-২২০ রানের সংগ্রহ গড়ি।’ শেষ ১০ ওভারে চড়াও হয়ে আরও ১০০ রান করে দলগুলো। পুরোটাই একঘেয়ে একটা ব্যাপার।”

ওয়াসিম আকরামের মতে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটই হচ্ছে আধুনিক ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ সংস্করণ। ভবিষ্যত ক্রিকেটের জন্য টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট ক্রিকেট এই দুটো সংস্করণ যথেষ্ট মনে করেন তিনি। ১৯৯২ বিশ্বকাপের ফাইনালে ম্যাচসেরা এই পেসার বলেন,

“টি-টোয়েন্টি সংস্করণ সহজ, চার ঘণ্টায় ম্যাচ শেষ। বিশ্ব জুড়ে লিগগুলোয় অনেক অর্থ পাওয়া যায়। আমি মনে করি, এটিই এখন আধুনিক ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ সংস্করণ। টি-টোয়েন্টি বা টেস্ট ক্রিকেট। ওয়ানডে ক্রিকেট মরে যাচ্ছে।”