ক্রিকেট > আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

বাবর আজমের মতে, ‘শফিক একদিন বিশ্বসেরাদের একজন হতে পারে’

পাকিস্তানের তরুণ তুর্কি নিয়ে আশাবাদী বাবর।

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ জুলাই ২০২২, দুপুর ১২:২ সময়

[ 20220721_115739.jpg ]

গল টেস্টে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানকে একাই ম্যাচে রাখেন বাবর আজম। লঙ্কান স্পিনার প্রভাত জয়সুরিয়ার ঘূর্ণিতে যখন সবাই কুপোকাত হয়; পাক অধিনায়ক ১১৯ রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলে সফরকারীদের খাদের কিনারা থেকে তুলে আনেন। 

দ্বিতীয় ইনিংসেও শ্রীলঙ্কার রেকর্ড ৩৪২ রানের লক্ষ্যে  দারুণ ছিলেন বাবর। তবে, এবার পাক তারকা ব্যাটারকে ছাড়িয়ে পুরো লাইমলাইট নিজের কাছে নিয়ে আসেন ওপেনার আব্দুল্লাহ শফিক। 

লঙ্কানদের পাহাড়সম রানের লক্ষ্যে ২২ বছর বয়সী ওপেনারের ক্যারিয়ারসেরা ১৬০ রানের ম্যারাথন ইনিংসের উপর ভর করেই টপকায় পাকিস্তান। দুর্দান্ত এই ইনিংসে রেকর্ডবুকের পাতাও এলোমেলো দেন তরুণ এই ব্যাটার।

গলে পাকিস্তানের জয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে শফিক ব্যাট করেছেন মোট ৫২৪ মিনিট অর্থাৎ, ৮ ঘণ্টা ৪৪ মিনিট। টেস্ট ক্রিকেটে রান তাড়ার ক্ষেত্রে এটাই সর্বোচ্চ। এর আগে ১৯৯৮ সালে শ্রীলঙ্কান গ্রেট অরবিন্দ ডি সিল্ভা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অপরাজিত ১৪৩ রান করেছিলেন ৪৬০ মিনিট ক্রিজে টিকে থেকে যা এখন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। 

২২ বছর বয়সী এই ব্যাটার দ্বিতীয় ইনিংসে মোট বল খেলেছেন ৪০৮ টি। টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসের পঞ্চম ব্যাটার হিসেবে ৪০০+ বল খেলার কীর্তি গড়েছেন তিনি। আর সফল রান তাড়ার ক্ষেত্রে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বল খেলার রেকর্ড এটি। ১৯২৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারবার্ট সাটক্লিফ ১৩৫ রান করেছিলেন ৪৬২ বল মোকাবেলা করে। 

সফল রান তাড়ায় ইতিহাসের মাত্র ২ জন ওপেনার ব্যাটসম্যানই শফিকের থেকে বেশি রান সংগ্রহ করতে পেরেছেন। ১৯৮৪ সালে লর্ডসে গর্ডন গ্রিনিজ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২১৪ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। এবং ১৯৪৮ সালে আর্থার মরিস লিডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৮২ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। 

প্রথম ছয় টেস্ট খেলে শফিক সংগ্রহ করেছেন ৭২০ রান। ইতিহাসের মাত্র ৩ জন ব্যাটসম্যানই প্রথম ছয় টেস্টে এর বেশি রান সংগ্রহ করতে পেরেছেন। সুনীল গাভাস্কার (৯১২) ডন ব্রাডম্যান (৮৬২) এবং জর্জ হেডলি (৭৩০)।

প্রায় হারতে বসা পাকিস্তানকে জয় এনে দেওয়া, দুর্দান্ত সব রেকর্ড এক ইনিংসেই- স্বভাবত প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন আব্দুল্লাহ শফিক। বাদ যাননি বাবর আজমও। ২২ বছর বয়সী এই ওপেনারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ তিনি। পাক অধিনায়কের আশা, একদিন বিশ্বসেরাদের একজন হতে পারবেন শফিক। 

“একজন তরুণ খেলোয়াড় যখন নিজের সামর্থ্য তুলে ধরতে চাইবে, তখন তাকে ভিন্ন ও কঠিন পরিস্থিতিতে পারফর্ম করতে হবে। সে তার মান ও টেম্পারমেন্ট এবং আত্মবিশ্বাস দেখিয়েছে এই ইনিংসে। মানসম্পন্ন বোলিংয়ের বিপক্ষে এমন ব্যাটিং তার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে।”

“সে যেভাবে খেলে তা খুবই নিখুঁত এবং সে যেভাবে মনোযোগ ধরে রাখে তা স্পষ্ট করে দেয় যে, আরও (সেঞ্চুরি) আসছে। যদিও সে মাত্র ছয়টি ম্যাচ খেলেছে এবং (এই মুহূর্তে তাকে বিশ্বের সেরা ওপেনার) বললে সেটা খুব তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে। তবে আমি মনে করি এবং আশা করি খেলোয়াড় হিসেবে সে সেরাদের একজন হতে পারে।”