ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

ম্যারাডোনার বিখ্যাত সেই বাম পা ‘উপহার’ পেলেন ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্টও!

আর্জেন্টিনার ছিয়াশি বিশ্বকাপের মহানায়কের বাঁপায়ের উপহার পেয়ে আনন্দিত বন্ধু মাদুরোও।

ডেস্ক রিপোর্ট

২৩ জুলাই ২০২২, দুপুর ১:২০ সময়

[ Screenshot_20220723-131449_Chrome.jpg ]

বিপ্লবী চে গুয়েবার ছিলেন আদর্শ। রাজনৈতিক জীবনে প্রয়াত কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা ছিলেন প্রচন্ড বামঘেষা লোক। তাই, বিশ্বের অনেক বামপন্থী নেতার সঙ্গেই সখ্যতা গড়েছেন আর্জেন্টিনার ছিয়াশি বিশ্বকাপের মহানায়ক। তাদের মধ্যেই আছেন নিকোলাস মাদুরোর নামও। 

ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে গভীর বন্ধুত্ব ছিলো দিয়েগো ম্যারাডোনার। দুই বছর আগে রাজনৈতিক সংকটে পড়ে যখন ভেনেজুয়েলায় সরকারবিরোধী আন্দোলন হয় তখন মাদুরোকে সমর্থন করতে ছুটে যান ফুটবলের সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলারও।

২০২০ সালে ২৫ নভেম্বর হঠাৎই হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান দিয়েগো ম্যারাডোনা। মারা যাওয়ার দুই বছর পর আর্জেন্টিনার ছিয়াশি বিশ্বকাপের মহানায়কের একটি স্মৃতি উপহার পেলেন ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকো লাস মাদুরো। কিংবদন্তি এই ফুটবলারের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করা স্টিফেন কেকি মাদুরোকে উপহারটি দিয়েছেন।

খেলোয়াড়ি জীবনে বাঁপায়ের জাদুতেই গোটা বিশ্বকে মুগ্ধ রেখেছিলে ম্যারাডোনা। এই পাঁয়েই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে করেছিলেন ‘শতাব্দীর সেরা গোলটি’। মারা যাওয়ার বছর দুয়েকআগে  বুয়েনস এইরেসে এসে ম্যারাডোনা পায়ের ডিজিটাল ছাপ তুলিয়েছিলেন।

সেখান থেকেই ব্রোঞ্জ দিয়ে সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলারের বিখ্যাত বা পাঁয়ের ত্রিমাত্রিক রেপ্লিকা বানান বন্ধু কেকি। রেপ্লিকার সঙ্গে ম্যারাডোনার সই এবং তাঁর ক্যারিয়ার বিবরণী নিয়ে একটি সোনার ফলকও যুক্ত করেন তিনি। মূলত, ফুটবলে ম্যারাডোনার অবদান ছড়িয়ে দিতেই এই পরিকল্পনা করেন কেকি।

দিয়েগো ম্যারাডোনার ম্যানেজার এবং বন্ধু কেকে তাঁরই অংশ হিসেবে এবার ভেনেজুয়েলা সফর করেছেন। সেখানেই কারাকাসের মিরাফ্লোরেসে প্রেসিডেনশিয়াল প্যালেসে প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে ম্যারাডোনা কীর্তিগাথা বাঁপায়ের রেপ্লিকাটি উপহার দিয়েছেন। 

টুইটারে নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নিকোলাস মাদুরো। ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট আবারও দিয়েগো ম্যারাডোনাকে স্মরণ করেছেন এবং তাঁর স্মৃতিগাথা রেপ্লিকাটি উপহার পেয়ে কেকিকে ধন্যবাদ জানিয়েছে।

“ম্যারাডোনার বন্ধু এবং তার ম্যানেজার স্টিফেন কেকির সঙ্গে সাক্ষাৎটা আনন্দদায়ক ছিল। সোনালি সন্তানের (ম্যারাডোনার) বাঁ পায়ের রেপ্লিকাটি দেওয়ার জন্য তাকে ধন্যবাদ। তার খেলা, সামাজিক সমস্যায় ভোগা, ভেনেজুয়েলার প্রতি ভালোবাসা—এসব নিয়ে প্রচুর স্মৃতি আছে। ডিয়েগো চিরকালীন!”