ফুটবল > বাংলাদেশ ফুটবল

ইতিহাস গড়ে বিপিএলে হ্যাট্রিক চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস

দুই ম্যাচ হাতে রেখেই প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা নিশ্চিত করল অস্কার ব্রুজনের দল।

ডেস্ক রিপোর্ট

১৮ জুলাই ২০২২, রাত ৮:২০ সময়

[ IMG-20220718-WA0004.jpg ]
সংগৃহীত

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে উত্তীর্ণ হওয়ার পর টানা তিন আসরে শিরোপা জিতে লিগে হ্যাট্রিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করলো বসুন্ধরা কিংস। 

এক ম্যাচ জিতলেই লিগের হ্যাট্রিক শিরোপা জিতবে এমন সমীকরণ সামনে নিয়ে আজ মুন্সিগঞ্জের বীরশ্রেষ্ঠ ফ্লাইট লে. মতিউর রহমান স্টেডিয়ামে সাইফ স্পোর্টিংয়ের মুখোমুখি হয় বসুন্ধরা কিংস।

‘কর্পোরেট ডার্বি’ খ্যাত ম্যাচটিতে সাইফ স্পোর্টিংকে ২-০ গোলে হারিয়ে লিগে হ্যাট্রিক শিরোপা নিশ্চিত করেন অস্কার ব্রুজনের শিষ্যরা। স্প্যানিশ এই কোচের হাত ধরে ৩টি প্রিমিয়ার লিগ, ২টি ফেডারেশন কাপ ও একটি স্বাধীনতা কাপ'সহ মোট ছয়টি শিরোপা জিতলো দলটি।

সাইফের বিপক্ষে আজকের ম্যাচের শুরুর একাদশে ছিলেন না কিংসের সেরা খেলোয়াড় রবসন, ছিলেন না করোনা ভাইরাস থেকে সদ্য সুস্থ হওয়া খালিদ শাফিঈ। তবে, বসুন্ধরার দু'জন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় না থাকার সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি সাইফ স্পোর্টিং। শুরু থেকে দু'দলই কয়েকটি সুযোগ তৈরি করলেও গোলের দেখা মেলেনি। 

ম্যাচের ২৭তম মিনিটে বসুন্ধরা কিংসকে এগিয়ে দেন রবসনের জায়গায় সুযোগ পাওয়া মতিন মিয়া। বক্সের মধ্যে বল পেয়ে ঠান্ডা মাথায় বল জালে জড়ান এই দেশি স্ট্রাইকার। লিড নেওয়ার দশ মিনিট পর প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়কে ফাইল করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন বসুন্ধরা কিংসের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় ইয়াসিন আরাফাত।  

দ্বিতীয়ার্ধের খেলায় সমতায় ফিরতে মরিয়া হয়ে উঠে জামাল ভূঁইয়ার সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। কিন্তু একের পর এক আক্রমণের পরও কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পাচ্ছিল না পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে থাকা ক্লাবটি। উল্টো ম্যাচের ৮১তম মিনিটে আরও একটি গোল হজম করে বসে সাইফ। কিংসের হয়ে  দ্বিতীয় এবং জয় সূচক গোলটি করেন বিপলু আহমেদ। 

এর আগে টানা তিন লীগ শিরোপা জিতে আবাহনীর ২০০৭, ২০০৮-০৯ ও ২০০৯-১০ মৌসুমে হ্যাট্রিক শিরোপা জয়ের রের্কডে ভাগ বসালো বসুন্ধরা কিংস। তবে, প্রথমবার দেশের শীর্ষ ঘরোয়া লীগে খেলতে এসেই টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রেকর্ডটি এখন শুধুই কিংসের দখলে।