ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

ক্রিকেটাররা ‘স্বার্থপরের মতো’ খেলায় চটেছেন সুজন!

জিম্বাবুয়ের কাছে লজ্জার হারের জন্য ক্রিকেটারদের ‘দায়ী’ করলেন বিসিবি পরিচালক।

ডেস্ক রিপোর্ট

৩ আগস্ট ২০২২, রাত ৮:৮ সময়

[ received_2821561754819116.jpeg ]

অধিনায়ক, ওপেনিং জুটি, ভেন্যু, প্রতিপক্ষ বদলালেও ভাগ্য বদলায়নি বাংলাদেশের। বিশ্বকাপের পর টানা তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভরাডুবির পর নিজেদের সবচেয়ে চেনা প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও সিরিজ হেরেছে টাইগাররা।

গতকাল (মঙ্গলবার) হারারেতে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে জিম্বাবুয়ের কাছে ১০ রানে হারে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের দল। টসে জিতে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেটে ১৫৬ রান সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভার ব্যাট করে ১৪৬ রানেই থেমে যায় টাইগারদের ইনিংস।

২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে জিম্বাবুয়ে। আর ঘরে-বাইরে মিলিয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে যে কোনো সংস্করণের ক্রিকেটে ২০১৩ সালের পর এই প্রথম সিরিজ জিতল দলটি। এবারই প্রথম দলটির বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারে তেতো স্বাদ পেল টাইগাররা।

জিম্বাবুয়েতে প্রথম ম্যাচ হারের পর দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু, তৃতীয় ম্যাচে শেষদিকে ছন্নছাড়া বোলিং আর দিশাহীন ব্যাটিংয়েই তুলনামূলক কম শক্তিশালী দলটির বিপক্ষে সিরিজ হারের কলঙ্ক লাগল সফরকারীদের। 

শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের হারে অনেকেই নাসুম আহমেদের ৩৪ রান দেওয়া ওই এক ওভারকেই দায়ী করেছে। তবে, শুধুই নাসুম আহমেদ নয়। ১৫৬ রানের মাঝারি লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অতি চেনা ও সবচেয়ে প্রিয় প্রতিপক্ষের বিপক্ষেও বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ও ছিলো বেশ দৃষ্টিকটু। 

বিশেষ করে, এনামুল হক বিজয়ের ১৩ বলে ১৪, নাজমুল হোসেন শান্তর ২০ বলে ১৬ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ২৭ বলে ২৭ রানের টি-টোয়েন্টি বিরুদ্ধ ইনিংসগুলি নিয়ে কথা হচ্ছে বেশিই। মূলত, এই কয়েকজনের মন্থরগতির ইনিংসের কারণেই শেখ মেহেদীর ১৭ বলে ২২ ও আফিফ হোসেনের ২৭ বলে ৩৯ রানের ইনিংসেও হার এড়াতে পারেনি সফরকারীরা। 

পুরো বিষয়টি নিয়েই ‘বিরক্ত’ খালেদ মাহমুদ সুজন। বিসিবির পরিচালকও জিম্বাবুয়ের কাছে হারের জন্যে খেলোয়াড়দের স্বার্থপরতাকেই দায়ী করলেন। আজ (বুধবার) জিম্বাবুয়েতে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের উপর রীতিমতো ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। 

“আমি খুব হতাশ। আমরা বারবার বলি নিজেদের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে। কিন্তু আমরা কবে সে শিক্ষাটা নেব। আমি পুরোপুরি ক্রিকেটারদের দোষ দেব। তাদের প্রয়োগ সম্পূর্ণ ভুল ছিল।”

“এখানে আমাদের জেতাটাই স্বাভাবিক ছিল। হারটা ছিল অস্বাভাবিক। আমরা জানি যে ওভারে আমাদের ১০-১২ করে লাগবে। কেউ দেখলাম না যে একটা ছয় মারার চেষ্টা করছে। সবাই ২-১ করে নিচ্ছে। আমি একটা স্কোর করে নিজের জায়গাটা ঠিক রাখলাম, এটা কি ওই ধরনের কিছু কি না, আমি ঠিক জানি না।”