ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়দের ‘তথ্য চুরিতে’ ভেস্তে যাওয়া ম্যাচটি খেলতে চায় না ব্রাজিল!

মেসিদের বিপক্ষে খেলতে চায় না সেলেসাওরা।

ডেস্ক রিপোর্ট

১২ আগস্ট ২০২২, রাত ১২:১৭ সময়

[ Screenshot_20220812-001349_Chrome.jpg ]

ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা দুদলই ইতিমধ্যে বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করে ফেলেছে। বলা যায় অর্থহীন একটা ম্যাচই। জয়-পরাজয়ে কারও তেমন কিছু পাওয়ার নেই, বরং ম্যাচ থেকে হারানোর আছে অনেক কিছুই। 

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ব্রাজিলের মাটিতে ‘তথ্য গোপন’ করে আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়রা খেলতে নামায় ভেস্তে যাওয়া ম্যাচটি নিয়ে নাটক যেন শেষই হচ্ছে না। ফিফা যেকোন মূল্যেই ম্যাচটি পুনরায় আয়োজন করার চেষ্টা চালালেও কোনভাবেই আর ম্যাচটি খেলতে রাজি নয় দুই দলের কেউই। 

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের সবকটি ম্যাচই ফুটবল বিশ্বকাপের সঙ্গে সম্পর্কিত। এই প্রতিযোগিতায় কার্ডজনিত সমস্যা থাকলে বিশ্বকাপের মূলপর্বেও তা বিদ্যামান থাকবে। মূ লত, এই ভয়টিই কাজ করছে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা দুই দলের মধ্যেই। 

বিশ্বকাপের আগে আর কোন ঝুঁকিই নিতে চাচ্ছে না দল দুটি। তাছাড়া, চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুদলের উত্তেজনাময় খেলায় খেলোয়াড়দের চোটের কথাও খেয়াল করেছে তারা। ব্রাজিল সরাসরিই জানিয়ে দিয়েছে ম্যাচটি তারা খেলতে চায় না।

ব্রাজিলিয়ান সংবাদমাধ্যম গ্লোব জানিয়েছে, বিশ্বকাপে আগে ব্রাজিল আর কোন ঝুঁকি নিতে চায় না। কাতারে যাওয়ার আগে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই খেলার চেয়ে ইউরোপের যেকোন দলের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলাটা প্রাধান্য দিচ্ছে দলটি। এই জন্য, ব্রাজিল ফুটবল ফেডারেশন ফিফাকে অবহিত করেও রেখেছে। সিবিএফ সভাপতি এদনালদো বলেছেন,

“আমরা ফিফার সঙ্গে যোগাযোগ করব যেন ম্যাচটি না হয়। আমাদের কোচিং স্টাফদের অনুরোধ রাখতে আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। কাতার বিশ্বকাপ জেতাই আমাদের মূল লক্ষ্য। সেলেসাও কোচিং স্টাফরা যদি ম্যাচটি খেলার ব্যাপারে সুপারিশ না করে, তবে সেটা যেন না হয়, আমরা সেই চেষ্টা করব।”

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে সাও পাওলোতে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার মধ্যেকার ম্যাচটি মাঠে গড়ানোর মিনিট পাঁচেক পরই বন্ধ করে দিতে হয়। ইংল্যান্ডের ক্লাবে খেলা চার আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় ব্রাজিলে ঢোকার ক্ষেত্রে করোনাসংক্রান্ত তথ্য গোপন করেছেন, এই অভিযোগে সাও পাওলোর স্বাস্থ্যবিষয়ক সংস্থার (আনভিসা) কর্মকর্তারা মাঠে ঢুকে পড়েন। নানা নাটকীয়তা শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি স্থগিত হয়ে যায়।

ওই ঘটনায় ব্রাজিল দলকে অর্থদন্ড দেয় ফিফা। আর আর্জেন্টিনার বিতর্কিত চার ফুটবলারকে নিষিদ্ধ করে করে সংস্থাটি। ম্যাচটি পুনরায় আয়োজনের ঘোষণা দেয় ফিফা।

কিন্তু, তাতে আপত্তি জানিয়ে দুই দেশই ফিফা আপিল কমিটিতে আবেদন করে। সেখানে হেরে ক্রীড়ার সর্বোচ্চ আদালতে গেছে তারা। চলতি মাসের শেষে যার চূড়ান্ত রায় হওয়ার কথা।