ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

‘এটাই সাকিবের শেষ সুযোগ, এরপর আর ছাড় নেই’

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারকে কড়া নজরদারিতে রাখার কথাও জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি পাপন।

ডেস্ক রিপোর্ট

১২ আগস্ট ২০২২, সকাল ৯:৪৯ সময়

[ Screenshot_20220812-094451_Chrome.jpg ]

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘ব্যাড বয়’ সাকিব আল হাসান। দেশের সেরা ক্রিকেটার হওয়ায় নিয়মকানুনে তোয়াক্কা না করে বারবার বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন এই বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার।  

কখনো সতীর্থদের সঙ্গে বাজে আচরণ, কখনো মিডিয়া ও দর্শকদের সঙ্গে, কখনও জুয়াড়িদের সঙ্গে গোপনে কথা বলে, বোর্ডের নিয়ম ভেঙেও শাস্তি পেয়েছেন কয়েকবার। সবশেষ বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন অনলাইন জুয়াড়ি প্রতিষ্ঠান বেটউইনারের সঙ্গে চুক্তি করে।

সম্প্রতি, বেটউইনার নিউজ পোর্টালের পণ্যদূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হোন সাকিব আল হাসান। বেটউইনার ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত অনলাইন বেটিং কোম্পানি। ক্রিকেট ফুটবলসহ বেশ কয়েক ধরনের খেলায় বাজি ধরা যায় এই সাইটের মাধ্যমে। বেটউইনার নিউজ এই প্রতিষ্ঠানেরই সারোগেট প্রতিষ্ঠান। 

বাংলাদেশের আইনে জুয়া নিষিদ্ধ। এমনকি, জুয়া নিয়ে বিসিবিরও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। স্বভাবতই, বেটউইনারে সঙ্গে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের এই চুক্তিটি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ভালোভাবে নেয়নি। 

বিসিবি শুরু থেকেই বলেছিল, চুক্তি বাতিল করতে হবে সাকিবকে। নাহয় দলের সেরা তারকাকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকেও বাদ দেওয়ার হুমকি দেয় বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। 

যদিও শুরুতে বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার চুক্তি থেকে সরে না আসার সিদ্ধান্তে ছিলেন অনড়। তবে, শেষ পর্যন্ত বিসিবির কঠোর অবস্থানে নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন। জানিয়েছেন বাতিল করছেন চুক্তি।

সাকিব বেটউইনারের সঙ্গে চুক্তি থেকে সরে আসায় এখন বিসিবির অনেকটাই মন গলেছে। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের এশিয়া কাপে যাওয়া নিয়ে যে শঙ্কার মেঘ দেখা গিয়েছিলো, তাও যেন কিছুটা কেটেছে। 

যদিও এটাই হচ্ছে সাকিবের শেষ সুযোগ। ক্যারিয়ারের বহুবারই বিতর্কের জন্ম দেওয়া সাকিব আল হাসানকে এরপর আর কোনরকম ছাড় দিবে না বিসিবি। দেশের একটি দৈনিক পত্রিকায় দেওয়া সাক্ষাৎকারে সাফ এই কথা জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এসময় সাকিবকে কড়া নজরদারিতে রাখার কথাও জানান তিনি।

“এবার হয়তো ওকে বেনিফিট অব ডাউট দেব। তবে আপনাকে এটা বলে দিতে পারি, এটাই হবে ওর জন্য শেষ সুযোগ। ওকে অবশ্যই কড়া নজরদারিতে রাখা হবে। ভবিষ্যতে এমন কিছু হলে আমি কারও সঙ্গে আর আলাপ করব না। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলব। আমি ব্যক্তিগতভাবে চাই, আমাদের সিনিয়র প্লেয়ার যারা আছে, তারা ভালোভাবে শেষ করুক। তাই বলে বারবার তাদের সুযোগ দেওয়া হবে না।”

টেস্ট ক্রিকেটে ব্যর্থতায় মাহমুদউল্লাহ মমিনুল হককে সরিয়ে সাকিব আল হাসানকে অধিনায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এবার, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেরও দায়িত্ব পাওয়ার কথা ছিলো বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের। এমনকি, এবারের এশিয়া কাপেই টাইগারদের নেতৃত্ব দেওয়ার কথা ছিলো সাকিবের। তবে, এই বেটউইনার- কান্ডে বড় ধাক্কা খেলেন সাকিব। চুক্তি বাতিল করলেও এখনই সাকিবকে টি-টোয়েন্টির অধিনায়ক বানানোর স্বীদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেনি বিসিবি।

“এখনই চূড়ান্ত কিছু বলতে চাইছি না। সাকিব ১২ তারিখ (আজ) রাতে দেশে আসছে। ১৩ তারিখ সকালে ওর সঙ্গে বসব। টেলিফোনে তো আর এত কথা বলা যায় না। সামনাসামনি বসে ওর সঙ্গে কথা বলব।”