ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

ডমিঙ্গো হটাও নীতিতে হাঁটছে বিসিবি!

জেমি সিডন্স অধ্যায় দ্বিতীয়বারের মত শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ?

ওয়াহেদ মুরাদ

১৯ আগস্ট ২০২২, রাত ১২:৫৬ সময়

[ IMG-20220226-WA0009.jpg ]

জেমি সিডন্স বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ হিসেবে আসবার পরই বিসিবির একজন উচ্চ কর্তা হাসির ছলে বলছিলেন, জেমি আসলে ডোমিঙ্গোর মেয়াদ খুব বেশিদিন নাও থাকতে পারে। সিডন্স এর বাংলাদেশের কোচ হবার অতীত ইতিহাসও সেই ‍উচ্চ কর্তার কথার পালেই সমর্থন দিবে। এর আগেও টেকনিক্যাল কোচ থেকে প্রধান কোচ হয়েছিলেণ তিনি। সেই পুনরাবৃত্তির আশংকা আবারও পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশের ক্রিকেটে। 

বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে ডমিঙ্গোকে নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব খুবই কম। কিন্তু জেমি সিডন্সকে নিয়ে ক্রিকেটারদের মুগ্ধতার গল্প নতুন না। যেই মাশরাফিকে ২০১১ বিশ্বকাপ থেকে বাদ দিয়েছিলেন সিডন্স, সেই মাশরাফিই বেশ কয়েকবার লাইভে সিডন্স বন্দনা শুনিয়েছেন। তামিম-সাকিবদের বিশ্বমানের করে তুলতে সবথেকে বড় ভূমিকা এই সিডন্সেরই। সেই তুলনায় ডমিঙ্গোকে নিয়ে শোনা যায় খুবই কম। 

টিটোয়েন্টিতে বাংলাদেশ দলের অবস্থা খুবই নাজুক। যেটা দিনকে দিন আরো খারাপই হচ্ছে। সাকিব আল হাসানকে অধিনায়ক করবার মাধ্যমে বিসিবি একটা যুদ্ধই ঘোষনা করেছে, যে যুদ্ধটা নিজেদের বাজে অবস্থার বিরুদ্ধে। বিভিন্ন মিডিয়ায় কথা বলার সময় বেশিরভাগ ক্রিকেটারই টিটোয়েন্টি ক্রিকেটে পাওয়ার হিটিং এর কথা বলে নিজেদের অপরাগতার বলে একপ্রকার আর্ত্নসমর্পনই করেছেন। 

বিষয়টিতে নজর গেছে বিসিবিরও। টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন সেদিন বলেছেন, “ আমার বিশ্বাসই হয়না যে আমাদের ছেলেরা ছক্কা মারতে পারেনা। ” এর আগে সংবাদসম্মেলনে সাকিব আল হাসানও বলেছেন, আমাদের ক্রিকেটারদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনা দরকার। ক্রিকেটার এহেম মানসিকভাবে পিছিয়ে পরবার দায়টা বর্তাচ্ছে প্রধান কোচের উপরও। 

আপাতত প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে ছাড়াই বাংলাদেশ দল যেতে পারে এশিয়া কাপে। প্রধান কোচের দ্বায়িত্ব পেতে পারেন জেমি। ঠিক আগের মত, সিডন্স যেন আস্তে আস্তে প্র্রধান কোচের পথেই হাঁটছেন। বিসিবি সভাপতি ১৮ আগস্ট আভাস দিয়েছেন তেমনই। পাপন বলেন,  ‘টি-টোয়েন্টিতে আমরা শক্তিশালী নই। এটা নিয়ে কী করা যায়, ভাবতে গিয়ে আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এশিয়া কাপ থেকেই দলের মানসিকতা, চিন্তাভাবনা সবকিছু বদলে ফেলতে চাচ্ছি। আমরা দেখতে চাই নতুন করে শুরু করা যায় কি না।’

বলা হচ্ছে, এশিয়া কাপের পর ডমিঙ্গোকে শুধূ ওয়ানডে ক্রিকেটের দ্বায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। কিন্তু আদৌতে ঘটতে যাচ্ছে অন্য কিছূই। এশিয়া কাপে জেমি সিডন্সের কাজ পছন্দ হলে ডমিঙ্গোকে নিয়ে আর এগোনোর ইচ্ছে নেই বিসিবির। ডেইলি স্পোর্টসবিডিকে নাম প্রকাশ না করবার শর্তে এমনটাই বলেছেন বিসিবির একজন নীতিনির্ধারক। 

ডমিঙ্গোকে দেওয়া হতে পারে তখন জাতীয় দলের বাইরের কোন দ্বায়িত্বে। আপাতত সিডন্সকে নিয়ে যে পরিকল্পনা পাঁকা সেটা একরকম নিশ্চিতই করেছেন বিসিবি সভাপতি। তিনি বলেন, “ ‘কদিন আগে জেমি সিডন্স আমার বাসায় এসেছিল। কিছু বিষয় নিয়ে আমরা আলোচনা করছিলাম। যদি আমরা জিততে চাই বা ভালো করতে চাই টি-টোয়েন্টির ভাবনাটা পরিবর্তন করতে হবে। এটার কোনো বিকল্প নেই। ১৩০ করে তো ম্যাচ জিততে পারবেন না। আমাদের ১৮০-২০০ রান করতে হবে। এখন আমাদের পরিকল্পনায় সেটা করার কোনো লক্ষণই দেখছি না। নতুন কী করা যায়, এটা নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। তখন জেমি এসে বলল যে সেও নাকি এটাতে খুবই আগ্রহী।’

দুইয়ে দুইয়ে চার মিলে গেলে বিসিবি টিটোয়েন্টির জন্য আলাদা কোন ট্রেনার আনবার ব্যাপারে চিন্তা করছে বলেও জানা গেছে। বাংলা টাইগার্স বা জাতীয় দলের বাইরের ক্রিকেটারদের জন্যও বিশেষ পরিকল্পনা করছে বিসিবি।