ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

সুজনকে নিয়েই মূল সমস্যা ডোমিঙ্গোর

রাসেল ডোমিঙ্গোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড৷ কোড অব কন্ডাক্ট ভেঙেছেন বলে মন্তব্য অপারেশন্স চেয়ারম্যানের

ওয়াহেদ মুরাদ

২৪ আগস্ট ২০২২, রাত ১০:১০ সময়

[ IMG_20220824_220711.jpg ]

প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোকে নিয়ে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো মিডিয়ায় একটা সাক্ষাৎকারকে কেন্দ্র করে এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে ক্রিকেট বোর্ড। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের বিরুদ্ধে বেশ কিছু মন্তব্য করেছেন প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। 

ঠিক সেই মন্তব্যগুলো নিয়েই বিব্রত হয়ে অফিসিয়ালি মিডিয়ায় বিবৃতি দিয়েছেন বোর্ডের অপারেশন্স চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। জালাল ইউনুস ইতিমধ্যে সিইও নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজনকে রীতি অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। বিষয়টি জানানো হয়েছে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকেও। 

জালাল ইউনুস চৌধুরী সহ, বোর্ডের অপারেশন ডিরেক্টর, বোর্ড অফিসিয়ালদের বিরুদ্ধে দল পরিচালনায় হস্তক্ষেপের মত গুরুতর অভিযোগ এনেছেন প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। একইসাথে নির্বাচকদের উপর নিজের অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন তিনি। 

ক্রিকেটারদের সাথে ধমক দিয়ে কড়া শাসনের জন্য বোর্ড থেকে সবসময় চাপ দেওয়া হয় বলেও মন্তব্য করেছেন রাসেল ডোমিঙ্গো। তবে রাসেল ডোমিঙ্গোর মূল অসন্তোষের জায়গায় আছেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। বিসিবির টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে জড়িত একজন কর্তা নাম প্রকাশ না করবার শর্তে ডেইলি স্পোর্টসবিডিকে জানিয়েছেন, 

" মূলত রাসেলের সমস্যাটা সুজনকে নিয়ে। রাসেলের বিভিন্ন সিদ্ধান্তে সুজনের সাথে কিছুটা মত পার্থক্য থাকেই। সুজন কিছুটা আক্রমনাত্বক, ডোমিঙ্গো কিছুটা ডিফেন্সিভ - এছাড়া বিভিন্ন ক্রিকেটারদের ম্যানেজ করবার ক্ষেত্রে ডোমিঙ্গো তেমন পটু না। সুজন সেটা খুব ভালো করেই করতে পারেন। " 

" রাসেল যেগুলো বলেছে সবই দেখেছি। এগুলো পুরোপুরি মিথ্যা আসলে। এভাবে বোর্ড কখনোই প্রভাব খাটাই না৷ ক্রিকেটারদের সাথে কথা বললেই আপনারাও বুঝতে পারবেন। বরং উল্টো ক্রিকেটারদের অনেকেই রাসেল ডোমিঙ্গোর কাছ থেকে ঠিকঠাক ম্যাসেজ পাননা বলে আমি জানি। " 

এর আগেও খালেদ মাহমুদ সুজনকে দলের আশেপাশে দেখলে বিরক্ত বোধ করছেন রাসেল ডোমিঙ্গো। ক্ষোভে টিম ম্যানেজারের পদ ছাড়া থেকে শুরু করে মাঠেও তেমন আসতেন না খালেদ মাহমুদ সুজন।

এই সময়টাতেই ড্রেসিংরুমে অস্থিরতার আভাসে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড আবারো টিম ডিরেক্টর পদে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনায় ফিরিয়ে আনেন খালেদ মাহমুদকে। ক্রিকেটাররাও সুজনকে পছন্দ করেন অনেক। যে কারনেই বোর্ডও সুজনকে টিম ম্যানেজমেন্টে অন্তুর্ভুক্ত করেন। সুজনের প্রশংসা করেন বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ডও। সুজনকে ফাদার ফিগ্যার বলে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের আপনজন বলেও উদ্ধৃতি দেন ডোনাল্ড। 

যদিও খালেদ মাহমুদ সুজন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সবকিছু সিদ্ধান্ত নেবার ব্যাপারে প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোকে সম্পৃক্ত করতেন বলেও জানান বিসিবির ঐ কর্তা। তবে সুজনের দলে উপস্থিতিই ঠিক ইতিবাচকভাবে কখনোই মেনে নিতে পারেননি ডোমিঙ্গো। কোচ হয়ে আসবার পর প্রথমদিকে সুজনের দলে থাকার বিরোধিতাও করেছিলেন ডোমিঙ্গো

মূলত এরপর থেকেই জাতীয় দলে প্রভাব কমতে শুরু করে কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর। জানা গেছে একাদশ নির্বাচন থেকে শুরু করে অনেক সিদ্ধান্তই নেন খালেদ মাহমুদ সুজন যেখানে ডোমিঙ্গোর ভূমিকা আগের থেকে নিষ্ক্রিয় বেশি। ডোমিঙ্গোর শেষের শুরুটাও সেখানেই।