ফুটবল > আন্তর্জাতিক ফুটবল

জাপানকে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে প্রতিশোধ নিল স্পেন

জাপানকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপ জিতল স্পেন।

ডেস্ক রিপোর্ট

২৯ আগস্ট ২০২২, দুপুর ২:৪১ সময়

[ 20220829_143311.jpg ]

প্রমীলা অনুর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপের শিরোপাধারী ছিলো জাপান। প্রতিযোগিতার প্রথম আসরেই স্প্যানিশ মেয়েদের কাঁদিয়ে শিরোপা উল্লাসে মেতেছিলো এশিয়ার দেশটি। মেয়েদের অনুর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপের এবারের ফাইনালেও মুখোমুখি লড়ে দুদল। 

গতবার কাঁদলেও এবার হেসেছে স্পেনের মেয়েরা। জাপানকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে দলটি। একই সঙ্গে গতবার হারের প্রতিশোধও নেওয়া হলো স্প্যানিয়ার্ডদের। 

আজ (সোমবার) মেয়েদের অনুর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে সূর্যোদয়ের দেশটিকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে স্পেন। চ্যাম্পিয়ন দলটির হয়ে জোড়া গোল করেছেন পারালুয়েলো আরিয়েংগোনো। বাকি গোলটি করেছেন মারিয়া গাবারো। এশিয়ার দেশটির হয়ে একমাত্র গোলটি করেছেন সুজু আমানো। ২০১৮ সালের ফাইনালে জাপানের কাছে ঠিক একই ব্যবধানেই শিরোপা হাতছাড়া করেছিলো স্পেন।

কোস্টারিকার সান হোসের স্তাদিও নাসিওনালে গোটা ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিলো জাপানই। পুরো ম্যাচে ৫৮ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রাখে দল টি। গোলমুখে শটও বেশি নিয়েএক্সহে সূর্যোদয়ের দেশটি। পুরো ম্যাচে ১৫টি শট নিয়ে ৫টি লক্ষ্যে রাখে তারা। বিপরীতে, স্প্যানিশরা ৮ শটের ৫টি লক্ষ্যে রাখে। 

ফাইনালে জমজমাট লড়াইয়ে ম্যাচের মাত্র ১২ত মিনিটে স্পেন এগিয়ে যায়। দলকে এগিয়ে দেওয়া গোলটি করেছেন মারিয়া গাবারো। এরপর ৫ মিনিটের মধ্যে পারালুয়েলোর জোড়া গোলে ব্যবধান ৩–০ করে স্পেন। ২২তম মিনিটে প্রথম গোলটি করেন অসাধারণ একক নৈপুণ্যে। 

এ বছরই বার্সেলোনায় নাম লেখানো এই উইঙ্গার নিজের দ্বিতীয় গোলটি ২৭তম মিনিটে করেন পেনাল্টি থেকে। প্রথমার্ধেই ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় স্পেন। 

বিরতির পর ম্যাচে ফিরতে আক্রমণের ধার বাড়ায় জাপাম। দ্রুত গোলও পেয়ে যায় তারা। ম্যাচের ৪৭তম মিনিটে ব্যবধান কমানো গোলটি করেন সুজু আমানো। বাকি সময় আর চেষ্টা করেও জালের দেখা পায়নি কোন দল। ফলে ৩-১ গোলের জয়ে শিরোপা উল্লাস করেছে স্পেন। 

ফাইনালে হারলেও গোটা আসরে দুর্দান্ত খেলে আসর সেরা হয়েছেন জাপানের ফরোয়ার্ড মাইকা হামানো। অবশ্য, আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কারটি গেছে স্পেনের ঘরে।

টুর্নামেন্টে সর্বাধিক ৮ গোল করেছেন টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা স্পেনের গাবারো। ১২ বছরের মধ্যে এই প্রথম কোনো খেলোয়াড় অনূর্ধ্ব–২০ নারী বিশ্বকাপের এক আসরে সাত গোলের চেয়ে বেশি করলেন।