ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ‘বাঘ’, দেশের বাহিরে ‘বিড়াল’

দেশের বাহিরে কত বিবর্ণ দ্য ফিজ।

ডেস্ক রিপোর্ট

৩১ আগস্ট ২০২২, দুপুর ৩:৩০ সময়

[ Screenshot_20220831-152816_Gallery.jpg ]

অভিষেকেই অপার সম্ভাবনা নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলে ধুমকেতুর মতো আর্বিভাব হয়েছিলো পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের। নিঃসন্দেহেই, এখনও জাতীয় দলের এক নম্বর পেসার হিসেবে বিবেচনা করা হয় মুস্তাফিজকেই। 

তবে, ক্যারিয়ারের শুরুতে বল হাতে যেভাবে চমক দিয়েছিলেন, চোটসহ আরও নানা কারণে অনেকটাই ম্লান হয়ে গেছে তার পারফরম্যান্স। শুরুতে মিরপুরের মাঠে ভালো করলেও এখন হোম অব ক্রিকেটেও আহামরি পারফরম্যান্স করতে পারছেন না। 

বিশেষ করে খর্বশক্তির জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ‘দ্য ফিজ’ এখন যতোটাই কার্যকর; অন্য বড় দেশগুলির বিপক্ষে  যেন ঠিক ততোটাই বিবর্ণ। আর দেশের বাহিরে তো ২৬ বছর বয়সী এই তারকার অবস্থা আরও হতশ্রী। 

গতকাল আফগানিস্তানে বিপক্ষে মুস্তাফিজুর রহমানের শক্তির জায়গা ও ডেথ ওভারে অকার্যকারিতা আরও একবার ফুটে উঠেছে। শাতজায় স্বল্প রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েও দুর্দান্ত বোলিংয়ে টাইগাররা ম্যাচে ভালোই লড়াই করেছিলো। 

কিন্তু, শেষ দিকে মুস্তাফিজুর রহমানের এক এভারেই ম্যাচ প্রায় নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় আফগানরা। পরিস্কারই হয়ে গেছে, দেশের বাহিরে কতটা বিবর্ণ ফিজ! 

অবশ্য, সাম্প্রতিক সময়ে নিজেই আহামরি ফর্মে নেই মুস্তাফিজ। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণের সেরা অস্ত্র হিসেবে ধরা হলেও দ্য ফিজ এখন নিজেকেই হারিয়ে খুজছেন। এশিয়া কাপে আসার আগে টি-টোয়েন্টিতে সবশেষ ১৪টি বোলিং ইনিংসে তার উইকেট স্রেফ নয়টি। 

সবশেষ ১২ টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে পাঁচটিতে তিনি রান দিয়েছেন ওভারপ্রতি দশেরও বেশি। এশিয়া কাপের আগে জিম্বাবুয়ে সফরে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ৪ ওভারে দিয়েছেন ৫০ রান! এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দুটি টি-টোয়েন্টিতে তিনি উইকেটশূন্য ছিলেন খরুচে বোলিং করে। 

‘কাটার মাস্টার’-খ্যাত এই পেসারের দেশের বাহিরের রেকর্ড আরও বিবর্ণ। গত বছর সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৪ ম‍্যাচে নিয়েছিলেন ২ উইকেট। ওভার প্রতি দিয়েছিলেন ১০ রান করে। 

সবমিলিয়ে দেশের বাহিরে শেষ ১১ ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমান বড্ড সাদামাটা, নেই কার্যকরীতা। একাদশেই জায়গা দেয়াটাও যেন বিলাসীতা। মোট রান দিয়েছেন ৪১২। ৮ উইকেট শিকার করতে ওভারপ্রতি রান খরচ করেছেন দশের বেশি। উইকেট প্রতি গড় মাত্র ৫১.৫৫!