ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে মুশফিকের অবসর

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিলেন অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহীম।

ডেস্ক রিপোর্ট

৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, দুপুর ১২:৪০ সময়

[ Screenshot_20220904-123559_Messenger.jpg ]

টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। টি-টোয়েন্টি থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন তামিম ইকবালও। দলের বিশেষ প্রয়োজন না হলে এই ফরম্যাটে আর তার ফেরার ইচ্ছা নেই। আরেক সিনিয়র মুশফিকুর রহিম কী ভাবছেন! 

চার-ছক্কার লড়াইয়ে মুশফিকুর রহীমের হতশ্রী পারফরম্যান্সে সমালোচনার অন্তত নেই। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে একশোর বেশি ম্যাচ খেলেও অভিজ্ঞ এই ব্যাটারের গড় কুড়ি পার হতে পারেনি। এবার এশিয়া কাপেও চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন, ক্রিকেটের সবচেয়ে ছোট সংস্করণে কতটা পিছিয়ে তিনি। 

মূলত, গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে এই সংস্করণে ভালো সময় যাচ্ছে না মুশফিকের। পাকিস্তান সিরিজে দল থেকে বিশ্রামে রাখা হয়েছিল তাঁকে। আফগানিস্তান সিরিজে দলে ফিরলেও জিম্বাবুয়ে সফরে আবারও বিশ্রামে পাঠানো হয় এই ব্যাটারকে। 

যদিও এশিয়া কাপের দলে সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন তিনি। এর পরই এই সংস্করণ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন মুশফিক। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি না খেললেও ঘরোয়া ও ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে নিয়মিত দেখা যাবে মুশফিককে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজেই কথাটি জানিয়েছেন তিনি। নিজের ফেসবুক পাতায় মুশফিকুর রহীম লিখেছেন, 

”সবাইকে সালাম এবং শুভেচ্ছা। দীর্ঘ ক্রিকেট ক্যারিয়ারের যাত্রায় আমি আপনাদের সবাইকে পাশে পেয়েছি। ভাল এবং খারাপ দুই সময়েই আপনাদের অকুন্ঠ সমর্থন আমার প্রেরনা। টি টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ার থেকে আজ আমি অবসর নিচ্ছি। 

তবে, বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট এবং ওয়ানডে খেলা চালিয়ে যাবো।  আশা করছি এই দুই ফরম্যাটে আমি আরো কিছু নিয়ে আসতে পারবো দেশের জন্য।  বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ(বিপিএল) সহ অন্যান্য ফ্রেঞ্চাইজি লিগে আমি আমার খেলা চালিয়ে যাবো টি টোয়েন্টি ফরম্যাটে। আলহামদুলিল্লাহ। সবার নিকট কৃতজ্ঞতা। ধন্যবাদ। আল্লাহ হাফেজ।”

২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক হয় মুশফিকুর রহীমের। এরপর ১৬ বছরের ক্যারিয়ারে ১০২ ম্যাচ খেলে ১৫০০ রান করে থামলেন তিনি।

এই সময়ে এই ফরম্যাটে ৭২টি ডিসমিসালও করেন মুশফিক। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলেছেন অভিজ্ঞ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার।