ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

‘জয়-পরাজয় আল্লাহর হাতে’, ফাইনালের আগে দোয়া চাইলেন সানজিদা

সমাজের টিপ্পনীকে একপাশে রেখে যে মানুষগুলো আমাদের সবুজ ঘাস ছোঁয়াতে সাহায্য করেছে, তাদের জন্য এটি জিততে চাই।

ডেস্ক রিপোর্ট

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, দুপুর ১:৫১ সময়

[ Screenshot_20220919-134355_Chrome.jpg ]

ছেলেদের মতো মেয়েদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপেও একচেটিয়া দাপট ভারতের। মেয়েদের দক্ষিণ এশিয়া সেরা হওয়ার লড়াইয়ে গত পাঁচ আসরের সবকটি শিরোপাই ঘরে তুলেছে দেশটি। চারবার ফাইনালে খেলে তাদের সঙ্গে পেরে ওঠেনি নেপাল এবং একবার খেলে হারে বাংলাদেশ। 

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসে প্রথমবার শিরোপা নির্ধারণী মঞ্চে নেই ভারত। দক্ষিণ এশিয়ার মেয়েদের ‘বিশ্বকাপ’ খ্যাত আসরে এবার দেখা মিলবে নতুন এক চ্যাম্পিয়ন। বাংলাদেশ কিংবা নেপাল সাফ পেতে যাচ্ছে তাদের নতুন রানিকে।  

নেপাল সেমিফাইনালে ভারতকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাসী, স্বাগতিক হওয়ার বিষয়টিও তাদের এগিয়ে রাখছে। কিন্তু বাংলাদেশেরও আত্মবিশ্বাসী হওয়ার মতো যথেষ্ট উপাদান আছে এই সাফে। 

এবার সাফে রীতিমতো অপ্রতিরোধ্য সাবিনা খাতুনরা। গ্রুপপর্বে রেকর্ড পাঁচ আসরের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে উড়িয়ে দেওয়া যেমন সুখস্মৃতি আছে গোলাম রাব্বানী ছোটনের দলের; তেমনি সেমিফাইনালে ভুটানকে গুনে গুনে ৮ গোল দেওয়ায় বাড়তি আত্মবিশ্বাসও পাচ্ছে দলটি। সবমিলিয়ে ফাইনালে ওঠার আগে চার ম্যাচে ২০ গোল বাংলাদেশের ট্রফি জয়ের তাড়না কতটা তীব্র তা বুঝা যাচ্ছে। 

তাই, সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবার শিরোপা জয়ের দুর্নিবার আকাঙ্ক্ষা পূরণ করা থেকে স্রেফ এক ধাপ দূরে দাঁড়িয়ে দুদলই এখন বেশ রোমাঞ্চ নিয়ে অপেক্ষা করছে। 

আজ (সোমবার) বিকেলে নেপালে দশরথ স্টেডিয়ামে মেয়েদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে স্বাগতিক দলের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ফাইনালের লড়াইয়ে মাঠে নামা আগে বাংলাদেশে নারী ফুটবলার সানজিদা আক্তার দেশের মানুষের কাছে দোয়া চেয়েছেন। 

এবার ট্রফি নিয়ে বাড়ি ফেরার স্বপ্ন দেখছেন বাংলার বাঘিনীরা। নিজের ফেসবুক পাতায় বাংলাদেশ নারী দলের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিখেছেন, 

“আমরা জীবনযুদ্ধেই লড়ে অভ্যস্ত। দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের জন্য শেষ মিনিট পর্যন্ত লড়ে যাব। জয়-পরা জয় আল্লাহর হাতে। তবে বিশ্বাস রাখুন, আমরা আমাদের চেষ্টায় কোনো ত্রুটি রাখব না, ইনশাআল্লাহ। দোয়া করবেন আমাদের জন্য।” 

সাফের ফাইনালে মাঠে নামার আগে লম্বা এই পোষ্টে অনেক কিছুই লিখেছেন সানজিদা। দেশের মানুষের উদ্দেশ্যে উদ্যমী ও তেজোদ্দীপ্ত এক বার্তা দিয়ে রীতি মতো প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। সানজিদা লিখেছেন, 

”“আলহামদুলিল্লাহ, আমরা এবার মাঠে দারুণ ছন্দে রয়েছি, ফাইনালে প্রতিপক্ষ স্বাগতিক নেপাল। স্বাগতিক হিসেবে ফাইনাল খেলা কিংবা স্বাগতিক দলের বিপক্ষে ফাইনাল খেলা সবসময় রোমাঞ্চকর। এছাড়াও এবারের ফাইনাল ম্যাচটি কিছুটা ভিন্ন। বহুদিন পর সাফ পাবে নতুন কোনো চ্যাম্পিয়ন দেশ। আর তাই এবার রোমাঞ্চকর একটি ফাইনাল ম্যাচ হতে যাচ্ছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই ।“ 

“যারা আমাদের এই স্বপ্নকে আলিঙ্গন করতে উৎসুক হয়ে আছেন, সেই সকল স্বপ্নসারথিদের জন্য এটি আমরা জিততে চাই। নিরঙ্কুশ সমর্থনের প্রতিদান আমরা দিতে চাই।”

“ছাদখোলা চ্যাম্পিয়ন বাসে ট্রফি নিয়ে না দাঁড়ালেও চলবে, সমাজের টিপ্পনীকে একপাশে রেখে যে মানুষগুলো আমাদের সবুজ ঘাস ছোঁয়াতে সাহায্য করেছে, তাদের জন্য এটি জিততে চাই। আমাদের এই সাফল্য হয়তো আরও নতুন কিছু সাবিনা, কৃষ্ণা, মারিয়া পেতে সাহায্য করবে।অনুজদের বন্ধুর এই রাস্তাটুকু কিছু হলেও সহজ করে দিয়ে যেতে চাই।”