ফুটবল > ক্লাব ফুটবল

মেসির যে ৯টি শর্ত শুনে চুক্তির মেয়াদ বাড়ায়নি বার্সা!

বেতন বৃদ্ধি, ভাইয়ের জন্য কমিশন, প্রাইভেট বিমান- বার্সায় থাকতে যে সকল শর্ত দিয়েছিলেন মেসি।

ডেস্ক রিপোর্ট

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, দুপুর ২:১ সময়

[ Screenshot_20220922-135613_Gallery.jpg ]

গত বছর অগাস্টে বার্সেলোনার সঙ্গে দীর্ঘ দুই দশকের সম্পর্ক ছিন্ন করে দুই বছরের চুক্তিতে পিএসজিতে যোগ দেন লিওনেল মেসি। যদিও লা লিগার দলটিতে থাকতে অনেক ছাড় দিয়ে হলেও নতুন চুক্তি করতে রাজি ছিলেন তিনি। 

কিন্তু ক্লাবের অর্থনৈতিক দৈন্যতা ও লা লিগার ফিনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে নিয়মের কারণে শেষ পর্যন্ত ভেস্তে যায় নতুন চুক্তির প্রক্রিয়া। চোখের জ্বলেই ন্যু ক্যাম্প ছাড়েন আর্জেন্টাইন মহাতারকা। 

২১ বছরের দীর্ঘ পথচলায় স্প্যানিশ দলটির হয়ে মেসি গড়েছেন অজস্র রেকর্ড। জিতেছেন ক্লাব ফুটবলের সম্ভাব্য সব শিরোপা। ৬৭২ গোল করে ক্লাবটি ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনি।

মেসির বার্সেলোনা ছাড়া নিয়ে কাতালান সমর্থকদের এখনও আক্ষেপের যেন কোন কমতি নেই। তবে, ২০২০ সালে সাতবারের বর্ষসেরা ফুটবলারের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ালে এতদিন ন্যু ক্যাম্পেই থাকতেন লিওনেল মেসি। 

শুধুমাত্র আর্জেন্টাইন মহাতারকার কিছু কঠিন শর্তে কারণেই সেবার চুক্তি নবায়ন করেনি বার্সেলোনা। আর এতেই ভেঙে যায় বার্সা-মেসির অমরত্বে ঠাই পাওয়া ২১ বছরের মধুর সম্পর্ক। 

সম্প্রতি, ২০২০ সালে লিওনেল মেসির সঙ্গে কেন চুক্তি মেয়াদ বাড়ায়নি তা নিয়ে একটি প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে স্প্যানিশ পত্রিকা এল মুন্দো। সেখানে বের হয়ে এসেছে, ন্যু ক্যাম্পে থাকার জন্য ৯টি শর্ত দিয়েছিলেন মেসি। 

আর্জেন্টাইন এই মহাতারকার ৬টি শর্ত পূরণ করেছিল বার্সা। তবে, ৩ শর্ত মানতে দীর্ঘায়িত করায় কাতালান ক্লাবটির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানি মেসি। এল মুন্দে প্রকাশিত প্রতিবেদনের মতে, মেসির যে ছয়টি চুক্তি মেনে নিয়েছিলো বার্সা সেগুলি হলো:

১. নতুন চুক্তি হবে ৩ বছরের।

২. ২০২০-২১ মৌসুমে মহামারি করোনাভাইরাসে সময় ক্লাবের সব ফুটবলারের বেতন কমিয়েছিলো বার্সা। মেসির শর্ত, এর পুরোটাই ফেরত দিতে হবে। এর মধ্যে ২০২১-২২ মৌসুমে ১০ শতাংশ, ২০২২-২৩ মৌসুমে বাকি ১০ শতাংশ। শুধু বেতনের কেটে নেওয়া অংশই নয়, এর সঙ্গে ৩ শতাংশ সুদও দাবি করেছেন মেসি।

৩. নিজের ও সুয়ারেজের পরিবারের জন্য ন্যু ক্যাম্পে প্রাইভেট বক্স।

৪. বড়দিনের ছুটিতে পুরো পরিবার নিয়ে আর্জেন্টিনায় যাতায়াতের জন্য প্রাইভেট বিমান।

৫. বার্সেলোনায় নিজের ব্যক্তিগত সহকারী পেপে কস্তার সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করার দাবি মেসির।

৬. চুক্তি নবায়নের সময় ভাই রদ্রিগোর জন্যও কমিশন চেয়েছিলেন মেসি। শুধু তাই নয়, মেসির শর্ত ছিল যে তাঁর ভাইয়ের সঙ্গেও চুক্তি নবায়ন করতে হবে।

দলের সেরা তারকার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়াতে এসব শর্তই মেনে নিয়েছিলো বার্সেলোনা। কিন্তু, তারপরও আরও তিনটি শর্তের জন্য শেষ পর্যন্ত চুক্তিটি আলোর মুখ দেখেনি। মেসির যে তিনটি চুক্তি মানতে পারেনি বার্তামেউ বোর্ড, তন্মধ্যে আছে:

১.নতুন চুক্তিতে রিলিজ ক্লজ একেবারে কমিয়ে আনার শর্ত দেন লিওনেল মেসি। চুক্তির নবায়ন করতে হলে ৭০ কোটি ইউরো থেকে নাম মাত্র রিলিজ ক্লজ ১০ হাজার ইউরোতে কমিয়ে আনার শর্ত জুড়ে দেন মেসি। 

২. চুক্তি নবায়ন বাবদ এক কোটি ইউরো বোনাস দাবি করেছিলেন মেসি। তবে, আর্থিক খারাপ অবস্থায় এই শর্ত মানতে রাজি হননি বার্তামেউ বোর্ড।

৩. এছাড়া, ২০১৮ সালে স্পেন সরকার করের হার বাড়ানোয় বেতন বাবদ আয় কমে যাচ্ছিল মেসির। এ জন্য আর্জেন্টিনা মহাতারকা বেতন বৃদ্ধিরও দাবি করেন।