ক্রিকেট > আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

এক শতকেই ‘সাত’ কীর্তি বাবর আজমের

প্রত্যাবর্তনের রাতে রেকর্ডের বন্যা বয়ে দিয়েছেন পাক অধিনায়ক।

ডেস্ক রিপোর্ট

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, দুপুর ১১:১৩ সময়

[ Picsart_22-09-23_11-08-15-189.jpg ]

বর্তমান সময়ের সেরা ইনফর্ম ব্যাটার বাবর আজম। অভিষেকের পর থেকে নিয়মিতই ব্যাট হাতে রানের পসরা সাজিয়েছেন তিনি। তাই, দীর্ঘদিন টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ের সেরা ব্যাটার হয়ে ছিলেন তিনি। ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ের এখনও শীর্ষে থাকা এই ব্যাটার টেস্ট র‍্যাংকিংয়েও আছেন সেরা তিনে। 

উড়ন্ত ফর্মে থাকায় এবার এশিয়া কাপে সবচেয়ে বেশি লাইমলাইটেও ছিলেন বাবর আজম। ২৬ বছর বয়সী তারকা উপর ভর করে পাকিস্তান এশিয়া কাপ জিতবে বলেও ধারণা করেছিলো অনেকে। 

কিন্তু, মরুর বুকে সমর্থকদের মনের আশা একটুও পূরণ করতে পারেননি বাবর। এশিয়া কাপের গোটা আসরেই চূড়ান্ত ফ্লপ ছিলেন তিনি। মর্যাদার লড়াইয়ে বাজে খেলে দীর্ঘদিন ধরে গড়ে তোলা টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ের রাজত্ব হারিয়েছেন। এসময় নিন্দুকের সমালোচনাও বিদ্দ হয়েছেন বেশ। 

অবশেষে ঘরের মাঠে যেন ঘুরে দাঁড়ানোর সবচেয়ে বড় সুযোগ পেল তিনি। করাচির চেনা আঙ্গিনায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক সাত ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৩০ রানের এক ইনিংস খেলে রানে ফেরার বার্তাও দেন। এবার দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করে সমালোচকদের মুখেই কুলুপ এঁটে দিলেন পাকিস্তানের অধিনায়ক। 

গতকাল (বৃহস্পতিবার)  করাচির জাতীয় স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের জয় ১০ উইকেটে। ২০০ রানে লক্ষ্য তারা পেরিয়ে যায় ৩ বল হাতে রেখে।

এই সংস্করণে কোনো উইকেট না হারিয়ে সর্বোচ্চ রান তাড়ায় জয়ের রেকর্ড এটি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই প্রথম দেড়শর বেশি রান তাড়ায় জিতল পাকিস্তান। ২০১০ সালে দুবাইয়ে ১৪৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় জয় ছিল তাদের আগের রেকর্ড।

পাকিস্তানের দুর্দান্ত জয়ে মুখ্য ভূমিকা রেখেছেব কাপ্তান বাবর আজম। ঘরের মাঠে দুশোর ছুইছুই লক্ষ্যে তাড়া করতে নেমেই টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে নিজের দ্বিতীয় শতক হাকিয়েছেন তিনি। এমন অসাধারণ এক ইনিংসে ই চার কীর্তি গড়লেন তিনি। 

১.  প্রথম পাকিস্তানি হিসেবে টি-শার্ট ক্রিকেটে দুটো শতকের মালিক হলেন বাবর আজম। 

২. ইতিহাসের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে দুশো রানের জবাবে মাঠে নেমে দুটি শতক হাঁকালেন পাকিস্তানে এই অধিনায়ক। 

৩. কিংবদন্তি ব্যাটার ইনজামাম-উল হককে ছাড়িয়ে পাকিস্তানে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি শতকের মালিক এখন বাবর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অধিনায়ক হিসেবে ১০টি শতক তার।৯টি সেঞ্চুরি ছিলো ইমজামাম উল হকেরও। 

৪. স্বীকৃত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এশিয়ানকে মধ্যে সর্বাধিক সপ্তম সেঞ্চুরি করলেন বাবর আজম। ৬টি করে সেঞ্চুরি আছে বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা ও লুকেশ রাহুলের। 

৫. স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় দ্রুততম ২১৮ ইনিংসে ৮ হাজার রানের কীর্তি গড়লেন বাবর আজম। ২১৩ ইনিংসে ৮ হাজার রানের মাইলফলক ছুয়েছেন ক্রিস গেইল। 

৬. মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে আন্তর্জাতিক কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড গড়েছেন। 

৭. মোহাম্মদ রিজওয়ান ও বাবর আজম ওপেমিং জুটি ষষ্ঠবার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে শতরানে জুটি গড়লেন। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটাই সর্বোচ্চ।