ফিচার

যে ‘৯’ মুসলিম ফুটবলার রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলেছেন

২০১৮ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলা নয় মুসলিম ফুটবলার।

ডেস্ক রিপোর্ট

৫ অক্টোবর ২০২২, দুপুর ২:১৭ সময়

[ Screenshot_20221005-141123_Gallery.jpg ]

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে খেলার সুযোগ এখনও হয়ে উঠেনি। ২০০২ সালে জাপান-দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল পর্যন্ত যাওয়া তুরস্ক শেষ পর্যন্ত তৃতীয় হয়েছিলো। এটাই মুসলিম প্রধান দেশগুলোর বিশ্বকাপে সেরা অর্জন

তবে প্রচন্ড ইসলামফোবিয়া মাঝেও ইউরোপে মুসলিম সংস্কৃতির প্রভাব এখন বেশ ভালোভাবে ই দেখা যাচ্ছে। পশ্চিমা দুনিয়ায় দিন দিন মুসলিম ফুটবলারের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি মুসলিম সংস্কৃতিরও বিকশিত হচ্ছে সমানতালে।

অনুশীলনের সময় মাঠের সবুজ ঘাসে নামাজ পড়ার দৃশ্য কিংবা গোল উদযাপনে সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশে সিজদা আদায় মতো দৃশ্যগুলো এখন নিয়মিত ইউরোপের ফুটবলের নিয়মিত দৃশ্য। 

ইসলামবিদ্বেষীদের দ্বারা ক্রমাগত অবহেলা সত্ত্বেও, লক্ষ লক্ষ মুসলমান প্রকৃতপক্ষে পশ্চিমা সংস্কৃতি এবং সমাজে যথেষ্ঠ অবদান রাখছে। ২০১৮ বিশ্বকাপেও বেশ কয়েকজন মুসলমান ফুটবলার ইউরোপের বিভিন্ন দেশের হয়ে নিজেদের জাত চিনিয়েছেন, ইসলামফোবিয়ার সব স্টেরিওটাইপ ভেঙে দিয়েছেন। 

অবাক করার বিষয় হলো, রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ চারে মুসলিম প্রধান কোন দেশ খেলতে না পারলেও আসরের সেমিফাইনালেই খেলেছেন বেশকিছু মুসলিম ফুটবলার। বিশ্বসেরা হওয়া আসরে তারা পারফরম্যান্সও করেছে। 

এতে এসব দেশে যেমন অহেতুক মুসলিমভীতি কমেছে।অভিবাসীদের দেশপ্রেম নিয়ে উঠা প্রশ্নে উত্তর মিলেছে। দেশপ্রেমের প্রশ্নে মুসলিমরা উত্তীর্ণও হয়েছে। চলুন দেখে নেওয়া যাক গেল বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলেছেন যে ৯ জন ফুটবলার। 

 ১.মারোয়ানে ফেলাইনি (বেলজিয়াম)

মরক্কোর বংশোদ্ভূত মারোয়ানে ফেলাইনি ২০১৮ সালে খেলেছিলেন ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে। ২০১৮ সালে বেলজিয়ামের সোনালী প্রজন্মের সঙ্গে তিনিও রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ চারে খেলেছেন।

২. পল পগবা (ফ্রান্স)

ইতালিয়ান ক্লান জুভেন্টাসের হয়েই সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন পল পগবা। জন্ম থেকে মুসলমান না হলেও পরে ধর্মান্তারিত হয়ে গ্রহণ করেছেন ইসলাম। ফরাসি ফুটবলারের বিশ্বাস, ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করাটাই বদলে দিয়েছে তার জীবন। ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপের সেমি ফাইনালে তো খেলেছেনই, জিতেছেন বিশ্বকাপও। 

৩. মুসা ডেম্বেলে (বেলজিয়াম)

“আমি যা জানি তা হল এই সন্ত্রাসীরা শত্রু যাদের জয়ী হতে দেওয়া যাবে না। তারা নিজেদেরকে মুসলিম বলে দাবি করতে পারে না এবং আমাদের ধর্মকে অসম্মান করতে পারে না।”

২০১৬ সালে ব্রাসেলস আত্মঘাতী বোমা হামলার পর কথাটি বলেছিলেন মুসা ডেম্বেলে। টটেনহ্যাম হটস্পার হয়ে খেলা ৩৫ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার বেলজিয়ামের হয়ে বিশ্বকাপের শেষ চার খেলেছেন।

৪. উসমান ডেম্বেলে (ফ্রান্স)

ফ্রান্সের হয়ে ১৯ বছর বয়সেই বিশ্বকাপ জিতেছেন উসমান ডেম্বেলে। সম্ভাবনাময় এই তারকা বর্তমানে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনার হয়ে খেলছেন।

৫. নাসের চাদলি (বেলজিয়াম)

ইংলিশ ক্লাব ওয়েস্ট ব্রোমিচের হয়ে দারুণ খেলেছেন নাসের চাদলি। যার স্বীকৃতি স্বরুপই রাশিয়া বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের তারকা সমৃদ্ধ দলে জায়গা পান। সেবার শেষ ষোলোয় জাপানে বিপক্ষে অন্তিম মুহুর্তে মরক্কোর বংশোদ্ভূত এই তারকার গোলেই কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পায় লুকাকু-ডে ব্রুইনেরা। 

৬. আদিল রামি (ফ্রান্স)

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ফ্রান্স দলে ছিলেন আদিল রামি। বর্তমানে ফরাসি ক্লাব ট্রয়ের হয়ে খেলছেন ৩৫ বছর বয়সী এই সেন্টার-ব্যাক। 

৭. আদনান জানুজাজ (বেলজিয়াম)

কসোভান-আলবেনিয়ান বংশোদ্ভূত এই মিডফিল্ডার লম্বা সময় ধরে স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল সোসিয়েদাদের হয়ে খেলেছেন। এবারই সেভিয়া যোগ দিয়েছনে তিনি।

৮. জিব্রিল সিদিবে (ফ্রান্স)

সেনেগাল বংশোদ্ভূত এই ডিফেন্ডার ফরাসি ক্লাব এএস মোনাকোর হয়ে ১৩০ ম্যাচ খেলেছেন। এখন খেলছেন গ্রীক ক্লাব এইকে এথেন্সের হয়ে।

৯. নাবিল ফেকির (বেলজিয়াম)

আলজেরিয়ান বংশোদ্ভূত এই মিডফিল্ডার বর্তমানে স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল বেতিসের হয়ে খেলছেন।