ক্রিকেট > বাংলাদেশের ক্রিকেট

‘৮ কোটি টাকার লোভ সামলিয়েছি, ৫১০ কোটি টাকা প্রশ্নই আসেনা’

টাকার প্রতি কোন ‘লোভ‘ নেই মাশরাফির।

ডেস্ক রিপোর্ট

৪ নভেম্বর ২০২২, দুপুর ১২:৬ সময়

[ Screenshot_20221104-120345_Gallery.jpg ]

সম্প্রতি, ভারতীয় ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকট্র্যাকার বাংলাদেশের ক্রিকেটাঙ্গনে রীতিমতো ঝড় তুলে দিয়েছে। তাদের এক প্রতিবেদনে দেশের ‘শীর্ষ ধনী’ ক্রিকেটারের তালিকায় জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার সম্পদে মূল্যমান ৫১০ কোটি টাকা বলে দাবি করা হয়। 

এরপর নানা দিক থেকে সমালোচনা ঝড় বইতে থাকে মাশরাফির দিকে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় হলফনামা অনুযায়ী, মাশরাফির অস্থাবর সম্পদের আর্থিক মূল্য ছিলো ৯ কোটি ১৪ লাখ ৫৯ হাজার ৫১ টাকা। 

আর স্থাবর সম্পদের আর্থিক মূল্য ছিল ৫ কোটি ৪৬ লাখ ২৪ হাজার টাকা। মাত্র চার বছরের ব্যবধানেই সাবেক অধিনায়কের সম্পত্তি কয়েকগুণ বেড়ে যাওয়ায় নানান প্রশ্ন উঠে। 

নিজেকে নিয়ে উঠা এসব খবরে চুপ থাকেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। ক্রিকট্যাকারের এমন ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় চরম বিরক্ত টাইগারদের সাবেক অধিনায়ক। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ক্ষোভ প্রকাশ করে নড়াইল এক্সপ্রেস এসব খবর ’ভিত্তিহীন' বলেই উড়িয়ে দিয়েছে। ক্রিকট্র্যাকারও নিজেদের ওয়েবসাইট থেকে সেই খবর সরিয়ে নিয়েছেন।

’নট আউট নোমান’-এ ক্রিকট্র্যাকারের সেই প্রতিবেদন নিয়ে আবারও কথা বলেছেন মাশরাফি। জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক এই খবরে মানসিকিভাবে ভেঙে পড়েছেন। আইসিএলের মাশরাফি বলেছেন, টাকার প্রতি তাঁর কোন লোভ নেই। 

“আমার যখন ২৩-২৪ বছর বয়স তখন আইসিএলের অফার এসেছিল ৮ কোটি টাকার। এই দেশেরই অনেক ক্রিকেটার কিন্তু চলে গিয়েছিলেন, তারা আমার অর্ধেক এর টাকারও অফার পাইনি। তখন ২৩-২৪ বছর বয়সে আমি এতো টাকার লোভ সামলাইতে পারছি, আর ৩৯ বছর বয়সে প্রশ্নই আসেনা।” 

“৫১০ কোটি টাকা ভিরাট কোহলিরও নাই, শচীন টেন্ডুলকারেরও না... এটা অবিশ্বাস্য।”

“আমার ১০০% মানসিক ক্ষতি হয়েছে। নিজের কাছে নিজে লজ্জা পেয়েছি। মেয়ের দিকে তাকাতে আমার কেমন লেগেছে যে এটা কেন হলো।”

ক্রিকেটকে মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রচন্ড ভালোবাসেন। আর ক্রিকেট ই তাঁর একমাত্র পেশা বলে দাবি সাবেক টাইগার কাপ্তানের। ক্রিকেট থেকে যা পেয়েছেন এতেই সৃষ্টিকর্তার কাছে শোকর তিনি।

“আমি তো ব্যবসা করিনা। ক্রিকেট খেলছি এখনো, এটাই আমার পেশা। ৩৯ বছর বয়সে পেশার থেকে হয়ত শখের জন্য আরো বেশি খেলে যাচ্ছি। এটা ছাড়া আমার জীবনে আর কোন পেশাও নাই। এটাই আমার একমাত্র পেশা।”

“ক্রিকেটই আমাকে সবকিছু দিয়েছে এবং যা দিয়েছে তার জন্য আমি শুকরিয়া আদায় করি মহান আল্লাহ তাআলার কাছে।”