ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ

রোনালদোর অধরা-স্বপ্ন পূরণ করতে পর্তুগালের বিশ্বকাপ দলে তারকার ছড়াছড়ি

বিশ্বকাপের জন্য শক্তিশালী দল ঘোষণা করেছে পর্তুগাল।

ডেস্ক রিপোর্ট

১১ নভেম্বর ২০২২, রাত ১:৪ সময়

[ Screenshot_20221111-005831_Gallery.jpg ]

বর্নাট্য ক্যারিয়ারে সবকিছুই জিতেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। ক্লাবের হয়ে দু'হাত ভরে যেমন সাফল্য পেয়েছেন, ঠিক তেমনি ইউরোপের মধ্যম সারির একটি দলকে ইউরোপের সেরার মুকুট পড়িয়ে পর্তুগালের আপম জনতার হৃদয়ে চির অমর হয়ে আছেন।

তবুও, একটি বিশ্বকাপ পেলেই যেন পূর্ণতা পাবে রোনালদোর ক্যারিয়ারে। রোনালদোর মতো ফুটবলারের তো সোনালী ট্রফিটি ছোঁয়া পাওনাই আছে। আগে চারবার ব্যর্থ হয়েছে বটে, তবে আবারও রোনালদোর ভেলায় চেপেই বিশ্বকাপে যাচ্ছে পর্তুগিজরা।

একটা সময় পর্তুগাল ইউরোপের মধ্যম সারির দল হলে সময় এখন বদলে গেছে। ফার্নান্দো সান্তোসে দলটিকে এখন সবাই সমীহ করে। আর তাই নিজেদের ইতিহাস বদলে দিতে তারকা ঠাসায় দল নিয়েই কাতারে যাচ্ছে তারা।

আজ (বৃহস্পতিবার) কাতার বিশ্বকাপের জন্য ২৬ সদস্যে চূড়ান্ত দল ঘোষণা করেছে পর্তুগাল। নিয়মিত ও ক্লাবের হয়ে ছন্দে থাকা ফুটবলারদের নিয়েই দল ঘোষণা করেছেন কোচ ফার্নান্দো সান্তোস।

পর্তুগালের বিশ্বকাপ দলে রয়েছে তারকার ছড়াছড়ি। দলের সেরা তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পঞ্চম বিশ্বকাপের সঙ্গী হিসেবে আছেন ব্রুনো ফার্নান্দেজ, জোয়াও ফেলিক্স, বের্নাদো সিলভা, রুবেন দিয়াসদের মতো বড় তারকারা।

তারুণ্যে নির্ভর ফার্নান্দো সান্তোসের দলে অভিজ্ঞ পেপে কে রাখা হলেও গেল বিশ্বকাপে নজরকাঁড়া রেনাতো সান্তোস বাদ পড়েছেন। আগেই চোটে বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে দিয়াগো জোটার।

কাতার বিশ্বকাপে পর্তুগাল খেলবে ‘এইচ’ গ্রুপে। যেখা নে রোনালদোদের প্রতিপক্ষ হিসেবে আছে উরুগুয়ে, ঘানা ও দক্ষিণ কোরিয়া। আগামী ২৪ নভেম্বর ঘানার বিপক্ষে সাবেক ইউরোপ চ্যাম্পিয়নদের বিশ্ব মঞ্চের অভিযান শুরু হবে।

পর্তুগালের বিশ্বকাপ দল

গোলরক্ষক: রুই প্যাট্রিসিও, ডিয়োগো কস্তা, জোসে সা।

ডিফেন্ডার: জোয়াও ক্যানসেলো, ডিওগো ডালোত, পেপে, রুবেন দিয়াজ, দানিলো পেরেরা, অ্যান্টোনিও সিলভা, নুনো মেন্দেস, রাফায়েল গেরেরো। 

মিডফিল্ডার: উইলিয়াম, ব্রুনো ফার্নান্দেজ, পালিনহা, ভিটিনহা, ওটাভিহো, ম্যাথিয়াস নুনেস, বের্নার্দো সিলভা, জোয়াও মারিও।

ফরোয়ার্ড: ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, জোয়াও ফেলিক্স, রাফায়েল লিয়াও, রিকার্ডো হোর্তা, আন্দ্রে সিলভা, গনসালো রামোস।