ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ

সাদিও মানে বিশ্বকাপ খেলতে না পারায় বন্ধু ডাইকের ‘হৃদয়ে রক্তক্ষরণ’ হচ্ছে

ডাচ তারকার মতে, মানে না থাকাটা সেনেগালের জন্য বড় ধাক্কা।

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ নভেম্বর ২০২২, দুপুর ১:২৯ সময়

[ 20221121_132645.jpg ]

ইংলিশ ক্লাব সাউদাম্পটনেই দুজনের প্রথম পরিচয়। এরপর গ্রেট ব্রিটেনের আরেক ক্লাব লিভারপুলের হয়ে ইতিহাস জয়। সাদিও মানে ও ভার্জিল ভ্যান ডাইকের বন্ধুত্বের কথা কারো আর অজানা নয়। ইউরোপে অলরেডদের ফের বড় ক্লাব হয়ে উঠার পেছনেও তাদের ভূমিকা অপরিসীম। 

গত মৌসুমের মাঝামাঝি থেকেই দুর্দান্ত খেলেছিলেন সাদিও মানে। মিশরকে কাঁদিয়ে দলকে বাছাই পার করিয়েছে বিশ্বকাপে তুলেছেন। সালাদের ফের কাঁদিয়ে সেনেগালকে আফকনের শিরোপাও এনে দিয়েছিলেন।

ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল ছেড়ে বায়ার্ন মিউনিখে যোগ দিলেও দারুণ ফর্মেই ছিলেন মানে। এতে দলের সেরা তারকা নিয়ে বিশ্বকাপে চমক দেখানোর স্বপ্ন বুনেছিলো সেনেগালও। 

তবে, আফ্রিকা চ্যাম্পিয়নদের সেই বড় স্বপ্নে রীতিমতো জল ঢেলে দিয়েছে চোট। বায়ার্নের হয়ে খেলতে গিয়ে চোট বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে মানের। দলের সেরা তারকাকে ছাড়া এবার বিশ্বকাপ মিশনে নামবে আলিউ সিসের দল। 

চোটে বিশ্বমঞ্চে বন্ধু মানে খেলতে না পারায় হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে ভার্জিল ভ্যান ডাইকের। ডাচ তারকা সাবেক ক্লাব সতীর্থের খোঁজ খবরও নিয়েছেন। জানালেন, মানে না থাকাটা সেনেগালের জন্য বড় ধাক্কা। আজ (সোমবার) বিশ্বকাপে সেনেগালের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে এসব বলেছেন লিভারপুলের ডিফেন্ডার। 

"আমি তাকে ফোন করেছিলাম। স্পষ্টতই আমি জানতে চেয়েছিলাম সে কেমন আছে, কারণ অনেক খবরই বেরিয়েছিল যে সে আহত হয়েছে। আমি একজন বন্ধু হিসাবে জানতে চেয়েছিলাম সে কেমন আছে। যদিও সেই সময় কিছুটা আশা ছিলো। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সে এই বিশ্বকাপ খেলতে পারছেন না।”

 "আমি তার জন্য আমার ভীষণ কষ্ট হচ্ছে। আমি জানি সে এটার জন্য এবং সেনেগালের জন্য কতটা কঠোর পরিশ্রম করেছে। এটা কঠিন। মানে সেনেগালের জন্য বড় আক্ষেপ হয়ে দাঁড়াবে।"