ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ

ইরানের জালে ‘গোলউৎসব’ করে বিশ্বকাপ শুরু ইংল্যান্ডের

তারুণ্যের ঝলকানিতে হেসেখেলে জিতল ইংলিশরা।

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ নভেম্বর ২০২২, রাত ৯:১৯ সময়

[ Screenshot_20221121-211254_Gallery.jpg ]

অভিজ্ঞতা আর তারুণ্যের মিশেলে তারকা ঠাসা দল ইংল্যান্ড। তারপরও বিশ্বকাপে ফেভারিটে তালিকায় রাখা হচ্ছে না থ্রি লায়ন্সদের। তাতে গ্যারেথ সাউথগেটে দলের বয়ে গেছে!

আসরের প্রথম ম্যাচেই বিশ্বকাপের বাকি দলগুলিকে যেন আগাম বার্তা দিয়ে রাখল ইংলিশরা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইরানকে নিয়ে স্রেফ ছেলেখেলা করেছে দলটি। সহজ জয়েই বিশ্বকাপ শুরু করেছে তারা। 

আজ (সোমবার) খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টোডিয়ামে বিশ্বকাপের ‘বি’ গ্রুপে প্রথম ম্যাচে ইরানকে ৬-২ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ইংল্যান্ড। থ্রি লায়ন্সদের হয়ে জোড়া গোল করেন বুকায়ো সাকা। 

একটি করে গোল করেছেন জুডে বেলিংহাম, রাহিম স্টার্লিং ও মার্কাস রাশফোর্ড ও জ্যাক গ্রিলিশ। ইরানের হয়ে দুটো গোলই করেছেন স্ট্রাইকার মেহদী তারেমি। 

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ইরানকে পাত্তাই দেয়নি ইংল্যান্ড। গোটা ম্যাচের ৭৯ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রাখে দলটি। গোলমুখে শটও সবচেয়ে বেশি ১৩টি নেয় তারা। যেখানে লক্ষ্যে ছিলো ৭টি। বিপরীতে, ৮ শটের ৩টি লক্ষ্যে রাখতে পারে ইরান।

তারকা ঠাসা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের শুরু থেকেই বুক চিতিয়ে লড়েছিলো ইরান। ইংলিশদের একের পর এক আক্রমণ দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দিয়েছিলো দলটি। প্রথমার্ধের খেলা ড্রয়ের দিকে ই যাচ্ছিলো। এমন অবস্থায়, বিরতির আগের দশ মিনিটে ঝড় তুলে গ্যারেথ সাউথগেটের দল। 

৩৫তম মিনিটে দুর্দান্ত হেডে ইরানের গোলের তালা খোলেন জুড বেলিংহ্যাম। সাত মিনিটের মাথায় দ্বিতীয় গোল করেন বুকায়ো সাকা। তৃতীয় গোল আসে প্রথমার্ধে দেওয়া অতিরিক্ত এক মিনিটে। এবার গোল করেন রাহিম স্টার্লিং। 

তিন গোল দিয়ে বিরতিতে যায় ইংলিশরা। তখনো ইংল্যান্ডের গোলবারে বল পাঠাতে পারেনি ইরান। বিরতি শেষে মাঠে নেমে আবারও গোলের স্বাদ পায় গ্যারি সাউথগেটের শিষ্যরা। এবারও পায়ের ছন্দ দেখান বুকায়ো সাকা। ম্যাচের ৬২তম মিনিটে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন এই ফুটবলার।

ম্যাচের ৬৫তম মিনিটে এক গোল শোধ করে ইরান। ডান প্রান্ত থেকে দারুণ এক আক্রমণে বল নিয়ে ভেতরে ঢোকেন গোলিজাদেহ। সেখান থেকে মেহদি তারেমিকে বল দিলে দারুণ শটে বল জালে জড়ান এই স্ট্রাইকার। 

অবশ্য, ছয় মিনিট পর ফের গোলের দেখা পায় ইংল্যান্ড।  এবাত হ্যারি কেইনের পাস থেকে লক্ষ্যভেদ করেন মার্কাস রাশফোর্ড। বিশ্বকাপের ইতিহাসে বদলি নামা কোনো ফুটবলারের দ্রুততম গোলের রেকর্ড এটি। 

নির্ধারিত সময়ের শেষ দিকে ইংল্যান্ডের হয়ে এক ডজন গোল পূর্ণ করেন জ্যাক গ্রিলিশ। যোগ করা সময়ে পেনাল্টি থেকে আরেক গোল শোধ করেন তারেমি।